• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ০৭ জুলাই ২০২০, ২৩ আষাঢ় ১৪২৭, ১৫ জিলকদ ১৪৪১

পাটকল বন্ধের সিদ্ধান্ত বাতিলের দাবিতে শ্রমিক পরিবারের প্রতিবাদী অবস্থান

    সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
  • | ঢাকা , মঙ্গলবার, ৩০ জুন ২০২০

রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধের সরকারি সিদ্ধান্ত বাতিলের দাবিতে উত্তাল হয়ে উঠেছে খুলনার শিল্পাঞ্চল। খুলনা অঞ্চলের রাষ্ট্রায়ত্ত ৯টি পাটকলের শ্রমিকরা নিজ নিজ মিলের সামনে গতকাল সকাল ৯টা থেকে ১১টা পর্যন্ত দুই ঘণ্টা পরিবার নিয়ে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছেন। এ সময় শ্রমিকদের সন্তানদের বিভিন্ন পোস্টার হাতে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। পোস্টারগুলোতে ‘প্রয়োজনে রক্ত দেব, পাটকল বন্ধ হতে দেব না’, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, ওরা আমাদের পাটকল বন্ধ করতে চায়’, ‘বঙ্গবন্ধুর জাতীয়করণ জুট মিল বন্ধ করা যাবে না’ ইত্যাদি লেখা সম্বলিত বিভিন্ন স্লোগান দেখা যায়। গত রোববার এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী দেশের ২৬টি রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলের প্রায় পঁচিশ হাজার স্থায়ী শ্রমিককে স্বেচ্ছা অবসরে (গোল্ডেন হ্যান্ডশেক) পাঠানোর সিদ্ধান্তের কথা জানান।

এ বিষয়ে খুলনার সিটি মেয়র আলহাজ তালুকদার আবদুল খালেক বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে বেতন কাঠামো রক্ষা করে ব্যাংক অ্যাকাউন্টের মাধ্যমেই শ্রমিকদের বেতনের টাকা এককালীন পরিশোধ করা হবে। অব্যাহত লোকশানে থাকা পাটকল রক্ষায় সরকারের সিদ্ধান্ত সময়পযোগী বলে তিনি উল্লেখ করেন। খুলনার প্লাটিনাম জুট মিলের শ্রমিক নেতা খলিলুর রহমান বলেন, একইভাবে মঙ্গলবার ও বুধবার বেলা ২টা থেকে মিলগেটে আমরা অবস্থান কর্মসূচি পালন করবো। এরপরও সরকার সিদ্ধান্ত না বদলালে বুধবার থেকে মিলগেটে আমরণ অনশন শুরু করবো।

বাংলাদেশ রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল সিবিএ ননসিবিএ সংগ্রাম পরিষদ এই কর্মসূচির ডাক দেয়। কর্মসূচি অনুযায়ী আগামী ১ জুলাই থেকে আমরণ অনশন পালনের ঘোষণা রয়েছে। সংগ্রাম পরিষদ আহ্বায়ক সরদার আবদুল হামিদ বলেন, আমলাতন্ত্রের চক্রান্তে ২৫ জুন আন্তঃমন্ত্রণালয়ের বৈঠকে সরকারি ২৬টি পাটকল বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এই ভ্রান্ত সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানাতে আমাদের এই কর্মসূচি। বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গতকাল দুপুরে রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল সিবিএ ননসিবিএ সংগ্রাম পরিষদের সঙ্গে বৈঠক করবেন। আর সেই কারণে খুলনার শ্রমিক নেতারা খুলনা ছেড়ে ঢাকার পথে রওনা হয়েছেন। এই বৈঠক ফলপ্রসূ হলে তারা কর্মসূচি প্রত্যাহার নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করবেন।

এ বিষয়ে খুলনা জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের মিডিয়া সেলের প্রধান সহকারী কমিশনার দেবাশীষ বসাক জানান, গতকাল দুপুরে খুলনা সার্কিট হাউজের সম্মেলন কক্ষে রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল অবসায়নের আসন্ন সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতে শ্রমিকদের ন্যায্য পাওনা পরিশোধসহ সার্বিক পরিস্থতি সম্পর্কে প্রেস কনফারেন্স অনুষ্ঠিত হবে। ওই কনফারেন্সে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন খুলনা সিটি করপোরেশনের মেয়র তালুকদার আবদুল খালেক। সভাপতিত্ব করবেন জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ হেলাল হোসেন।

বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশনের (বিজেএমসি) অধীনে থাকা ২৬টি পাটকলের মধ্যে মনোয়ার জুট মিল বন্ধ রয়েছে। এসব কারখানায় ২৪ হাজার ৮৬৬ জন স্থায়ী শ্রমিকের বাইরে তালিকাভুক্ত ও দৈনিক মজুরিভিত্তিক শ্রমিক আছে প্রায় ২৬ হাজার। বেসরকারি খাতের পাটকলগুলো লাভ দেখাতে পারলেও বিজেএমসির আওতাধীন মিলগুলো বছরের পর বছর লোকসান করে যাচ্ছে। এর পেছনে অব্যবস্থাপনা, অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে।