• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ১১ কার্তিক ১৪২৭, ৯ রবিউল ‍আউয়াল ১৪৪২

এক তরুণ নিহত

কাশ্মীরে ভারতবিরোধী বিক্ষোভ-সংঘর্ষ

    সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক
  • | ঢাকা , শুক্রবার, ১৫ মে ২০২০

ভারত শাসিত কাশ্মীরের এক তল্লাশি চৌকিতে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে এক তরুণ নিহত হয়েছে। গত বুধবার সংঘটিত এ ঘটনার জেরে ওই দিন থেকেই সেখানে ভারতবিরোধী বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে। কোন কোন স্থানে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষেও জড়িয়েছে বিক্ষোভকারীরা। ভারতের সেন্ট্রাল রিজার্ভ ফোর্সের দাবি, সংকেত অমান্য করে ওই তরুণ তল্লাশি চৌকির দিকে এগিয়ে আসলে গুলি ছোড়া হয়। তবে প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছেন, সেনা সদস্যদের সংকেত পাওয়ার পর গাড়ি থামিয়েছিলেন ওই তরুণ। আল-জাজিরা।

সংবাদমাধ্যমটির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়ে বলা হয়েছে, বৈশ্বিক মহামারী করোনা মোকাবিলায় মার্চের শেষদিক থেকে কাশ্মীরে কঠোর লকডাউন চলছে। তবে তা সত্ত্বেও সম্প্রতি ওই অঞ্চলে সন্ত্রাসীবিরোধী অভিযান জোরালো করেছে ভারত। অপরদিকে বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলোও সরকারি বাহিনী ও তাদের সন্দেহভাজন সহায়তাকারীদের ওপর পাল্টা হামলা চালাচ্ছে।

এরই মধ্যে বুধবার কাশ্মীরের মূল শহর শ্রীনগরের একটি তল্লাশি চৌকিতে মেহেরাজরুদ্দিন শাহ নামের এক তরুণ নিহত হয়। ভারতীয় বাহিনীর দাবি সংকেত অমান্য করে ওই তরুণ গাড়ি চালিয়ে এগিয়ে আসতে থাকলে সেনা সদস্যরা গুলি ছোড়ে। তাদের দাবি ওই সময়ে একটি সামরিক বহর ওই এলাকা অতিক্রম করায় হামলার আশঙ্কা করছিলেন তারা।

তবে ওই তরুণের বাবা গুলাম নবি শাহ নিরাপত্তা বাহিনীর দাবি প্রত্যাখ্যান করেছেন। তিনি বলেন, তার ছেলে কোন তল্লাশি চৌকির মধ্য দিয়ে গাড়ি চালায়নি। সেনাবাহিনী প্রথমে তাকে থামিয়ে পরে গুলি করেছে বলে অভিযোগ করেন তিনি। ফিরদৌসা নামে এক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, সংকেত পাওয়ার পর ওই তরুণ গাড়ি থেকে নেমে পড়ে। তিনি বলেন, ‘এক নিরাপত্তা কর্মকর্তা কিছু বললে জবাবে ওই তরুণ জানায় তার জরুরি কাজ আছে। তারা ওই ব্যক্তিকে যেতে বলে কিন্তু গাড়িতে ওঠার পর তার পিছন দিক দিয়ে গুলি করা হয়।’ প্রত্যক্ষদর্শী ওই নারী বলেন, ‘তাকে ইচ্ছাকৃতভাবে হত্যা করা হয়েছে। সে কোন ভুল করেনি।’ ওই তরুণের মৃত্যুর খবর তার গ্রামে পৌঁছালে কয়েক হাজার নারী-পুরুষ রাস্তায় নেমে আসে। ওই সময় তারা ভারতবিরোধী সেøাগান দেয়ার পাশাপাশি ওই তরুণের মরদেহ পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেয়ার দাবি জানায়। তবে তাৎক্ষণিকভাবে মরদেহ ফিরিয়ে দিতে অস্বীকৃতি জানায় কর্তৃপক্ষ। এদিকে গ্রামবাসীর বিক্ষোভ ঠেকাতে নিরাপত্তা বাহিনী এগিয়ে গেলে তাদের লক্ষ্য করে পাথর নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে।