• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শনিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৯, ৯ ভাদ্র ১৪২৫, ২২ জিলহজ ১৪৪০

পৃথক চার স্থানে

গৃহবধূ থেকে স্কুলছাত্রী ধর্ষণের শিকার

সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক

| ঢাকা , মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০১৯

ধর্ষণ এখন দেশে সবচেয়ে আলোচিত ঘটনা। বিভিন্ন জেলায় একের পর এক গৃহবধূ থেকে শিক্ষার্থী এ ধর্ষণের শিকার হচ্ছেন।

ধর্ষণের ঘটনায় সবচেয়ে আলোচিত এখন নোয়াখালী জেলা। এ জেলার সোনাইমুড়িতে নতুন করে এক গৃহবধূ গনধর্ষণের শিকার হয়েছেন। এছাড়া নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে এক গার্মেন্ট কর্মীকে গণধর্ষণ এবং বাগেরহাট ও নওগাঁয় দুই স্কুলছাত্রী ধর্ষণের শিকার হয়েছে। প্রতিনিধিরা এ খবর জানান :

নোয়াখালী : সোনাইমুড়ির নাটেশ্বর গ্রাম থেকে দু’সন্তানের জননীকে অপহরণ করে দু’দিন আটক রেখে গণধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতারকৃত দুই আসামির একজনকে ৩ দিন ও আরেকজনকে ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন নোয়াখালীর জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত। মামলার এজাহারভুক্ত অন্য দুই আসামিকে পুলিশ এখনও গ্রেফতার করতে পারেনি।

সোনাইমুড়ি থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মুহাম্মদ ইমদাদুল হক জানান, বারগাঁও ইউনিয়নের আবদুল বাকি বাকেরের (৬৫) স্বামী পরিত্যক্ত মেয়ে ভিকটিম (৩৫) দুই সন্তনের জননী ৯ এপ্রিল সন্ধ্যা থেকে নিখোঁজ থাকেন। অনেক খোজাখুঁজির পর না পেয়ে আবদুল বাকি সোনাইমুড়ি থানায় ১০ এপ্রিল সাধারণ ডায়েরি করেন। এদিন রাত সাড়ে ১১টায় বারগাঁও ইউনিয়নের দৌলতপুর গ্রামের ইব্রাহিম মাস্টারের বাড়ির পুকুরের পানি থেকে অজ্ঞান অবস্থায় ভিকটিমকে এলাকাবাসী উদ্ধার করে পুলিশকে খবর দেয়া হয়। পুলিশ ভিকটিমকে উদ্ধার করে সোনাইমুড়ি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেয়ার পর তার জ্ঞান ফিরে এলে জানান, এলাকার আমিনুল ইসলাম মিন্টু (৩৩), নিজাম উদ্দিন ওরফে বাচ্চু (৪২), আলাউদ্দিন (৩৫), নুরনবী প্রকাশ তারেক (২৮) তাকে অপহরণ করে জনৈক প্রবাসীর পরিত্যক্ত বাড়িতে নিয়ে আটক করে এবং দু’দিন ধরে পালাক্রমে ধর্ষণ করে অজ্ঞান অবস্থায় এখানে ফেলে যায়। এ ব্যাপারে ভিকটিমের পিতা আবদুল বাকি বাকের বাদী হয়ে ১১ এপ্রিল সোনাইমুড়ি থানার অপহরণ করে গণধর্ষণ, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৭/৯(৩) ২০০০ ধারায় মামলা দায়ের করেন। মামলা নম্বর ৯, তারিখ ১১-৪-১৯ইং।

পুলিশ ধর্ষক আমিনুল ইসলাম মিন্টু ও নিজাম উদ্দিন বাচ্চুকে গ্রেফতার করে বৃহস্পতিবার আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করেন এবং প্রত্যেকের ৭ দিনের রিমান্ডের আবেদন করলে সোমবার আদালতে দীর্ঘ শুনানির পর জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সাউদিন নাহির আদালত ধর্ষক আমিনুল ইসলাম মিন্টুর ৩ দিন ও নিজাম উদ্দিন বাচ্চুর ২ দিন রিমান্ড মঞ্জুর করেন। মামলার অন্য দুই আসামি আলাউদ্দিন (৩০) ও নুরনবী তারেককে পুলিশ গ্রেফতার করতে পারেনি।

এদিকে ধর্ষকদের ফাঁসির দাবি করে সোমবার নোয়াখালী শহরে নারী কল্যাণ সমিতি মানববন্ধন করে।

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) : নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে বৈশাখী মেলা শেষে বাসায় ফেরার পথে এক গার্মেন্ট কর্মী (১৫) গণধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় তার সঙ্গে থাকা তার বান্ধবী দৌড়ে পালিয়ে নিজেকে রক্ষা করে। খবর পেয়ে পুলিশ অভিযান চালিয়ে তিন ধর্ষককে আটক করেছে। রোববার রাতে রূপসী প্রধান বাড়ি সংলগ্ন বালুর মাঠে এ ঘটনা ঘটে।

রূপগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক নাজিম উদ্দিন আটককৃত ধর্ষকদের জবানবন্দির বরাত দিয়ে জানান, রোববার রাতে ওই দুই গার্মেন্ট কর্মী রূপসী এলাকা থেকে বৈশাখী মেলা শেষ করে বরপা বাগানবাড়ি এলাকার ভাড়া বাসায় ফিরছিল। পথিমধ্যে আগে থেকেই ওৎপেতে থাকা ৬ বখাটে তাদের পথ রোধ করে তুলে নেয়। পরে একজনকে রূপসী প্রধান বাড়ি সংলগ্ন বালুর মাঠে নিয়ে ৬ বখাটে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। আরেক গার্মেন্ট কর্মীকে ধর্ষণের চেষ্টা করলে সে দৌড়ে পার্শ্ববর্তী মসজিদের ছাদে গিয়ে নিজেকে রক্ষা করে। এদিকে খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ জামালপুরের মেলান্দ টুপকারচর এলাকার আনিসুর রহমান, রূপসী প্রধান বাড়ির আনোয়ার হোসেনের ছেলে আকাশ মিয়া ও একই এলাকার ঈমান আলীর ছেলে ইসমাঈলকে আটক করেছে। বাকি তিনকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে জানান তিনি।

বাগেরহাট : বাগেরহাট সদর উপজেলার বারুইপাড়া এলাকায় সপ্তম শ্রেণীর এক শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ধর্ষণের অভিযোগে নির্যাতিতার ফুপা বাদী হয়ে রোববার রাতে বাগেরহাট মডেল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করেন। মামলায় ধর্ষণের অভিযোগে নিজাম উদ্দিন শেখ (৫২) এবং সহযোগিতা ও মারধরের অভিযোগে তার স্ত্রী আনোয়ারা বেগম ও ছেলে সুমন শেখকে (২৯) আসামি করা হয়েছে। আসামিরা সদর উপজেলার বারুইপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। অভিযোগের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, শনিবার বিকেলে নিজাম উদ্দিন ওই মেয়েকে বাড়িতে একা পেয়ে ঘরে প্রবেশ করে ধর্ষণ করে। পরে তার চিৎকারে এলাকার লোকজন ছুটে এলে ধর্ষক নিজাম পালিয়ে যায়। রোববার সকালে মেয়েটির আত্মীয়স্বজন নিজামের কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে সে, তার ছেলে ও স্ত্রী তাদের মারধর করে। নির্যাতিতার ফুপু বলেন, পিতৃহীন আমার ভাইজিকে একা পেয়ে ধর্ষণ করেছে নিজাম। ভাইজির মা থাকেন ঢাকায়। দাদির কাছে থেকে সে পড়াশোনা করছিল। পরে আমরা বিষয়টি জানতে চাইলে আমাদেরও মারধর করে তারা। আমরা এ ঘটনার যথাযথ বিচার চাই। আসামিরা যাতে পুলিশকে ম্যানেজ করতে না পারে, এদিকে সবার খেয়াল রাখতে হবে।

বাগেরহাট মডেল থানার ওসি মো. মাহতাব উদ্দিন বলেন, স্কুল শিক্ষার্থী ধর্ষণের ঘটনায় থানায় মামলা রেকর্ড হয়েছে। সোমবার সদর হাসপাতালে তার ডাক্তারি পরীক্ষা করাসহ তদন্ত পূর্বক আসামিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের চেষ্টা চলছে।

নওগাঁ : নওগাঁর ধামইরহাটে নবম শ্রেণীপড়ুয়া ক্ষুদ্র জাতিসত্তার এক কিশোরীকে (১৪) অপহরণের পর ধর্ষণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই ছাত্রীর পরিবারই এ অভিযোগ করেছে। এ ঘটনায় পুলিশ সুজন হাঁসদাকে (২২) গ্রেফতার করেছে।

ধামইরহাট থানার পুলিশ ও পরিবারের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ওই কিশোরীর বাড়ি ধামইরহাট উপজেলার আলমপুর ইউনিয়নের কাজলগ্রামে। সে উপজেলার পূর্ব নন্দনপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে নবম শ্রেণীর ছাত্রী। গত রোববার বিদ্যালয়ের বর্ষবরণের শোভাযাত্রায় অংশ নিতে সে বাড়ি থেকে বের হয়। অনুষ্ঠান শেষে সে বান্ধবীদের সঙ্গে আত্রাই নদের ধারে উপজেলার শিমুলতলীতে সামাজিক বনায়ন এলাকায় বেড়াতে যায়। বনায়ন এলাকায় একপর্যায়ে তাকে একা পেয়ে সুজন হাঁসদা নানা ভয়-ভীতির মুখে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশায় করে সাপাহার উপজেলার গোপালপুর গ্রামে নিজ বাড়িতে নিয়ে যায়। খবর পেয়ে ধামইরহাট থানার পুলিশ রোববার রাত আড়াইটার দিকে সুজন হাঁসদার বাড়ি থেকে ওই কিশোরীকে উদ্ধার করে। এ সময় পুলিশ সুুজন হাঁসদাকে গ্রেফতার করে।

ধামইরহাট থানার ওসি জাকিরুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা হয়েছে। গতকাল নওগাঁ সদর হাসপাতালে কিশোরীটির ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। গ্রেফতার সুজনকে আদালতের মাধ্যমে নওগাঁ জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।