• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

বুধবার, ০৮ এপ্রিল ২০২০, ২৫ চৈত্র ১৪২৬, ১৩ শাবান ১৪৪১

চুক্তি লঙ্ঘন হলে সিরিয়ায় ফের অভিযান -হুঁশিয়ারি এরদোগানের

    সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক
  • | ঢাকা , রোববার, ২০ অক্টোবর ২০১৯

image

সম্প্রতি সিরিয়ার উত্তরাঞ্চল থেকে কুর্দি যোদ্ধাদের হটাতে সেনা অভিযান পরিচালনা করে তুরস্ক। পরবর্তীতে যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যস্থতায় আঙ্কারা পাঁচ দিনের জন্য ওই অভিযানে বিরতি টানতে সম্মত হয়, এ শর্তে যে, এর মধ্যে কুর্দি যোদ্ধারা নিরাপদে ওই অঞ্চল থেকে সরে যাবে। এ শর্ত পালিত না হলে আগামী মঙ্গলবার থেকে পুনরায় সেনা অভিযান পরিচালনার হুশিয়ারি দিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান। গত শুক্রবার টেলিভিশনে দেয়া এক বিবৃতিতে যুক্তরাষ্ট্র ও কুর্দি বিদ্রোহীদের উদ্দেশ্যে এ হুশিয়ারি জানান তুর্কি প্রেসিডেন্ট। রয়টার্স।

চুক্তির স্বার্থেই ১৮ থেকে ২২ অক্টোবর পর্যন্ত সেনা অভিযান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে এ দিন জানান এরদোগান। অভিযানে বিরতি ঘোষণার পরও তুর্কি সেনারা সীমান্তে অবস্থান করছে, সাংবাদিকরা এ বিষয়ে এরদোগানের দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলেন, সীমান্তে সৈন্য প্রত্যাহার করা হয়নি, আগামী ১২০ ঘণ্টা পাহারা দেয়ার স্বার্থেই তাদের নিয়োজিত রাখা হয়েছে।

এদিকে মানবাধিকার সংস্থা সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটসর (এসওএইচআর) দাবি, অভিযানে বিরতির কথা হলেও শুক্রবার সিরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলের বাব আল খেইর ও রাস আল আইন শহরে তুর্কি বিমান হামলায় ১৪ বেসামরিক নাগরিকের প্রাণহানি হয়েছে। যদিও এসওএইচআরের এমন অভিযোগ অস্বীকার করেছে আঙ্কারা। সিরিয়া ইস্যুতে গত বৃহস্পতিবার (১৭ অক্টোবর) মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও তুরস্ক সফরে যান। সে সময় এক বৈঠকে এরদোগানের সঙ্গে তাদের সেনা অভিযানে বিরতি বিষয়ক চুক্তি হয়। চুক্তি অনুযায়ী আগামী মঙ্গলবার পর্যন্ত সিরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় সীমান্তে সব ধরনের অভিযান বন্ধ রাখবে আঙ্কারা। এর বিনিময়ে ওই অঞ্চল থেকে কুর্দি বিদ্রোহীদের সরিয়ে ‘নিরাপদ ভূমি’ তৈরি করতে তুরস্ককে সাহায্য করবে যুক্তরাষ্ট্র। আঙ্কারা চায় ওই অঞ্চলে তুরস্কে আশ্রিত সিরীয় শরণার্থীদের পুনর্বাসন করতে। এদিকে সিরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চল থেকে কুর্দি বিদ্রোহীদের সরে যাওয়ার ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে তাদের পরবর্তী আলোচনা সম্পর্কে এখন পর্যন্ত কিছু জানা যায়নি।

‘নিরাপদ অঞ্চল প্রতিষ্ঠায় অংশ

নেবে না যুক্তরাষ্ট্র’

সিরিয়ায় নিরাপদ সিরীয় অঞ্চল প্রতিষ্ঠায় কোন পদক্ষেপ নেবে না যুক্তরাষ্ট্র। গত শুক্রবার দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী মাইক এস্পার এ তথ্য জানান। একই সঙ্গে ওই এলাকা থেকে ধারাবাহিকভাবে সেনা প্রত্যাহারও অব্যাহত রাখা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

এস্পার বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের মাঠ পর্যায়ের কোন সেনা সেফজোন প্রতিষ্ঠায় ভূমিকা রাখবে না। তারা তুরস্ক ও কুর্দি বাহিনী উভয়ের সঙ্গে যোগাযোগ রাখবে। ভবিষ্যতে আইএসবিরোধী লড়াই চালিয়ে যাওয়ার বিষয়ে তিনি মধ্যপ্রাচ্য ও ব্রাসেলস সফর করবেন।

তুরস্কের প্রতিরক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে শুক্রবার কথা বলেছেন জানিয়ে এস্পার বলেন, আঙ্কারার নিয়ন্ত্রিত এলাকায় বেসামরিক নাগরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।