• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শনিবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ৯ রবিউস সানি ১৪৪১

প্রমাণ পেলে সম্রাটও গ্রেফতার হবেন

কাদের

    সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
  • | ঢাকা , বুধবার, ০২ অক্টোবর ২০১৯

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, গ্রেফতার করার মতো তথ্য-প্রমাণ হাতে পেলে দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল হোসেন চৌধুরী স¤্রাটসহ অভিযোগ ওঠা অন্য সব নেতাদেরও গ্রেফতার করা হবে। গতকার সচিবালয়ে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন।

অপরাধীদের তালিকার তথ্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে : ইসমাইল হোসেন চৌধুরী স¤্রাটকে শুদ্ধি অভিযানে ছাড় দেয়া হচ্ছে কি-না, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, কোন অপরাধীই ছাড় পাবেন না। তথ্য-প্রমাণ পেলেই গ্রেফতার করা হবে। এ শুদ্ধি অভিযান অপরাধীদের বিরুদ্ধে। বিশেষ কোন দল বা ব্যক্তির বিরুদ্ধে এই অভিযান নয়। দলে কিংবা দলের বাইরে দুর্নীতি, টেন্ডারবাজি, মাদক ব্যবসায়ী, সন্ত্রাসী, পরিবহন খাতে চাঁদাবাজির মতো অপরাধের সঙ্গে জড়িত অপরাধীরা গোয়েন্দা নজরদারিতে রয়েছেন। প্রশাসনের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তারাও এই নজরদারির বাইরে নন। টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া পর্যন্ত এই অভিযান চলবে। তথ্যপ্রমাণ হাতে পেলে পর্যায়ক্রমে সব অপরাধীকে শাস্তি পেতে হবে। গ্রেফতারের বিষয় সময় হলেই জানতে পারবেন। অপরাধীদের কোনো তালিকা তৈরি করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী অভিযানে নেমেছে কি-না, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তথ্য রয়েছে। তবে অপরাধীদের বিষয়ে তথ্য হাতে নিয়েই অভিযান চালানো হচ্ছে। এদের বিরুদ্ধে কী ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হবে, তা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তের ওপরে ছেড়ে দেন তিনি।

অভিযানে দেশবাসী সন্তুষ্ট : অভিযান প্রসঙ্গে বিএনপি নেতাদের নানা সমালোচনার জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালীন অনেক নেতাই দুর্নীতি করে বিপুল সম্পদের মালিক হয়েছেন। নানা সন্ত্রাসী কর্মকা-ে তারা জড়িত থেকেছেন। কারও বিরুদ্ধে শাস্তির নজির বিএনপি দেখাতে পারবে না। একমাত্র আওয়ামী লীগই নিজ দলের অপরাধীদের বিরুদ্ধে এমন পদক্ষেপ নিতে পেরেছে। এ অভিযানে দেশবাসী সন্তুষ্ট। এতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাবমূর্তি বেড়েছে। আর তা বিএনপি সহ্য করতে পারছে না বলেই ভালো কাজের সমালোচনা করছে। মন্ত্রী-এমপিদের হিসাব প্রকাশের বিষয়ে বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের দাবি প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, তিনি নিজের সম্পত্তির হিসাব আগে দিন। কী কারণে তার বাড়ি চলে গেল? মৃত ব্যক্তির নামে ভুয়া কাগজ আদালতে জমা দিয়ে বাড়ির মালিকানা দাবি করেছেন। প্রমাণ হয়েছে তিনি দুর্নীতি করেছেন। দুর্নীতির অভিযোগে তিনি সাজাও ভোগ করেছেন। আসলে তার কত সম্পদ আছে তাও জানা দরকার। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, সরকারের মন্ত্রীরা প্রতিবছরই সম্পদের হিসাব প্রধানমন্ত্রীর কাছে দেন। ট্যাক্স দিয়ে থাকেন, সে সব হিসাব দেয়া হয়। কোন এমপি বা মন্ত্রী যদি অবৈধ সম্পদ অর্জন করে আর যদি ট্যাক্স ফাঁকি দিয়ে থাকেন তবে তা তুলে ধরতে গণমাধ্যমকর্মীদের প্রতি তিনি আহ্বান জানান।

অনুপ্রবেশকারীদের বিষয়টিও খতিয়ে দেখা হচ্ছে : আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশকারীরা অপকর্ম করে দলের ভাবমূর্তি ক্ষুণœ করছে কি-না, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে বলেছেন, তিনি অপরাধ করছে আওয়ামী লীগ পরিচয়ে। তারপরেও যারা অন্য দল থেকে আওয়ামী লীগ পরিচয়ে অপরাধ করছে, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। অপরাধ যত বড় শাস্তি আরও বড় হবে।