• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০১৯, ১০ বৈশাখ ১৪২৫, ১৬ শাবান ১৪৪০

ইডেন কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ হত্যায় জড়িত একাধিক ব্যক্তি

আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে, দুই গৃহকর্মীসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা

    সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
  • | ঢাকা , মঙ্গলবার, ১২ ফেব্রুয়ারী ২০১৯

ইডেন কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ মাহফুজা চৌধুরী পারভীনকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক ফরেনসিক বিভাগের প্রধান সোহেল মাহমুদ। গতকাল সকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে মাহফুজা চৌধুরীর ময়নাতদন্ত সম্পন্ন করা হয়। ডা. সোহেল মাহমুদ জানান, অধ্যক্ষ মাহফুজা চৌধুরীকে তার মুখ চেপে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে। তার ঠোঁট, মুখ ও আঙুলে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। এছাড়া তার হাতের একটি আঙুল ভাঙা ছিল। মাহফুজা চৌধুরীকে একজনের পক্ষে হত্যা করা সম্ভব নয়। ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে শ্বাসরোধ করে তাকে হত্যা করা হয়েছে। এই হত্যাকান্ডের ঘটনায় একাধিক ব্যক্তি এর সঙ্গে জড়িত থাকতে পারে। এদিকে, অধ্যক্ষ মাহফুজা চৌধুরীকে হত্যার ঘটনায় নিউমার্কেট থানায় একটি মামলা হয়েছে। গতকাল সকাল ১১টার দিকে নিহতের স্বামী ইসমত কাদির গামা বাদী হয়ে মামলাটি করেন। মামলায় দুই গৃহকর্মীসহ তিনজনকে আসামি করা হয়েছে।

ডিএমপির রমনা বিভাগের উপ-কমিশনার মারুফ হোসেন সরদার জানান, এই হত্যার ঘটনায় তার দুই গৃহকর্মী স্বপ্না ও রেশমাকে গ্রেফতারের জন্য বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালানো হয়েছে। তদন্তের স্বার্থে এখনই তৃতীয় ব্যক্তির নাম প্রকাশ করা হয়নি। ওই ব্যক্তি স্বপ্না ও রেশমাকে ওই বাসায় কাজে দিয়েছিলেন। তিনি বলেন, আমাদের সন্দেহ ওই দুই গৃহকর্মীর দিকেই। ওই ঘটনার পর বিকেল ৫টার দিকে তারা পালিয়ে যায়। এরপরই তাদের ধরার জন্য বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়েছি। গত রোববার সারারাতই অভিযান চলে। আশা করছি দ্রুত তাদের গ্রেফতার করা সম্ভব হবে। পুলিশ ছাড়াও র‌্যাব ঘটনার ছায়া তদন্ত করছে বলে জানান তিনি। পলাতক দুই গৃহকর্মী স্বপ্না ও রেশমার বয়স আনুমানিক ৩৬ ও ৩০ বছর। স্বপ্নার বাড়ি ফরিদপুরের বোয়ালমারী ও রেশমার বাড়ি কিশোরগঞ্জ জেলায়। তদন্ত-সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, এ দুজনকে ধরতে পুলিশের পাশাপাশি অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও তৎপরতা চালাচ্ছে।

উল্লেখ্য, গত রোববার রাতে রাজধানীর এলিফ্যান্ট রোডের নিজ বাসায় খুন হন মাহফুজা চৌধুরী। এলিফ্যান্ট রোডের সুকন্যা টাওয়ারের একটি ফ্ল্যাটে থাকতেন ইডেন কলেজের সাবেক এই অধ্যক্ষ। পুলিশ ধারণা করছে, তার বাসার দুই গৃহকর্মী এই হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িত থাকতে পারে। ঘটনার পর থেকে তাদের খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। স্বজনরা জানান, গত মাসেই স্বপ্না ও রেশমা নামে দুই গৃহকর্মী এই বাসায় কাজে যোগ দেয়। জানা গেছে, মাহফুজা চৌধুরীর স্বামী ইসমত কাদির গামা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান। মাহফুজা চৌধুরী ২০০৯ থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত ইডেন মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ ছিলেন। সুকন্যা টাওয়ারের ১৫ ও ১৬ তলায় দুটি ফ্ল্যাটে (ডুপ্লেক্স) এই দম্পতির বহুদিনের সংসার। ওপরের অংশটিতে তারা থাকেন। নিচতলায় রান্নাঘর, গৃহকর্মীদের আবাস। তাদের দুই ছেলের একজন সেনাবাহিনীর চিকিৎসক, আরেকজন ব্যাংকে চাকরি করেন বলে জানান স্বজনরা। তবে তারা এখানে থাকেন না। বাড়িতে তিনজন গৃহকর্মী ছিলেন।