• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১, ৩০ চৈত্র ১৪২৭ ২৯ শাবান ১৪৪২

করোনাভাইরাসে অর্থনৈতিক সাফল্য দেখছে ট্রাম্প প্রশাসন

    সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক
  • | ঢাকা , শনিবার, ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২০

image

উইলবার রস

চীনে করোনাভাইরাসের বিস্তারকে মার্কিন অর্থনীতির জন্য ইতিবাচক হিসেবেই দেখছে ট্রাম্প প্রশাসন। দেশটির বাণিজ্যমন্ত্রী উইলবার রস বলেছেন, ‘আমার মনে হয় এতে উত্তর আমেরিকায় কর্মসংস্থান ত্বরান্বিত হবে।’

চীনের সব প্রদেশ ও বিশ্বের কমপক্ষে ২১টি দেশে করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হওয়ার পর বৃহস্পতিবার বিশ্বজুড়ে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে ডব্লিউএইচও (বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা)। ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে চীনে মৃতের সংখ্যা ২১৩ জনে পৌঁছেছে। আক্রান্তের সংখ্যা ৯ হাজার ৬৯২ জন। এমন পরিস্থিতিতে দেশের এক টেলিভিশনকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে মার্কিন বাণিজ্যমন্ত্রী উইলবার রস বলেন, ‘আমি প্রকৃতপক্ষে দুঃখজনক এ পরিস্থিতির ওপর দাঁড়িয়ে বিজয় উল্লাস করতে চাই না। তবে এতে চীনের পণ্য সরবরাহ ব্যবস্থার (সাপ্লাই চেইন) বিষয়ে সবাই নতুন করে চিন্তা করবে। এর ফলে উত্তর আমেরিকায় চাকরির বাজার ফিরতে শুরু করবে।’ ট্রাম্পের বাণিজ্যমন্ত্রীর এমন মন্তব্যের পর যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছে। দেশটির বিরোধী ডেমোক্র্যাট কংগ্রেসম্যান ডন বায়ার এক টুইটার বার্তায় এর তীব্র সমালোচনা করেন।

এরপর মার্কিন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র বলেন, ‘প্রকৃতপক্ষে আমাদের বিবেচনা করতে হবে যে আমরা এমন কোন দেশের সঙ্গে ব্যবসা করবো কিনা, যারা নিজেদের জনগণের ঝুঁকিকে সারা বিশ্বের কাছ থেকে লুকিয়ে রাখে।’ তবে অর্থনীতিবিদরা বলছেন, নতুন এই করোনাভাইরাস সার্স মহামারীর চেয়েও বিশ্ব অর্থনীতিতে বড় প্রভাব ফেলবে। ২০০২ সালে সার্স ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ৭০০ মানুষের মৃত্যু হয় এবং এর মোকাবিলায় বিশ্বে ৩ হাজার কোটি মার্কিন ডলার ব্যয় হয়।

চীনে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর প্রথমে (এক সপ্তাহ আগে) বিশ্বজুড়ে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করতে অস্বীকৃতি জানায় ডব্লিউএইচও। সংস্থাটির কর্মকর্তারা এখন বলছেন, চীনে হাজারো মানুষ নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে এবং যুক্তরাষ্ট্রসহ বেশ কয়েকটি দেশে এক ব্যক্তি শরীর থেকে অন্য ব্যক্তির আক্রান্ত হওয়ার স্পষ্ট নজির দেখা গেছে। এছাড়াও আন্তর্জাতিক এ স্বাস্ব্য সংস্থাটির অনুসন্ধানে দেখা গেছে, এই ভাইরাস সংশ্লিষ্ট কারণে মারা যাওয়া প্রতি আট জনের মধ্যে এক জনের মৃত্যু হয়েছে ভাইরাসটির উৎপত্তিস্থল হুবেই প্রদেশের বাইরে। ফলে আগের সিদ্ধান্তটি পর্যালোচনার সিদ্ধান্ত নেয় সংস্থাটির বিশেষজ্ঞ কমিটি। এরই ধারবাহিকতায় গত বৃহস্পতিবার এক জরুরি বৈঠকের পর এ আন্তর্জাতিক এ স্বাস্থ্য সংস্থাটির মহা মহাপরিচালক তেদ্রোস আধানম গেব্রিয়েসাস বৈশ্বিক জরুরি অবস্থা’ ঘোষণা দেন।