• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১১ রবিউস সানি ১৪৪১

পর্বতারোহীদের মরদেহ

বিপাকে নেপাল

সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক

| ঢাকা , বুধবার, ১২ জুন ২০১৯

বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু শৃঙ্গ এভারেস্ট জয়ের স্বপ্ন পূরণ করতে প্রতি বছরই পর্বতপ্রেমীরা পাড়ি জমিয়ে থাকেন। কিন্তু এ স্বপ্নের শৃঙ্গ জয়ের আগে বা পরে বহু পর্বতারোহীরই মৃত্যু হয়। অনেকের পরিচয় মেলে, আবার অনেক তুষার পরিবৃত হয়ে পড়ে থাকেন বরফের পাহাড়ে। অজ্ঞাত পরিচয় এসব এভারেস্ট অভিযাত্রীদের নিয়েই সমস্যায় পড়েছে নেপাল সরকার।

দুই সপ্তাহ আগে এভারেস্ট থেকে চার টন বর্জ্যরে সঙ্গেই চার মৃত পর্বতারোহীর দেহ নামিয়ে আনা হয়েছে। দেহগুলো বর্তমানে স্থানীয় মর্গে রয়েছে। সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, নেপাল পরিবারের হাতে মৃতদেহ তুলে দিতে চায়। কিন্তু প্রয়োজন তাদের পরিচয়। যা সঠিকভাবে অনেক সময়ই পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে বিপদে পড়তে হচ্ছে। অভিযাত্রী পরিচয় জানতে বিপাকে পড়তে হচ্ছে নেপাল সরকারকে। তাই এভারেস্টের পর্বতারোহীদের পরিচয় সঠিকভাবে জানতে আরও কড়া আইন আনতে পারে কাঠমান্ডু।

উদ্ধার হওয়া পর্বতারোহীদের দেহ পরিবারের হাতে পৌঁছে দেয়াটা চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে কাঠমান্ডুর কাছে। ডিএনএ পরীক্ষাকেই এক্ষেত্রে একমাত্র প্রক্রিয়া বলে মনে করছেন কর্মকর্তারা। নেপালের পর্বতারোহী সংগঠনের সাবেক প্রধানের মতে, ‘এটি বেশ কঠিন কাজ। কিন্তু সরকারকে আরও বেশি তথ্য জানাতে হবে। এভারেস্টের কোন জায়গা থেকে দেহ মিলেছে তা জানাতে হবে। তবেই সংগঠন উদ্যোগ নেবে পরিবারের লোকদের খুঁজে বার করতে।’

১৯২০ থেকে শুরু হয়েছে এভারেস্ট অভিযান। তখন থেকে এখনও পর্যন্ত কমপক্ষে ৩০০ পর্বতারোহীর মৃত্যু হয়েছে। ১৯৯৯ সালে উদ্ধার হয় ব্রিটিশ পর্বাতারোহী জর্জ ম্যালোরির দেহ। জানা যায়, সে ১৯২৪ সালে এভারেস্ট অভিযানে গিয়ে প্রাণ হারিয়েছিলেন। এ ধরনের উদাহরণ আরও রয়েছে।