• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শনিবার, ১১ জুলাই ২০২০, ২৭ আষাঢ় ১৪২৭, ১৯ জিলকদ ১৪৪১

আসামের এনআরসি

পরিবারের সবার নাম থাকলেও মুনওয়ারার নেই

সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক

| ঢাকা , রোববার, ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৯

image

এনআরসি থেকে বাদ পড়া এক নারী

আসামের চূড়ান্ত নাগরিক তালিকা (এনআরসি) প্রকাশ নিয়ে উদ্বেগের মধ্যে ছিলেন রাজ্যটির ৪১ লাখ বাসিন্দা। গত শনিবার তালিকা প্রকাশের পর বাদ পড়েছেন ১৯ লাখ। এই বাদ পড়া ১৯ লাখের মধ্যে রয়েছেন মুনওয়ারা খাতুন নামের এক নারী। মধ্য আসামের একটি এনআরসি সেবা কেন্দ্রে নিজের নাম দেখতে দুই নাতি ও স্বামী সহর আলীকে নিয়ে এসেছেন মুনওয়ারা খাতুন। রয়টার্সকে তিনি বলেন, পরিবারের সবার নাম রয়েছে তালিকায়। কিন্তু আমার নাম নেই। এটা কীভাবে হয়? ৬৫ বছরের সহর আলী জানান, খসড়া তালিকায় নাম না থাকার পর কর্মকর্তাদের ভূমির দলিল, ভোটার পরিচয়পত্র ও আধার কার্ড দেয়া হয়েছে।

ওই এনআরসি সেবা কেন্দ্রে তালিকায় নাম না থাকা কয়েক ডজন মানুষ ভিড় করেন। কর্মকর্তারা তাদের আদালতে যাওয়ার জন্য বলছেন। এদের মধ্যে একজন হলেন রিতেশ সূত্রধর। তালিকায় রিতেশের স্ত্রীও স্থান পাননি। তিনি বলেন, তারা বলছে আদালতে যেতে। কিন্তু এই পেছনে যে ব্যয় হবে তা কে দেবে? ভারতীয় সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত জুনিয়র কমিশনড অফিসার (জেসিও) আসামের চূড়ান্ত নাগরিক তালিকায় স্থান পাননি। এ বছরের শুরুতে ফরেনার্স ট্রাইব্যুনাল তাকে বিদেশি ঘোষণার পর ভারতের সংবাদ মাধ্যমের শিরোনাম হয়েছিলেন তিনি। শনিবার প্রকাশিত চূড়ান্ত নাগরিক তালিকাতেও স্থান হয়নি তার। এ সেনা কর্মকর্তার তিন সন্তান, দুই মেয়ে ও এক ছেলের নাম তালিকায় নেই। কিন্তু চূড়ান্ত তালিকায় স্ত্রীর নাম রয়েছে। শনিবার স্থানীয় সময় সকাল ১০টায় আসামের চূড়ান্ত নাগরিক তালিকা (এনআরসি) প্রকাশ করা হয়েছে। তালিকা থেকে বাদ পড়েছেন রাজ্যের প্রায় ১৯ লাখ ৬ হাজার ৬৫৭ জন মানুষ। এক বিবৃতিতে এনআরসি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, চূড়ান্ত তালিকায় মোট আবেদনকারী ৩ কোটি ৩০ লাখ ১৭ হাজার ৬৬১ জনের মধ্যে নাগরিক হিসেবে স্থান পেয়েছেন ৩ কোটি ১১ লাখ ২১ হাজার ৪ জন। তালিকায় স্থান না পাওয়া ব্যক্তিরা ফরেনার্স ট্রাইব্যুনালে আপিল করার সুযোগ পাবেন।