• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শনিবার, ০৮ আগস্ট ২০২০, ১৭ জিলহজ ১৪৪১, ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭

বিশ্বের যেসব দেশে এখনও হানা দেয়নি করোনাভাইরাস

    সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক
  • | ঢাকা , শুক্রবার, ০১ মে ২০২০

মহামারী নভেল করোনাভাইরাসে বিপর্যস্ত বিশ্বের প্রায় ২০০টির মতো দেশ ও অঞ্চল। পূর্ব এশিয়ার দেশ চীন থেকে এর উৎপত্তি হয়ে বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়ে রীতিমতো তা-ব চালাচ্ছে প্রাণঘাতী এ ভাইরাস। এর মধ্যেও কিছু দেশ রয়েছে যেখানে এখনও করোনা হানা দেয়নি। রয়টার্স।

এ সংবাদ সংস্থাটি এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, উচ্চমাত্রার সংক্রামক ভাইরাস নতুন করোনা এখন হানা দেয়নি বিশ্বে এরকম দেশ ও অঞ্চলের সংখ্যা বর্তমানে ৩৪টি। এর মধ্যে রয়েছে- মধ্য এশিয়ার দেশ তাজিকিস্তান, তুর্কেমেনিস্তান, পূর্ব আফ্রিকার দ্বীপদেশ কমোরোস, দক্ষিণাঞ্চলীয় আফ্রিকার দেশ লেসেঙ্গো এবং আরও দূরে মাইক্রোনেশিয়া অঞ্চলের দ্বীপরাষ্ট্র নাউরু, মধ্য প্রশান্ত মহাসাগরীয় দেশ কিরিবাস, সলোমন দ্বীপপুঞ্জ, মার্শাল দ্বীপপুঞ্জ, টোঙ্গা, সামোয়া ও ভানুয়াতুসহ আরও কিছু দেশ। গত ২০ এপ্রিল পর্যন্ত জাতিসংঘ স্বীকৃত ২৪৭ টি দেশ ও অঞ্চলের ২১৩ টিতেই নতুন করোনাভাইরাসজনিত রোগ কোভিড-১৯ হানা দিয়েছে। এর মধ্যে ১৮৬টি দেশে স্থানীয় পর্যায়ে ভাইরাসটির বিস্তার ঘটেছে (কমিউনিটি সংক্রমণ হয়েছে)। আর কমপক্ষে ১৬২টি দেশে কোভিড-১৯ এ মানুষের মৃত্যু হয়েছে। তবে কোনো কোনো দেশে করোনাভাইরাস আক্রান্তের কোনো খবর না এলেও সেখানে যে কেউ এ ভাইরাস আক্রান্ত হননি তেমন নাও হতে পারে। তার উদাহরণ হতে পারে উত্তর কোরিয়া।

সেখানে এখনও কেউ করোনায় আক্রান্ত হওয়ার কোনো খবর পাওয়া যায়নি। কিন্তু এ দেশটির সঙ্গে করোনাভাইরাস মোকাবিলায় লড়ে যাওয়া চীন, রাশিয়া এবং দক্ষিণ কোরিয়ার সীমান্ত রয়েছে। প্রাণঘাতী এ ভাইরাসটি একেবারেই পৌঁছায়নি এমন দেশগুলোর বেশিরভাগই হচ্ছে ক্ষুদ্র দ্বীপদেশ। যেখানে দর্শনার্থীরা যায় খুব কমই। দেশগুলোর অবস্থানও দূরে। সর্বশেষ পাওয়া তথ্যানুযায়ী, বিশ^জুড়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৩০ লাখে দাঁড়িয়েছে। আর সুস্থ হয়ে উঠেছেন এক-তৃতীয়াংশ মানুষ। এ থেকে একটি বিষয় স্পষ্ট, করোনায় আক্রান্ত বিভিন্ন দেশে এর বিস্তার ঠেকাতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার যে নিয়ম এখন চলছে, সেদিক থেকে এ দ্বীপদেশগুলো প্রকৃতিগতভাবেই বিচ্ছিন্ন থাকায় ভাইরাসের থাবা থেকে তারা সুরক্ষিত রয়েছে। অপরদিকে, এশিয়ার দেশগুলোতে সীমান্ত দিয়েই আছড়ে পড়েছে করোনাভাইরাসের ঢেউ। গত ১২ জানুয়ারি পর্যন্ত এ ভাইরাসটি চীনের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলেও ১৩ জানুয়ারি থেকে তা হয়ে ওঠে বৈশ্বিক সমস্যা। থাইল্যান্ডে ধরা পড়ে কোভিড-১৯ রোগী। এরপর জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, যুক্তরাষ্ট্রসহ নানা দেশে ভাইরাসটি ছড়াতে শুরু করে। এরই ধারাবাহিকতায় ফেব্রুয়ারির শেষ দিক থেকে ইউরোপের বহু দেশেই কোভিড-১৯ রোগী ধরা পড়তে শুরু করে। আর জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত লাতিন আমেরিকা এবং আফ্রিকার দেশগুলো করোনাভাইরাস মুক্তই ছিল।