• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

রবিবার, ১২ জুলাই ২০২০, ২৮ আষাঢ় ১৪২৭, ২০ জিলকদ ১৪৪১

ইরানি ট্যাংকার কালো তালিকাভুক্ত করল যুক্তরাষ্ট্র

দরিয়া-১ নামের ট্যাংকারটি সিরিয়ায় জ্বালানি নিয়ে যাচ্ছিল বলে অভিযোগ মার্কিন অর্থমন্ত্রণালয়ের

সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক

| ঢাকা , রোববার, ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৯

ইরানের একটি তেলবাহী ট্যাংকার সিরিয়ার দিকেই যাচ্ছে দাবি করে মার্কিন অর্থ মন্ত্রণালয় ওই নৌযানটিকে কালো তালিকাভুক্ত করেছে। আদ্রিয়ান দরিয়া-১ নামের ট্যাংকারটি আগে গ্রেস ওয়ান নামে পরিচিত ছিল।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে সিরিয়ার এক তেল শোধনাগারের জন্য জ্বালানি নিয়ে যাচ্ছে এমন সন্দেহে জুলাইয়ে জিব্রাল্টারের ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষ এ সুপার ট্যাংকারটিকে আটক করেছিল। সিরিয়ায় পণ্য খালাস করা হবে না, তেহরানের এমন আশ্বাসের পর চলতি মাসে তেলবাহী ট্যাংকারটিকে ছেড়ে দেয়া হয় বলে বিবিসি জানিয়েছে। এরপর যুক্তরাষ্ট্র ট্যাংকারটিকে আটকাতে কয়েক দফা চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়। জিব্রাল্টারে গ্রেস ওয়ানকে আটকের ঘটনা ইরান ও যুক্তরাজ্যের মধ্যে কূটনৈতিক সংকটের সৃষ্টি তৈরি হয়। তেহরান পরে উপসাগর থেকে সুইডেনের একটি ব্রিটিশ পতাকাবাহী ট্যাংকার স্টেনা ইমপেরিওকে আটক করে।

গত শুক্রবার এক বিবৃতিতে মার্কিন অর্থ মন্ত্রণালয় জানায়, আদ্রিয়ান দারিয়া ওয়ানকে ইরানের ২১ লাখ ব্যারেল অপরিশোধিত তেল বহনে ব্যবহার করা হচ্ছে, যা দেশটির সশস্ত্র বাহিনীর প্রধান শাখা রেভ্যুলেশনারি গার্ডকেই উপকৃত করবে। ইরানের এ রেভ্যুলেশনারি গার্ড যুক্তরাষ্ট্রের ‘সন্ত্রাসী সংগঠনের’ তালিকায় আছে। তেহরানের ‘ক্ষতিকর কার্যকলাপ ও সন্ত্রাস বিস্তৃতির’ অর্থায়নে অবৈধভাবে তেল বিক্রিতে আদ্রিয়ান দারিয়া ওয়ানের মতো ট্যাংকারগুলোর ব্যবহৃত হয় বলেও অভিযোগ ওয়াশিংটনের। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও পরে টুইটারে জানান, ইরানি এ ট্যাংকারটি যে সিরিয়ার বন্দর তারতুজের দিকেই যাচ্ছে সে বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে ‘বিশ্বাসযোগ্য তথ্য’ আছে। সিরিয়ার তারতুজে রাশিয়ার একটি নৌ ঘাঁটিও আছে। ট্যাংকারটি নিয়ে ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ যে আশ্বাস দিয়েছিলেন তা বিশ্বাস করলে ‘বড় ভুল’ হবে বলেও পম্পেও মন্তব্য করেছেন। গ্রেস ওয়ান ছেড়ে দিতে চাপ দেয়ার সময় তেহরান ট্যাংকারটির সব তেল বিক্রি হয়ে গেছে জানালেও এর ক্রেতার নাম প্রকাশ করেনি। গত সপ্তাহে জিব্রাল্টার ছাড়ার সময় নৌযানটি তার চূড়ান্ত গন্তব্য হিসেবে গ্রিসের বন্দর কালামাতার নাম জানিয়েছিল। ট্যাংকারটিকে যে দেশ সাহায্য করবে তাদের ওপর যুক্তরাষ্ট্র নিষেধাজ্ঞা দিতে পারে- মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এমন হুমকির পর গ্রিস ইরানি নৌযানটিকে সিরিয়ার দিকে যেতে সহায়তা করা হবে না বলে জানায়। আদ্রিয়ান দারিয়া ওয়ান পরে তার চূড়ান্ত গন্তব্য হিসেবে তুরস্কের ইস্কেনদেরুন বন্দরের নাম দেয় বলে প্রকাশিত তথ্যের বরাত দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে। ইস্কেনদেরুনের অবস্থান সিরিয়া সীমান্ত থেকে মাত্র ২৫ মাইল দূরে। শুক্রবার তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাভুসোগলু জানান, ইরানি ট্যাংকারটি বেশ কয়েকবারই তার গন্তব্যস্থল পরিবর্তন করেছে। এটি লেবাননের জলসীমার দিকেই অগ্রসর হচ্ছে বলেও ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি।