• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১, ৩০ চৈত্র ১৪২৭ ২৯ শাবান ১৪৪২

অচিরেই সুদানের সঙ্গে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে নেতানিয়াহু

    সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক
  • | ঢাকা , বুধবার, ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২০

image

উগান্ডার এনতাব্বে শহরে সুদানের প্রেসিডেন্ট ইয়োওয়েরি মুসাভেনির সঙ্গে আলোচনা শেষে বেরিয়ে আসছেন ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু -আল-জাজিরা

মধ্যপ্রাচ্যের অন্যতম প্রভাবশালী দেশ ইসরায়েলকে প্রথমবারের মতো স্বীকৃতি দিতে যাচ্ছে উত্তর আফ্রিকার দেশ সুদান। গত সোমবার ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু ও সুদানের সার্বভৌম কাউন্সিলের প্রধান আবদেল আল বুরহানের মধ্যে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। তবে উগান্ডার এনতেব্বে শহরের এ বৈঠক নিয়ে সুদানের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে কোন মন্তব্য করা হয়নি। রয়টার্স।

বার্তা সংস্থাটি এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, জেরুজালেমের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করে তা এগিয়ে নেয়ার বিষয়ে সম্মত হয়েছে দেশ দুটি। এ লক্ষ্যে সুদানি নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু। উগান্ডার এনতেব্বে শহরে সোমবার বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়। এদিন সুদানের ক্ষমতাসীন সার্বভৌম কাউন্সিলের প্রধান আবদেল ফাত্তাহ আল-বুরহানের সঙ্গে দুই ঘণ্টাব্যাপী বৈঠক করেন নেতানিয়াহু। সেখানে তাদের মধ্যে বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হয়। একই দিন সার্বভৌম কাউন্সিলের প্রধান আবদেল আল বুরহানের সঙ্গে বৈঠকের খবর জানিয়ে এক টুইট বার্তায় ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা সহযোগিতা শুরু করতে সম্মত হয়েছি; যাতে দুই দেশের সম্পর্ক স্বাভাবিক হওয়ার পথে এগিয়ে যাবে।’ তবে সুদানের তথ্যমন্ত্রী ও সরকারের মুখপাত্র ফয়সাল সালিহ জানিয়েছেন, সুদানি নেতার ওই সফরের বিষয়ে কিছু জানা নেই তার। এ বিষয়ে মন্ত্রিসভাতেও কোন আলোচনা হয়নি। কর্মকর্তারা আবদেল আল বুরহানের ফিরে আসার অপেক্ষায় রয়েছেন।

এদিকে এ বৈঠককে ‘পেছন থেকে ছুরিকাঘাত’ বলে অভিহিত করেছেন এক ঊর্ধ্বতন প্যালেস্টাইনি কর্মকর্তা।

প্রসঙ্গত, প্যালেস্টাইনের এলাকায় দখলদারিত্বের কারণে বেশিরভাগ মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশেরই আগ্রাসী ইসরায়েলের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক নেই। সুদানের ভূখণ্ড ব্যবহার করে ইরান গাজা উপত্যকায় গোলাবারুদ পাঠায় বলেও এক সময় সন্দেহ করতো ইসরায়েল। নিরাপত্তা সূত্রগুলোও মনে করে ২০০৯ সালে ইসরায়েলি যুদ্ধবিমান সুদানের সশস্ত্র বহরে হামলা চালায়। তবে গত বছর দেশটির সাবেক শাসক ওমর আল বশিরের বিদায়ের পর সুদান ইরান থেকে দূরত্ব বজায় রাখছে বলে মনে করছেন ইসরায়েলি কর্মকর্তারা।