• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯, ৬ ভাদ্র ১৪২৫, ২০ জিলহজ ১৪৪০

পবিত্র ঈদুল আজহা কাল

সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

| ঢাকা , রোববার, ১১ আগস্ট ২০১৯

image

আগামীকাল মুসলিম বিশ্বের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব ঈদুল আজহা। হিজরি বর্ষপঞ্জি অনুসারে কাল জিলহজ মাসের ১০ তারিখ। এদিন দেশের প্রতিটি মুসলমান ঈদুল আজহা উদযাপন করবেন। ঈদুল ফিতরের মতো ঈদুল আজহায় ঠিক আগের দিন চাঁদ দেখা নিয়ে অনিশ্চয়তা নেই। ১০ দিন আগেই ঠিক হয়ে যায় ঈদের দিনক্ষণ। আর তাই সব আগে থেকেই ঠিক করা থাকে। কোরবানির পশু কেনার কাজ শেষ করেছেন অনেকে।

মুসলমানদের দুটি প্রধান ধর্মীয় উৎসবের মধ্যে ঈদুল আজহা একাধিক কারণে বৈশিষ্ট্যমন্ডিত। এর মধ্যে অন্যতম হলো হালাল পশু কোরবানি এবং সামর্থ্যবানদের জন্য পবিত্র হজব্রত পালন করা। অন্যবারের মতো এবারও বাংলাদেশ থেকে একলাখেরও বেশি ধর্মপ্রাণ মুসলমান পবিত্র হজব্রত পালনের জন্য সৌদি আরবে গেছেন। পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণীতে দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। বিএনপি, জাতীয় পার্টিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতারা এ উপলক্ষে দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। ঈদের দিন বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষ ও আমন্ত্রিত অতিথিদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন।

ঈদুল আজহার গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস রয়েছে। প্রায় পাঁচ হাজার বছর আগে হজরত ইব্রাহিম (আ.) মহান আল্লাহ তায়ালার নির্দেশে নিজের প্রাণপ্রিয় সন্তান হজরত ইসমাইলকে কোরবানি করতে উদ্যত হয়েছিলেন, যা সর্বকালের মানব ইতিহাসে ত্যাগের সর্বোচ্চ নিদর্শন। কিন্তু আল্লাহর অশেষ কুদরত ও রহমতে ইসমাইলের পরিবর্তে কোরবানি হলো একটি দুম্বা। এর মাধ্যমে হজরত ইব্রাহিম (আ.) ত্যাগের চরম পরীক্ষায় আল্লাহর দরবারে উত্তীর্ণ হয়ে যান। তারপর থেকে বিশ্বের মুসলমানদের জন্য জিলহজ মাসের ১০ তারিখে পবিত্র ঈদুল আজহার দিনে হালাল পশু কোরবানি করার রেওয়াজ চালু হয়। ইসলামী শরিয়তে সামর্থ্যবানদের জন্য পশু কোরবানি করা ওয়াজিব। পশু কোরবানির কারণে ঈদুল আজহা বাংলাদেশে ব্যাপকভাবে কোরবানির ঈদ নামে পরিচিত। বস্তুত ঈদুল আজহা শুধু পশু কোরবানির আনুষ্ঠানিকতাই নয়, এ ঈদসমগ্র বিশ্বে মুসলমানদের ত্যাগ, আত্মসমর্পণ ও আত্মোপলদ্ধির শিক্ষা দেয়। ঈদুল আজহার চেতনা মহান আল্লাহর ইচ্ছার কাছে নিজেকে সঁপে দেয়ার শিক্ষাও দেয়।

রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশের প্রতিটি জনপদে আগামীকাল পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপনের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। ঈদ উপলক্ষে গত শুক্রবার থেকে সরকারি ছুটি শুরু হয়েছে। সংবাদপত্র অফিসগুলোতেও তিন দিনের ছুটি শুরু হয়েছে আজ থেকে। এ কারণে আগামীকাল থেকে পরবর্তী তিন দিন দেশের কোন সংবাদপত্র প্রকাশিত হবে না। ঈদ উপলক্ষে সংবাদপত্রগুলো বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশ করেছে। টেলিভিশন চ্যানেলগুলোতে ঈদ উপলক্ষে রয়েছে নানা আনন্দ-আয়োজন।

ঈদুল আজহা উপলক্ষে আজ সন্ধ্যার মধ্যেই রাজধানী ঢাকাসহ দেশের প্রতিটি মহানগরীর প্রধান প্রধান সড়ক ও সড়কদ্বীপগুলো জাতীয় পতাকা ও ঈদ মোবারক খচিত পতাকায় সজ্জিত করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। সারাদেশে যথাযোগ্য মর্যাদা ও আনন্দের মধ্য দিয়ে ঈদ উৎসব উদযাপনের জন্য সরকারি ও বেসরকারি ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, বিদেশস্থ বাংলাদেশ মিশনসমূহে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, সড়ক সজ্জিত করা, আলোকসজ্জার ব্যবস্থা ও বিনোদনমূলক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে।

দেশের বিভিন্ন সরকারি হাসপাতাল, কারাগার, শিশু সদন, ছোটমনি নিবাস, সামাজিক প্রতিবন্ধি কেন্দ্র, সরকারি আশ্রয়কেন্দ্র, সেফ হোমস, ভবঘুরে কল্যাণ কেন্দ্র ও দুস্থ কল্যাণ কেন্দ্রে ঈদের দিন উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হবে। ঈদের দিন সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের বিনা টিকিটে ঢাকা সিটি করপোরশনের আওতাধীন সকল শিশুপার্কে ও সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে বিনা টিকেটে ঢাকা জাদুঘরে প্রবেশ এবং প্রদর্শনের ব্যবস্থা করা হবে। জাতীয় পর্যায়ের সঙ্গে সমন্বয় রেখে স্থানীয়পর্যায়ে জেলা প্রশাসন, উপজেলা প্রশাসন ও সিটি করপোরেশনসমূহে ঈদ উদযাপনের প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। তাছাড়া বিদেশে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসসমূহে সরকারি কর্মসূচির আলোকে ঈদুল আজহা উদযাপনের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।