• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৮ আশ্বিন ১৪২৬, ২৩ মহররম ১৪৪১

ইসরায়েলের জাতীয় নির্বাচন

পুনর্নির্বাচিত হলে জর্ডান দখলের ঘোষণা নেতানিয়াহুর

তীব্র নিন্দা আরব বিশ্বের, রকেট হামলার সাইরেনে মঞ্চ ছেড়ে নিরাপদ আশ্রয়ে প্রধানমন্ত্রী

সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক

| ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯

image

বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু

ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে পুনর্নির্বাচিত হলে প্যালেস্টাইনের পশ্চিম তীরের অধিকৃত জর্ডান উপত্যকা ও ডেড সি-র উত্তরাংশ দখলের ঘোষণা দিয়েছেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। গত মঙ্গলবার এক টেলিভিশন ভাষণে তিনি এ ঘোষণা দেন। এদিনে নেতানিয়াহু আরও বলেন, এছাড়াও পশ্চিম তীরের সব এলাকায় ইহুদি বসতি স্থাপন নিশ্চিত করা হবে। তবে এর আগে এ বিষয়ে ইসরায়েলের নির্ভরযোগ্য মিত্র মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের পরামর্শ নেয়া হবে। আগামী ১৭ সেপ্টেম্বর ইসরায়েলের সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। নেতানিয়াহু এ ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই জর্ডান, তুরস্ক ও সৌদি আরবের কর্মকর্তারা এ পরিকল্পনার তীব্র নিন্দা করেছেন। আল-জাজিরা।

মঙ্গলবার নেতানিয়াহু বলেন, ‘আজ আমার উদ্দেশ্য ঘোষণা করছি, নতুন সরকার গঠনের পর ইসরায়েলের সার্বভৌমত্ব জর্ডান উপত্যকা ও উত্তর মৃত সাগর পর্যন্ত প্রয়োগ করব। নির্বাচনে ইসরায়েলের জনগণ তথা আপনাদের রায় পেলে তাৎক্ষণিকভাবে ওই পদক্ষেপের বাস্তবায়ন করব।’ ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রীর এ বক্তব্যকে ‘আগ্রাসন’ অভিহিত করে এটিকে ‘বিপজ্জনক পদক্ষেপ’ বলে নিন্দা করেছে আরব লীগ। এর প্রতিক্রিয়ায় প্যালেস্টাইনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস জানিয়েছেন, নেতানিয়াহু এ পরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে গেলে ‘ইসরায়েলে সঙ্গে স্বাক্ষরিত সব চুক্তি ও ওইসব চুক্তির বাধ্যবাধকতার সমাপ্তি ঘটবে’। এ পরিস্থিতিতে ৫৭ জাতির অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কোঅপারেশনের (ওআইসির) পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের জরুরি ডেকেছে সৌদি আরব। জর্ডান উপত্যকা ও ডেড সি-র উত্তরাংশ পশ্চিম তীরের এক-তৃতীয়াংশ এলাকাজুড়ে বিস্তৃত। ১৯৬৭ সালের আরব-ইসরায়েল যুদ্ধের সময় ইসরায়েল পূর্ব জেরুজালেমসহ পশ্চিম তীর, গাজা ও সিরিয়ার গোলান মালভূমি দখল করে নেয়। ইসরায়েল ১৯৮০ সালে পূর্ব জেরুজালেম, ১৯৮১ সালে গোলান মালভূমি নিজেদের অন্তর্ভুক্ত করে নেয়, কিন্তু পশ্চিম তীরকে অন্তর্ভুক্ত করা থেকে বিরত থাকে। দেশটির এসব পদক্ষেপ কয়েক দশক ধরে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি না পেলেও সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের অনুসৃত নীতি থেকে সরে এসে প্রেসিডেন্টে ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন উভয় পদক্ষেপকে স্বীকৃতি দিয়েছে। ইসরায়েল-প্যালেস্টাইন সংঘাতের কেন্দ্র হয়ে দাঁড়িয়েছে পশ্চিম তীর। ভবিষ্যৎ স্বাধীন রাষ্ট্রের জন্য পুরো এলাকাটি দাবি করেছে প্যালেস্টাইন। এখানে ও পূর্ব জেরুজালেমে ১৪০টি বসতি নির্মাণ করেছে ইসরায়েল যা আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী অবৈধ, কিন্তু ইসরায়েল এর সঙ্গে দ্বিমত জানিয়ে আসছে। নিরাপত্তার জন্য জর্ডান উপত্যকায় সব সময় ইসরায়েলে উপস্থিত থাকা দরকার বলে নেতানিয়াহু আগে থেকেই দাবি করে আসছিলেন।

এক প্রতিবেদনে বলা হয়, জর্ডান উপত্যকা ইসরায়েলি সেনাবাহিনী নিয়ন্ত্রিত এমন একটি এলাকা, যেখানে ৬৫ হাজার প্যালেস্টাইনি এবং ১১ হাজার অবৈধ ইহুদি বসতি স্থাপনকারীর বসবাস। উল্লেখ্য, প্যালেস্টাইনের পশ্চিম তীরের ৩০ ভাগ এলাকা নিয়ে উত্তর মৃত সাগর (ডেড সি) ও জর্ডান উপত্যকা গঠিত। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর নতুন এ দখলদারিত্বের অঙ্গীকার নিয়ে কথা বলেছেন হোয়াইট হাউজের একজন কর্মকর্তা। তার ভাষায়, ‘এই মুহূর্তে মার্কিন নীতিতে কোন পরিবর্তন হবে না। আমরা ইসরায়েলের নির্বাচনের পর শান্তির জন্য আমাদের লক্ষ্য প্রকাশ করব এবং ওই অঞ্চলে দীর্ঘ-প্রত্যাশিত নিরাপত্তা, সুযোগ-সুবিধা এবং স্থিতিশীলতা আনয়নের জন্য সর্বোত্তম পথ নির্ধারণের লক্ষ্যে কাজ করব।’

রকেট হামলার সাইরেনে মঞ্চ ছেড়ে নিরাপদ আশ্রয়ে প্রধানমন্ত্রী

এদিকে, রকেট হামলার সতর্কতা জানিয়ে বাজানো সাইরেন শুনে নির্বাচনী প্রচারণা মঞ্চ ছেড়ে নিরাপদ স্থানে আশ্রয় নিতে বাধ্য হয়েছেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। ইসরায়েলের দক্ষিণাঞ্চলীয় বন্দর শহর আশদোদে মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটেছে বলে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে। সাধারণ নির্বাচনের এক সপ্তাহ আগে আশদোদের নির্বাচনী প্রচারণা সমাবেশে তখন ভাষণ দিচ্ছিলেন ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী। এ সময় রকেট হামলার সাইরেন বাজলে তাকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নিতে তার দেহরক্ষীরা মঞ্চে জড়ো হন। কয়েক মিনিট নিরাপদ আশ্রয়ে থাকার পর নেতানিয়াহু মঞ্চে ফিরে ফের ভাষণ শুরু করেন। তার ডানপন্থি লিকুদ পার্টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাষণ সরাসরি সম্প্রচার করছিল, তখন নেতানিয়াহুর মঞ্চ ছাড়ার ঘটনাটাও সরাসরি দেখা যায়। ভাষণে ১৭ সেপ্টেম্বরের নির্বাচনে ফের জয় পেলে অধিকৃত পশ্চিম তীরের একটি অংশ ইসরায়েলে অন্তর্ভুক্ত করে নেয়ার একটি পরিকল্পনা ঘোষণার কিছুক্ষণ পর রকেট হামলা হয়। প্রধানমন্ত্রী মঞ্চ ছাড়াতে বাধ্য হচ্ছেন, এটি দেখার পর তার রাজনৈতিক বিরোধীরা দক্ষিণ ইসরায়েলে সীমান্তের অন্য পাশ থেকে চালানো রকেট হামলা থামাতে নেতানিয়াহু যথেষ্ট পদক্ষেপ নেননি বলে সমালোচনা শুরু করে।

ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী জানিয়েছে, প্যালেস্টাইনের গাজা থেকে ছোড়া দুটি রকেটের একটি আশদোদ ও অন্যটি একটু দক্ষিণের অপর বন্দর শহর আশকেলোনের দিকে আসার সময় আয়রন ডোম অ্যান্টি-মিসাইল সিস্টেম দিয়ে সেগুলো প্রতিরোধ করা হয়। তাৎক্ষণিকভাবে কোন গোষ্ঠী রকেট নিক্ষেপের দায় স্বীকার করেনি। এর পাল্টা পদক্ষেপ হিসেবে কয়েক ঘণ্টা পর বুধবার ভোররাতে ইসরায়েলি যুদ্ধবিমানগুলো গাজায় হামলা চালায়। ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী জানিয়েছে, অস্ত্র নির্মাণ কারখানা, একটি নৌ কম্পাউন্ড, হামাসের মালিকানাধীন একটি টানেলসহ ১৫টি লক্ষ্যে হামলা চালানো হয়েছে।