• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই ২০২০, ৩০ আষাঢ় ১৪২৭, ২২ জিলকদ ১৪৪১

কোন আইনে

সাদা পোশাকের অফডিউটি সার্জেন্ট গাড়ির কাগজ ছিনতাই করে রেখে দেয় ৩ দিন

    সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
  • | ঢাকা , রোববার, ০৫ জানুয়ারী ২০২০

অফ ডিউটিতে থাকা (ডিউটি না থেকে) সাদা পোশাকের এক সার্জেন্টের মোটরসাইকেলের সঙ্গে সামান্য ধাক্কা লাগায় ৩ দিন পর্যন্ত প্রাইভেটকারের কাগজপত্র আটকে রাখার অভিযোগ ওঠেছে। গত ৩০ ডিসেম্বর শাহবাগ মোড়ে বারডেম হাসপাতালের সামনে এমন ঘটনা ঘটে। প্রশ্ন ওঠেছে, অফ ডিউটির কোন পুলিশ সাজেন্ট গাড়ির কাগজ এভাবে ছিনিয়ে নিয়ে আটকে রাখতে পারেন কি না? এটি রীতিমতো মাস্তানি বলে অভিমত অনেকের।

ঘটনা সম্পর্কে খোঁজ, অফ ডিউটি অবস্থায় কাটাবন পুলিশ বক্সের সাজেন্ট মুজাহিদ গত ৩০ ডিসম্বর ব্যক্তিগত মোটরসাইকেল নিয়ে যাচ্ছিলেন। শাহবাগ বারডেম হাসপাতালের সামনে একটি প্রাইভেট (ঢাকা মেট্টো ২১-৮৮৪৫) তিনি ধাক্কা লাগান। নিজের দোষে ওই প্রাইভেট কারে ধাক্কা লাগিয়ে ওই সার্জেন্ট উল্টো প্রাইভেট কারের চালকের ওপর দোষ চাপান। এক পর্যায়ে তিনি ক্ষমতার অপব্যবহার করে চালকের কাছ থেকে গাড়ির সব কাগজপত্র ছিনিয়ে নিয়ে যান। মামলা করবেন ভয় দেখিয়ে নিজের ব্যক্তিগত নম্বর ০১৩০৪২৩৩১৯৩ দিয়ে গাড়ির চালককে তার সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলে চলে যান। পরে প্রাইভেটকারের চালক ওই সার্জেন্টকে ফোন দিলে তিনি একবার গুলশানে একবার ধানমন্ডিতে যেতে বলেন। সার্জেন্টের কথায় প্রাইভেটকারের চালক গুলশান ও ধানমন্ডিতে গেলে সার্জেন্ট অন্যত্র রয়েছেন বলে জানান। এভাবে গত ৩ দিন প্রাইভেট কারের কাগজ আটকে রাখেন সার্জেন্ট মুজাহিদ।

গাড়ির চালক এবং মালিক পক্ষের অভিযোগ সার্জেন্ট মুজাহিদ নিজেই দুই গাড়ির মাঝখান দিয়ে মোটরসাইকেল চালাতে গিয়ে প্রাইভেট কারের সঙ্গে ধাক্কা লাগান। পরে তিনি নিজের দোষ স্বীকার করার পরিবর্তে পুলিশ কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে কাগজপত্র ছিনিয়ে নেন। সাদা পোশাকে থাকা অবস্থায় কোন সার্জেন্ট মামলা করার কথা বলে কাগজপত্র নিতে পারেন কি না?

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ট্র্রাফিকের ঊর্ধ্বতন সূত্র জানায়, নিয়ম অনুযায়ী সার্জেন্ট এটি পারেন না। এছাড়া ঘটনা ঘটেছে শাহবাগ এলাকায়। সেখানকার ট্রাফিক কর্মকর্তারা রয়েছেন। আর সার্জেন্ট মুজাহিদ নিউমার্কেট জোনের চাকরি করেন। তিনি প্রথম অন্যায় করেছে গাড়িতে ধাক্কা লাগিয়ে। দ্বিতীয় অন্যায় তার তিনি অন্য এলাকায় কর্মরত থাকা সত্ত্বেও নিজ এলাকার বাইরে এসে গাড়ির কাগজপত্র নিয়েছেন। এরপর ৩ দিন কাগজ আটকে চরম হয়রানি করেছেন। এটি শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

শাহবাগ জোনের ট্রাফিকের সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার মো. নুরুন্নবী জানান, ঘটনাটি তার আওয়ায় হলেও ওই সার্জেন্ট নিউমার্কেট জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনারের আওয়ায়। তার এলাকার সার্জেন্ট হলে তিনি ব্যবস্থা নিতে পারতেন। এ বিষয়ে তিনি নিউমার্কেট জোনের এসির সঙ্গে যোগাযোগ করে ঘটনা জানানোর জন্য পরামর্শ দেন।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে সার্জেন্ট মুজাহিদ বলেন, আক্কেলের সঙ্গে এটি মীমাংসা হয়েছে। তিনি খুব ভালো মানুষ। পরে জানতে পেরেছি তিনি আমার পরিচিত একজনের ঘনিষ্ট। অফ ডিউটিতে কাগজ নেয়া এবং তা আটকে রেখে হয়রানি সম্পর্কে তিনি কথা বলে রাজি হননি। তিনি মীমাংসা হয়েছে বলেই প্রসঙ্গ এড়িয়ে যান।

সার্জেন্টের এমন কর্মকাণ্ডের বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে নিউমার্কেট জোনের ট্রাফিকের সহকারী পুলিশ কমিশনার ফোন রিসিভ করেননি।