• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ৪ শ্রাবন ১৪২৫, ১৪ জিলকদ ১৪৪০

পোশাক শ্রমিকদের বেতন বাড়াতে একমত পর্যালোচনা কমিটি

    সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
  • | ঢাকা , রোববার, ১৩ জানুয়ারী ২০১৯

পোশাক শ্রমিকদের মূল বেতন বাড়াতে একমত হয়েছেন বেতন কাঠামো পর্যালোচনা কমিটি। গতকাল শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব ও কমিটির আহ্বায়ক আফরোজা খানের সভাপতিত্বে এক জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় কারখানার মালিক, শ্রমিক ও সরকার পক্ষীয় এ বৈঠকে শ্রমিক ও মালিকদের শনাক্ত করা সমস্যাগুলো নিরসনে আলোচনা হলেও কিভাবে সমাধান করা হবে তার সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে মূল বেতন বাড়ানোর বিষয়ে সব পক্ষই একমত হয়েছেন।

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি আমিনুল হক আমিন। তিনি বলেন, জরুরি বৈঠকে শ্রমিকদের পর্যালোচনা কমিটির ওপর আস্থা রাখার আহ্বান জানিয়েছেন কমিটির আহ্বায়ক আফরোজা খান। বৈঠকে সমস্যাগুলো দ্রুত সমাধানের বিষয়ে সবাই একমত হয়েছেন। শ্রমিকদের অন্যান্য সুযোগ বাড়াতে গিয়ে মূল বেতন কমে গেছে। তাই মূল বেতন বাড়ানোর বিষয়ে সবাই একমত হয়েছেন। তবে কত টাকা বাড়বে সে বিষয়ে কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। এছাড়া মজুরি কাঠামোর ৭টা গ্রেডের মধ্যে ৩, ৪ ও ৫ নম্বর গ্রেডে গ্রস বেতন আরও বাড়ানোর বিষয়ে কথা হয়েছে। তিনি আরও জানান, আজ কমিটির নির্ধারিত বৈঠক আছে। সেখানে একটা ভালো ফল পাওয়া যাবে।

সভায় শ্রমিকদের ‘পর্যালোচনা কমিটি’র ওপর আস্থা রাখার আহ্বান জানিয়েছেন কমিটির আহ্বায়ক আফরোজা খান। তিনি বলেছেন, যেহেতু মজুরি কাঠামোর মূল সমস্যা চিহ্নিত করা হয়েছে, সেহেতু খুব দ্রুত এর সমাধান করা হবে। আপনারা (পোশাক শ্রমিক) সরকারের প্রতি আস্থা রাখুন। কমিটির প্রতি আস্থা রাখুন। প্রত্যেকে কাজে যোগ দিন। পোশাক শ্রমিকদের মজুরি কাঠামো পর্যালোচনার জন্য গঠিত ১২ সদস্যের কমিটির দ্বিতীয় সভা এটি। এর আগে ১০ জানুয়ারি পোশাক শ্রমিকদের বেতন বৈষম্য নিরসনে পর্যালোচনা কমিটির প্রথম সভা হয়।

বৈঠকে বিজিএমইএ’র সাবেক সভাপতি ও সংসদ সদস্য সালাম মুর্শেদী, বাণিজ্য সচিব মফিজুল ইসলাম, বিজিএমইএ’র সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান, এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি সফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন, জাতীয় গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি আমিরুল হক আমিনসহ কমিটির ১২ সদস্য উপস্থিত ছিলেন। বেতন কাঠামোতে বৈষম্য দূর করাসহ বিভিন্ন দাবিতে গত ৬ জানুয়ারি থেকে আন্দোলন করছেন পোশাক শ্রমিকরা। এর পরিপ্রেক্ষিতে ১২ সদস্যের পোশাক শ্রমিকদের মজুরি কাঠামো পর্যালোচনার জন্য কমিটি গঠন করা হয়।