• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ৮ রবিউস সানি ১৪৪১

দ্রুত ক্ষমতা ছেড়ে নির্বাচন দিন

ড. কামাল

    সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
  • | ঢাকা , সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯

ঐক্য ফ্রন্টের শীর্ষনেতা ড. কামাল হোসেন বলেছেন, আমরা একসময় আওয়ামী লীগে ছিলাম। এই দলের নাম নিয়ে এখন যা করা হচ্ছে, তাতে বঙ্গবন্ধুকে অসম্মান করা হচ্ছে, সৈয়দ তাজউদ্দিনকে অসম্মান করা হচ্ছে। আপনি (শেখ হাসিনা) দ্রুত ক্ষমতা ছেড়ে নির্বাচন দিন। গতকাল জাতীয় প্রেসক্লাবে বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার বিচারের দাবিতে ‘জমায়েত ও নাগরিক শোক র‌্যালি’ শীর্ষক সভায় এসব কথা বলেন তিনি। সভায় ফ্রন্টনেতা জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের সভাপতি আ স ম আবদুর রব, সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, উপদেষ্টাম-লীর সদস্য এসএম আকরাম, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহুমুদ টুকু, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি অধ্যাপক আবু সাঈদ ও অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরীসহ অন্যরা বক্তব্য রাখেন। সভা শেষে একটি শোক র‌্যালি বের করে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। তবে পুলিশি বাধায় র‌্যালিটি বেশিদূর এগোতে পারেনি।

ড. কামাল বলেন, সন্ত্রাসকে আজ প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেয়া হয়েছে। আবরার কী অন্যায় করেছিল? আবরারের সঙ্গে যেটা করা হয়েছে, সেটা সংবিধানের ওপর আঘাত করা, সংবিধানকে অমান্য করা, সংবিধানকে ধ্বংস করা অপরাধ। মৌলিক আইন ভঙ্গ করা মানে সেখানে যে মৌলিক অধিকার আছে, সেটাকে অমান্য করা। এর চেয়ে গুরুতর অপরাধ আর হয় না। এই অপরাধ এরা (সরকার) রীতিমতো করে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, আবরারকে যারা হত্যা করেছে তারা আপনার (শেখ হাসিনা) অনুসারী। তারা আবরারকে পশুর মত মারল। এরপরও আপনি কিভাবে ক্ষমতায় থাকেন। মনে করবেন না, কিছু পুলিশ, কিছু বন্দুক দিয়ে এই দেশের মানুষকে তাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত করতে পারবেন। আমাদের কণ্ঠকে স্তব্ধ করার কোন ক্ষমতা নেই আপনার, পারবেনও না। আপনি নেত্রী না। আপনি নিজে মিথ্যার শিকার হচ্ছেন। মিথ্যা দিয়ে আপনি কতদিন ভুল পথে চলবেন? সভ্যভাবে আপনি সরে যান। সুষ্ঠু নির্বাচনের ব্যবস্থা করেন। অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য একটা গ্রহণযোগ্য নির্বাচন কমিশিন গঠন করেন। দেশে যেমন আইনের শাসন নেই, তেমনি সরকারও নেই। বর্তমান সরকার জুয়াড়ি ও দুর্নীতিবাজদের সরকার।

মাহমুদুর রহমান বলেন, এই সরকার মানুষকে বিভ্রান্ত করছে। ছাত্র রাজনীতি বন্ধ নয়, সব ছাত্রসংগঠনকে সমান অধিকার দিতে হবে। এ সময় আগামী ১৮ তারিখ জাতীয় শোক সভা করা হবেও ঘোষণা দেন তিনি। মিছিলে বাধা দেয়ার প্রতিবাদে আগামী ২২ অক্টোবর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জাতীয় ঐক্য ফ্রন্ট মহাসমাবেশ করবে বলে জানান জেএসডি সভাপতি আ স ম আব্দুর রব।