• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শনিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৯, ৬ মাঘ ১৪২৫, ১২ জমাউল আওয়াল ১৪৪০

কংগ্রেসের শীর্ষ পদে রূপান্তরকামী অপ্সরা

সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক

| ঢাকা , শুক্রবার, ১১ জানুয়ারী ২০১৯

image

সুস্মিতা দেব রাহুল গান্ধী অপ্সরা রেড্ডি

ভারতে শীর্ষ রাজনৈতিক দলে পদ পেয়েছেন রূপান্তরকামী (পুরুষ থেকে নারী হওয়া) অপ্সরা রেড্ডি। দেশটির বর্তমান প্রধান বিরোধী ও অন্যতম রাজনৈতিক দল জাতীয় কংগ্রেসের মহিলা শাখার সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক পদে তাকে নিয়োগ দিয়েছেন দলটির সভাপতি রাহুল গান্ধী। অপ্সরার সঙ্গে একটি ছবি তুলে এ ঘোষণা নিজেই দিয়েছেন কংগ্রেস সভাপতি।

এই প্রথম ভারতের কোন জাতীয় রাজনৈতিক দলে গুরুত্বপূর্ণ পদে আসীন হলেন রূপান্তরকামী কোন নারী। কংগ্রেসে যোগ দেয়ার আগে অপ্সরা তামিলনাড়ুভিত্তিক রাজনৈতিক দল এআইএডিএমকের মুখপাত্র ছিলেন। জাতীয় মহিলা কংগ্রেসের সভানেত্রী সুস্মিতা দেব বলেন, ‘অপ্সরার সঙ্গে আমার কলকাতাতেই কয়েক মাস আগে আলাপ হয়। সে সময় ওর রাজনৈতিক চিন্তাভাবনার স্বচ্ছতা খুব পছন্দ হয়েছিল। তখনই ওকে কংগ্রেসে আসতে আহ্বান জানাই। এরপরে ওর বিষয়ে রাহুল গান্ধীর সঙ্গে কথা বলি। সঙ্গে সঙ্গেই রূপান্তরকামীদেরও দলে জায়গা দেয়ার প্রয়োজন রয়েছে বলে জানান রাহুল। এরই ধারবাহিকতায় গত মঙ্গলবার রাহুল গান্ধীর উপস্থিতিতে অপ্সরা দলে যোগ দিয়েছেন। বিবিসি ওয়ার্ল্ড সার্ভিসসহ ভারতের বেশ কয়েকটি জনপ্রিয় ইংরেজি সংবাদপত্রে সাংবাদিক ও সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন অপ্সরা। তিনি বলেন, ‘আমি দীর্ঘদিন সাংবাদিকতা করার সময় থেকেই নানা ধরণের কার্যক্রমের সঙ্গেও যুক্ত ছিলাম। সবসময়েই মনে হতো, আরও বড় কিছু করতে হলে একটা রাজনৈতিক প্ল্যাটফর্ম দরকার- যেখানে আমি বৃহত্তর সমাজের জন্য নীতিগত কিছু পরিবর্তন ঘটাতে পারব। সেই আগ্রহ থেকেই এআইএডিএমকে দলে যোগ দেয়া। তারা একটা দ্রাবিড় সংগঠন হয়েও আমাকে যে স্থান দিয়েছিল, এরকম একটা মূলস্রোতের জায়গায় একজন রূপান্তরীকে গ্রহণ করেছে, সেটা নিঃসন্দেহে বড় পদক্ষেপ।’ তিনি বলেন, সে সময় অনেকেই ভারতে থেকে এ ধরনের কর্মকা- চালানো কঠিন হবে বলে ভয় দেখাত। আবার লোকে হাসবে তাকে দেখে বা বিদেশে চলে যাওয়ার পরামর্শও দিয়েছিল অনেকে। কিন্তু চ্যালেঞ্জটা গ্রহণ করে একদিকে যেমন সাংবাদিকতা চালিয়ে গেছেন, তেমনই রূপান্তরকামীদের অধিকার নিয়ে সারা দেশে কাজ করে বেরিয়েছেন অপ্সরা রেড্ডি। কংগ্রেস একজন রূপান্তরীকে নেতৃত্বে এনেছে, কিন্তু জাতীয় স্তরের অন্য কোন রাজনৈতিক দল কেন এগিয়ে আসেনি? এমনকি প্রগতিশীল দল বলে পরিচিত বামপন্থিরাও নয়! এমন প্রশ্ন করা হলে জবাবে অপ্সরা বলেন, ‘রাহুল গান্ধী নতুন প্রজন্মের নেতা, তাই তিনি একটি সাহসী পদক্ষেপ নিয়েছেন। আশা করব অন্য দলগুলোও এবার এ পথ অনুসরণ করবে। কিন্তু তার আগে ভাবা দরকার রূপান্তরকামী কেন, নারীদের নিয়েও আদৌ কতটা ভাবে রাজনৈতিক দলগুলো? বিজেপি বা আরএসএসকেই দেখুন না! ক’জন নারী আছেন সেখানে?’