• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

বুধবার, ০৮ এপ্রিল ২০২০, ২৫ চৈত্র ১৪২৬, ১৩ শাবান ১৪৪১

আফগানিস্তান থেকে ৫ হাজার ৪০০ মার্কিন সেনা প্রত্যাহার করবে যুক্তরাষ্ট্র

কাবুলে তালেবানের গাড়ি বোমা হামলায় নিহত ১৬

সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক

| ঢাকা , বুধবার, ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯

image

গত সোমবার কাবুলে গাড়ি বোমা হামলায় নিহত এক ব্যক্তিকে কবর দেয়া হচ্ছে -রয়টার্সি ইনসেটে- গত সোমবার কাবুলে বৈঠকে মার্কিন কর্মকর্তা জালমি খলিলজাদ (বাঁমে) ও আফগান প্রধান নির্বাহী আবদুল্লাহ আব্দুল্লাহ

আফগানিস্তানের সশস্ত্র বিদ্রোহী গোষ্ঠী তালেবানের সঙ্গে সম্ভাব্য চুক্তির মূল নীতি হিসেবে ২০ সপ্তাহের মধ্যে পাঁচ হাজার চারশ’ সেনা প্রত্যাহার করে নেবে যুক্তরাষ্ট্র। গত সোমবার এক টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে সম্ভাব্য ওই চুক্তির বিস্তারিত জানান আফগান বংশোদ্ভূত মার্কিন কর্মকর্তা জালমি খলিলজাদ। তবে এই চুক্তি চূড়ান্ত হওয়ার আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অনুমোদন পেতে হবে বলে উল্লেখ করে তিনি। তালেবান প্রতিনিধিদের সঙ্গে নবম ধাপের আলোচনার ফলাফল আফগান সরকারকে জানানোর পরে এই সাক্ষাৎকার দেন তিনি। সাক্ষাৎকার সম্প্রচারের পর কাবুলে বিদেশিদের আবাসিক এলাকায় বড় ধরনের হামলার ঘটনা ঘটে। এতে ১৬ জন নিহত ও অনেকে আহত হয়েছেন। হামলার দায় স্বীকার করেছে তালেবান।

টুইন টাওয়ার হামলার পর আফগানিস্তানে মার্কিন আগ্রাসনের অংশ হিসেবে সামরিক জোট ন্যাটো হামলা চালিয়ে তালেবান সরকারকে ক্ষমতা থেকে উৎখাত করে। তখন থেকেই যুক্তরাষ্ট্র ও তাদের মিত্রদের বিরুদ্ধে সশস্ত্র লড়াই করে যাচ্ছে গোষ্ঠীটি। দীর্ঘ ১৮ বছরের যুদ্ধ অবসানের লক্ষ্যে গত বছরের জুন থেকে কাতারের রাজধানী দোহায় মার্কিন কর্মকর্তাদের সঙ্গে ধারাবাহিক আলোচনা শুরু করেন তালেবান কর্মকর্তারা। গত সপ্তাহে সেখানে দুই পক্ষের নবম ধাপের আলোচনা শেষ হয়। বৈঠকের একপর্যায়ে দোহায় অবস্থিত তালেবানের রাজনৈতিক কার্যালয়ের মুখপাত্র সুহাইল শাহিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে চুক্তির দ্বারপ্রান্তে পৌঁছানোর ইঙ্গিত দেন। ওই সময়ে মার্কিন কর্মকর্তারা এই বিষয়ে কোনও কথা না বললেও বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, চুক্তির বিষয়ে আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানিকে জানাতে কাবুল সফরে যেতে পারেন যুক্তরাষ্ট্রের মুখ্য আলোচক খলিলজাদ। কাবুল সফরের সময় আফগান সম্প্রচারমাধ্যম টোলো নিউজকে তালেবান বিদ্রোহীদের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্ভাব্য চুক্তির বিস্তারিত জানান খলিলজাদ। সোমবার ওই সাক্ষাৎকার সম্প্রচারিত হয়। তিনি জানান, যুক্তরাষ্ট্রের সেনা প্রত্যাহারের বিনিময়ে তালেবান কর্তৃপক্ষ নিশ্চিত করবে যে আফগানিস্তান আবারও এমন কোনও সশস্ত্র গোষ্ঠীর ঘাঁটি হিসেবে ব্যবহৃত হবে না যারা যুক্তরাষ্ট্র ও তাদের মিত্রদের ওপর হামলা চালাতে চায়। তিনি বলেন, আমরা একমত হয়েছি যে, যদি চুক্তি অনুযায়ী সব শর্ত ঠিকঠাক চলে তাহলে আমরা বর্তমানে উপস্থিত থাকা পাঁচটি ঘাঁটি ১৩৫ দিনের মধ্যে ছেড়ে দেব। বর্তমানে আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় ১৪ হাজার সেনা সদস্য রয়েছে। তালেবানের এক মুখপাত্র ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসিকে জানিয়েছেন খলিলজাদ যে পরিমাণ সেনা প্রত্যাহারের কথা বলেছেন তা ঠিকই আছে। বিবিসি জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের বাকি সেনা প্রত্যাহারের বিষয়টি কয়েকটি শর্তের ওপর নির্ভর করবে। এরমধ্যে রয়েছে আফগান সরকার ও তালেবান এর মধ্যে শান্তি আলোচনা শুরু এবং যুদ্ধবিরতি কার্যকর। এই চুক্তির বিষয়ে কোনও মন্তব্য করার আগে আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি তা ভালোভাবে খতিয়ে দেখবেন বলে জানিয়েছেন তার এক মুখপাত্র। তিনি জানান, আফগান সরকারের কাছে এখনও প্রমাণ হতে হবে যে তালেবান আসলেই শান্তি চায়। ২০০১ সালে আফগানিস্তানে মার্কিন আগ্রাসন শুরুর পর আন্তর্জাতিক জোটের প্রায় সাড়ে তিন হাজার সদস্য নিহত হয়েছে। এর মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের সেনা সদস্যই রয়েছে প্রায় দুই হাজার তিনশো। তবে আফগানিস্তানের বেসামরিক, তালেবান বিদ্রোহী ও সরকারি সেনার সংখ্যা নির্দিষ্ট করা কঠিন। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে জাতিসংঘের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, আফগান যুদ্ধে ৩২ হাজারের বেশি বেসামরিক মানুষ নিহত হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের ব্রাউন ইউনিভার্সিটির ওয়াটসন ইনস্টিটিউট জানায়, এই যুদ্ধে ৫৮ হাজার নিরাপত্তা সদস্য ও প্রায় ৪২ হাজার বিদ্রোহী ও সেনা নিহত হয়েছে।