• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ৫ অগ্রাহায়ণ ১৪২৬, ২২ রবিউল আওয়াল ১৪৪১

পৃথক ঘটনায় আফগানিস্তানে ২১ বেসামরিক নাগরিক নিহত

সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক

| ঢাকা , মঙ্গলবার, ১২ ফেব্রুয়ারী ২০১৯

আফগানের স্বশস্ত্র বিদ্রোহী গোষ্ঠী তালেবানের বিরুদ্ধে ন্যাটো সমর্থিত সেনাবাহিনীর যুদ্ধ সংঘটিত হয়েছে। এ যুদ্ধে গত শুক্রবার প্রাণ হারিয়েছেন কমপক্ষে ২১ জন বেসামরিক আফগান নাগরিক। প্রাণহানির এ ঘটনা ঘটেছে দুটি পৃথক ঘটনায়। তবে দুটি ঘটনাস্থলই আফগানিস্তানের সাঞ্জিন জেলায় অবস্থিত। সরকারি বাহিনীর হামলায় বেসামরিক নাগরিকদের মৃত্যুতে প্রবল জনরোষ তৈরি হওয়ার কথা উল্লেখ করেছেন আফগানিস্তানের একজন সংসদ সদস্য। বার্তা সংস্থা অ্যাসোসিয়েটেড প্রেস বরাতে এ তথ্য জানা গেছে।

নাইন-ইলেভেনের হামলার পর গত ২০০১ সালে তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশের নির্দেশে আফগানিস্তানে মার্কিন বাহিনীর অভিযান শুরু হয়। আনুষ্ঠানিকভাবে আফগানিস্তানে তালেবানের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের যুদ্ধ শেষ হয় ২০১৪ সালে। তবে যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষ বাহিনীসহ ন্যাটোভুক্ত দেশগুলোর সেনাবাহিনী এখনও আফগান সেনা সদস্যদের সহায়তা দিয়ে যাচ্ছে। তবে একই সঙ্গে চলছে শান্তি আলোচনা। আফগান তালেবানের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, আলোচনায় সব শর্তের বিষয়ে একমত না হওয়া পর্যন্ত কোন অস্ত্রবিরতি কার্যকর করা হবে না। গত রোববার হেলমন্দ প্রদেশের একজন সংসদ সদস্য মোহাম্মাদ হাশিম আলকোজাই জানিয়েছেন, আফগান বাহিনীর বিমান হামলার এক ঘটনায় ১৩ জন এবং অপর এক বিমান হামলার ঘটনায় ৮ জন বেসামরিক নাগরিক প্রাণ হারিয়েছেন। নিহতদের মধ্যে রয়েছে নারী ও শিশু। আহত হয়েছে কমপক্ষে পাঁচজন। গভর্নরের মুখপাত্র জাবিহুল্লাহ আমানি জানিয়েছেন, কয়েক ঘণ্টাব্যাপী চলা যুদ্ধে আহত হয়েছে তিনজন পুলিশ সদস্য। গত শুক্রবারও একটি সেনা চৌকিতে হামলার ঘটনা ঘটেছে। তালেবান যোদ্ধাদের হামলায় সেখানে প্রাণ গেছে তিন সেনা সদস্যের। আহত হয়েছে চারজন। বেসামরিক নাগরিকদের মৃত্যুতে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সাধারণ নাগরিকরা। বিষয়টি নিয়ে তিনি উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা ও সংসদে আলোচনা করেছেন। কিন্তু তার কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি। হেলমন্দ প্রদেশের গভর্নরের মুখপাত্র ওমর ওয়াক জানিয়েছেন, আফগান তালেবানের যোদ্ধারা বেসামরিক এলাকায় অবস্থান নিয়ে সেখান থেকে আফগান বাহিনীর ওপর হামলা চালিয়েছে। তাই আফগান বাহিনী পাল্টা হামলা চালিয়েছে।