• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১, ৩০ চৈত্র ১৪২৭ ২৯ শাবান ১৪৪২

করোনাভাইরাস

চীনের বাইরে প্রথম মৃত্যু ফিলিপাইনে

বেইজিংয়ে নিহত ৩০৪, আক্রান্ত ১৪ হাজার

    সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক
  • | ঢাকা , সোমবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২০

image

চীনের হুবেই প্রদেশে জরুরিভিত্তিতে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সামগ্রীর জোগান দিতে ব্যস্ত প্রদেশটির স্বাস্থ্য কর্মীরা - আল-জাজিরা

চীনে ধারাবাহিকভাবে বেড়েই চলেছে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা। এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত প্রাণ গেছে তিনশ’র বেশি মানুষের। এছাড়া আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়িয়েছে ১৪ হাজারে। এদিকে, চীনের বাইরে ফিলিপাইনে প্রথমবারের মতো এ ভাইরাসে মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। নিহত ওই ব্যক্তি চীনের নাগরিক। অপরদিকে ভারতে নতুন করে আরেকজন করোনাভাইারাসে আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানা গেছে। রয়টার্স, বিবিসি।

সংবাদ সংস্থা রয়টার্স এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, গত শনিবার একদিনেই নতুন করে ২ হাজার ৫৯০ জনের শরীরে এ ভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে। এতে চীনে এ পর্যন্ত আক্রান্তের মোট সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৪ হাজার ৩৮০ জনে। আরও ৪৫ জনের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে দেশটিতে এ ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩০৪ জনে। শনিবার নতুন করে যাদের মধ্যে সংক্রমণ ধরা পড়েছে ও যাদের মৃত্যু হয়েছে তাদের অধিকাংশই হুবেই প্রদেশের বাসিন্দা। নভেল করোনাভাইরাসের ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে উহানসহ বেশ কয়েকটি শহর কার্যত অবরুদ্ধ করে রেখেছে চীন। গণপরিবহন বন্ধ রাখায় ছয় কোটি মানুষের চলাচল সীমিত হয়ে পড়েছে। বিভিন্ন দেশ তাদের নাগরিকদের সরিয়ে নিচ্ছে চীন থেকে, জারি করছে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা। দেশটির সঙ্গে সরাসরি ফ্লাইট কমিয়ে দিচ্ছে বা বন্ধ করে দিচ্ছে আন্তর্জাতিক এয়ারলাইন্সগুলো। করোনা আতঙ্কে শঙ্কিত কয়েকটি দেশ তাদের সীমান্তেও কড়াকড়ি আরোপ করেছে চীনা নাগরিকদের জন্য।

বিশ্বের ২৪টি দেশ ও অঞ্চলে কমপক্ষে ১৩০ জনের দেহে নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ছে। ফিলিপাইনে নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। চীনের বাইরে প্রাণঘাতী এই ভাইরাসটিতে আক্রান্ত কারও মৃত্যুর ঘটনা এটিই প্রথম । এ ভাইরাসে ওই ব্যক্তির মৃত্যুর খবর শনিবার নিশ্চিত করেছে দেশটির সরকার। মৃত ব্যক্তি চীনের হুবেই প্রদেশের রাজধানী উহান থেকে ফিলিপাইনে গিয়েছিলেন। সংবাদ মাধ্যম বিবিসি এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, চীনের বাইরে আক্রান্তদের অধিকাংশই সম্প্রতি হুবেই ভ্রমণ করেছেন অথবা সেখান থেকে ফিরেছিলেন। কয়েকটি দেশে তাদের মাধ্যমে এ ভাইরাস অন্যদের মধ্যেও ছড়িয়েছে, যারা কখনও চীনে যাননি। ফিলিপাইন সরকার জানিয়েছে, সেখানে এ পর্যন্ত দুজনের মধ্যে নতুন করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পরেছে। এদিকে মৃত ৪৪ বছর বয়সী ওই রোগী ফিলিপাইনে যাওয়ার আগেই ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হন, এমন ধারণা করা হচ্ছে বলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) জানিয়েছে। দেশটির স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে, ওই ব্যক্তি রাজধানী ম্যানিলার একটি হাসপতালে ভর্তি হওয়ার পর তার শরীরে নিউমোনিয়ায়র তীব্র সংক্রমণ ধরা পড়ে। সে ৩৮ বছর বয়সী এক চীনা নারীসহ উহান থেকে হংকং হয়ে ফিলিপাইনে যান এবং ওই নারীর শরীরেও ভাইরাসটি ধরা পড়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। দেশটিতে ডব্লিউএইচওর প্রতিনিধি রবীন্দ্র আবেসিংঘে মানুষকে শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, চীনের বাইরে এটিই প্রথম মৃত্যুর ঘটনা। যাই হোক, এটি আমাদের মনে রাখা দরকার যে এক্ষেত্রে সংক্রমণ স্থানীয়ভাবে হয়নি। এই রোগী প্রাদুর্ভাবের কেন্দ্রস্থল থেকে এসেছিলেন।

স্থানীয় অনলাইন নিউজ সাইট র‌্যাপলালের ভাষ্য অনুযায়ী, ফিলিপাইনের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ফ্রান্সিসকো ডুকেত্রেস জানিয়েছেন, ওই রোগীর অবস্থা ‘স্থিতিশীল ছিল এবং তার মধ্যে উন্নতির লক্ষণ দেখা গিয়েছিল’, কিন্তু শেষ ২৪ ঘণ্টায় তার অবস্থার অবনতি হয়। তিনি আরও বলেন, রোগটি নিয়ন্ত্রণে রাখতে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক মান অনুযায়ী যথাযথ গুরুত্ব দিয়ে মৃতদেহের ব্যবস্থাপনা করার জন্য আমরা চীনের দূতাবাসের সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছি।’ মৃতদেহটি পুড়িয়ে ফেলা হতে পারে বলেও জানান ডুকেত্রেস। তিনি জানান, ফিলিপিন্সের স্বাস্থ্য দপ্তর এখন ওই ব্যক্তির সঙ্গে একই ফ্লাইটে যারা ম্যানিলা এসেছিল তাদের খুঁজে বের করা চেষ্টা করছে, খুঁজে পেলে তাদের কোয়ারেন্টাইনে রেখে পর্যবেক্ষণ করা হবে। এছাড়া, হোটেল কর্মীসহ যারা যারা ওই যুগলের সংস্পর্শে এসেছিলেন তাদের সবাইকে কোয়ারেন্টাইনে রেখে পর্যবেক্ষণ করা হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

চীন থেকে আসা যে কোন বিদেশি ভ্রমণকারীর আগমন বন্ধ করার ঘোষণা দেয়ার কিছুক্ষণ পরই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ওই ব্যক্তির মৃত্যুর কথা জানায় ফিলিপাইন। এর আগে তারা শুধু প্রাদুর্ভাবের কেন্দ্রস্থল হুবেই থেকে আসা লোকজনের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আরওপ করেছিল।

ভারতে আক্রান্ত দ্বিতীয় রোগী শনাক্ত

ভারতে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত দ্বিতীয় ব্যক্তিকে শনাক্ত করা হয়েছে। গতকাল রোববার দেশটির দক্ষিণাঞ্চলীয় রাজ্য কেরালায় দ্বিতীয় এ ব্যক্তিকে শনাক্ত করা হয়। এর তিন দিন আগে একই রাজ্যে শনাক্ত করা হয় দেশটির প্রথম করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিকে। সংবাদ মাধ্যম বিবিসি এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, গত ৩০ জানুয়ারি কেরালার এক ব্যক্তির শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত করা হয়।

আক্রান্ত ব্যক্তি চীনের উহান বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। এরপর রোববার ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘নভেল করোনাভাইরাস আক্রান্ত দ্বিতীয় রোগী কেরালায় শনাক্ত হয়েছে। এই রোগীর চীন ভ্রমণের ইতিহাস রয়েছে। তার অবস্থা স্থিতিশীল এবং নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।’