• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০১ মহররম ১৪৪২, ০৩ আশ্বিন ১৪২৭

করোনা চিকিৎসায়

রেমডেসিভির অনুমোদন দিলো যুক্তরাষ্ট্র

    সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক
  • | ঢাকা , রোববার, ০৩ মে ২০২০

করোনা চিকিৎসায় জরুরি প্রয়োজনে ‘রেমডেসিভির’ ওষুধ ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের দ্য ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট  ডোনাল্ড ট্রাম্প একথা জানান।

করোনাভাইরাসের পরীক্ষামূলক ওষুধ রেমডেসিভির নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরেই আশাব্যঞ্জক কথা শোনা গিয়েছিল। গত বুধবার করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পরীক্ষামূলক ওষুধ রেমডেসিভির নিয়ে আশার কথা বলেছিলেন মার্কিন গবেষকেরা। ওষুধটি নিয়ে একটি ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে ৩০ শতাংশ দ্রুত রোগীর সেরে ওঠার প্রমাণ পাওয়া যায়। ইনজেকশন পুশ করার মাধ?্যমে রেমডেসিভিরের কার্যকারিতা এমন কিছু রোগীর ক্ষেত্রে পরীক্ষা করা হয়, যারা ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে নাম লেখান।

বিবিসি অনলাইনের প্রতিবেদনে জানানো হয়, ট্রাম্প বলেছেন, এ ওষুধ করোনাভাইরাস চিকিৎসায় ব?্যবহার করা যাবে। ওষুধ প্রস্তুকারক গিলিয়েডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এই পদক্ষেপকে একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে বর্ণনা করেছেন। ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স বলেছেন, আগামী সোমবার হাসপাতালগুলোয় ওষুধ বিতরণ শুরু হবে।

ওষুধটি মূলত ইবোলার চিকিৎসায় তৈরি হয়। সারাবিশ্বের হাসপাতালগুলোর সঙ্গে যুক্ত একটি মার্কিন পরীক্ষায় প্রাথমিক ফলাফলে দেখা গেছে, রেমডেসিভির প্রয়োগে সেরে ওঠার সময় ১৫ দিন থেকে ১১ দিনে নেমে এসেছে। সাধারণ ফ্লুর ক্ষেত্রে ইনফ্লুয়েঞ্জার ওষুধ তামিফ্লু যে প্রভাব ফেলেছে, এটি তার অনুরূপ। যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ও আমেরিকার ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব অ্যালার্জি অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেসের পরিচালক অ্যান্টনি এস ফাউসি বলেছেন, তথ্য বলছে, রেমডেসিভির দ্রুত সেরে ওঠার ক্ষেত্রে ইতিবাচক প্রভাব পরিষ্কার।

নিউইয়র্ক পোস্টের খবরে বলা হয়, গতকাল প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ওষুধ তৈরির প্রতিষ্ঠান গিলিয়েড সায়েন্সের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ডেন ও’ডেকে নিয়ে রেমডেসিভির অনুমোদনের ঘোষণা দেন। ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল হিসেবে এই ওষুধের কার্যকারিতার প্রমাণের পর একেবারে আশঙ্কাজনক রোগীদের ক্ষেত্রে রেমডেসিভির ব্যবহৃত হচ্ছিল। তবে এফডিএর অনুমোদনের পর যুক্তরাষ্ট্রে ডাক্তাররা এখন থেকে এই ওষুধ প্রেসক্রাইব করতে পারবেন। রেমডেসিভিরের অনুমোদন দেয়ার সময় ট্রাম্প বলেন, তিনি হোয়াইট হাউসের করোনাভাইরাস টাস্কফোর্সের দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের সঙ্গে এই ওষুধ ব্যবহারের বিষয়ে কথা বলেছেন। টাস্কফোর্সের সদস্য অ্যান্টনি ফউসি ও দেবোরাহ ব্রিক্স ছাড়াও এফডিও প্রধান স্টিফেন হাহন ওষুধ অনুমোদনের বিষয়ে সম্মতি দিয়েছেন। ও’ডে বলেন, ‘হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের জন্য আমরা প্রথম পদক্ষেপ নিচ্ছি। আমরা নিশ্চিত করতে চাই যে এই রোগীদের যেন ওষুধ ঠিকমতো দেয়া হয়।

এএফপির প্রতিবেদন বলছে, গত সপ্তাহে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার প্রকাশিত এক ছোট আকারের পরীক্ষা ও ইবোলা ভাইরাসের বিরুদ্ধে রেমডেসিভির অকার্যকর বলে জানা গিয়েছিল। এছাড়া গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের উহানে উৎপত্তি হওয়া কোভিড-১৯ এর ক্ষেত্রেও রেমডেসিভিরের সীমিত প্রভাব দেখা গিয়েছিল।

নেচারের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, কোভিড-১৯ সৃষ্টির জন্য দায়ী নভেল করোনাভাইরাস সার্স-কোভ-২কে প্রভাবিত করার সম্ভাবনা হিসেবে পরীক্ষাগারে চিহ্নিত প্রথম ওষুধগুলোর মধ্যে একটি ছিল রেমডেসিভির।