• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

রবিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৮, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪০

উত্তাল মার্চ

আন্দোলন সংগ্রামে মুখরিত জনপদ

    সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
  • | ঢাকা , মঙ্গলবার, ১৩ মার্চ ২০১৮

image

আজ ১৩ মার্চ। একাত্তরের এই দিনে বাংলাদেশ ছিল পাকিস্তানের কাছ থেকে স্বাধীনতা লাভের আকাক্সক্ষায় আন্দোলন সংগ্রামে মুখর জনপদ। বাংলার সার্বিক মুক্তি সংগ্রামের প্রস্তুতি নেয়ার জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে বাংলাদেশের গ্রামে-গঞ্জে-শহরে-বন্দরে গঠিত হয় সংগ্রাম কমিটি। সংগ্রাম কমিটি বাংলার প্রতিটি গৃহকে এককটি দুর্জয় দুর্গ হিসেবে গড়ে তুলতে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করে। এর পাশাপাশি সারাদেশে স্বার্থকভাবে চলছে অসহযোগ আন্দোলন। দেওয়ানি-ফৌজদারি আদালতসহ সমস্ত সরকারি ও আধা সরকারি অফিস এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ। প্রতিটি গৃহে ও ভবনের শীর্ষে উড়ছে বাংলাদেশের লাল-সবুজের পতাকা আর কালো পতাকা। অবিরাম চলছে সভা-শোকসভা।

আজ সামরিক শাসন কর্তৃপক্ষ ১৫নং সামরিক আইন জারি করে আগামী ১৫ মার্চ সকাল ১০টার মধ্যে প্রতিরক্ষা বিভাগের বেসামরিক কর্মচারীদের কাজে যোগদান নির্দেশ দেন। এতে নির্দিষ্ট সমযের মধ্যে কাজে যোগদানে ব্যর্থ হলে সংশ্লিষ্টদের চাকরিচ্যুত ও পলাতক ঘোষণা করে সামরিক আদালতে সর্বোচ্চ ১০ বছর পর্যন্ত সশ্রম কারাদন্ড দেয়া হবে বলে ঘোষণা করা হয়। এই নির্দেশ জারির কড়া সমালোচনা করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এক বিবৃতিতে বলেন, আমরা যখন খোদ সামরিক শাসন প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছি তখন নতুন করে এ ধরনের সামরিক নির্দেশ জারি করা জণসাধারণকে উসকানিরই শামিল। বঙ্গবন্ধু বলেন, সামরিক কর্তৃপক্ষের আজ এই সত্যটি উপলব্ধি করা উচিত, জনগণ আজ তাদের ইস্পাতদৃঢ় সংকল্পে ঐক্যবদ্ধ। সামরিক সরকারের এ ধরনের ভীতি প্রদর্শনের মুখে তারা কিছুতেই নতি স্বীকার করবে না।

সকালে রমনা পার্কে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের উদ্যোগে জনসভা এবং শীতলক্ষ্যায় অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের উদ্যোগে দীর্ঘ নৌ-মিছিল বের করা হয়। চট্টগ্রামে বেগম উমরতুল ফজলের সভানেত্রীত্বে অনুষ্ঠিত মহিলাদের এক সমাবেশে বাংলাদেশের জনগণের পরিপূর্ণ মুক্তি অর্জন না হওয়া পর্যন্ত বিলাসদ্রব্য বর্জন ও কালোব্যাজ ধারণের জন্য নারী-পুরুষ সবার প্রতি আহ্বান জানানো হয়। বিশিষ্ট শিল্পী জয়নুল আবেদিন ও সাবেক জাতীয় পরিষদ সদস্য আবদুল হাকিম পাকিস্তান সরকার প্রদত্ত খেথাব ও পদক বর্জন করেন। ঢাকাস্থ জাতিসংঘ ও পশ্চিম জার্মান দূতাবাসের কর্মচারী ও এদের পরিবারবর্গসহ ইতালি, ফ্রান্স, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও কানাডার ২৬৫ জন নাগরিক বিশেষ বিমানে বাংলাদেশ ত্যাগ করেন। ভৈরবে এক জনসভায় ন্যাপ প্রধান মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী বলেন, বর্তমানে পূর্ব বাংলা আসলে স্বাধীন। আমরা একটি পূর্ণাঙ্গ সরকার গঠনের অপেক্ষায় আছি। তিনি খাজনা প্রদান বন্ধ রাখার জন্য শেখ মুজিব যে নির্দেশ দিয়েছেন তা মেনে চলার জন্য আহ্বান জানান।