• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৭ আশ্বিন ১৪২৬, ২২ মহররম ১৪৪১

জন্মস্থান ময়মনসিংহে মিতালী মুখার্জি

সংবাদ :
  • বিনোদন প্রতিবেদক

| ঢাকা , সোমবার, ১১ ফেব্রুয়ারী ২০১৯

image

দীর্ঘ আটাশ বছর পর বাংলাদেশের গর্ব ভারতের গজল সম্রাজ্ঞী মিতালী মুখার্জি তার নিজ জন্মস্থান ময়মনসিংহে গেলেন। গতকাল তিনি তার বড় ভাই দীলিপকে সঙ্গে নিয়ে বেশ কয়েকদিনের জন্য ঘুরতে ময়মনসিংহ গেলেন। কিছুদিন আগে পুলিশ সপ্তাহের একটি শো’তে অংশ নিতে ঢাকায় আসেন মিতালী মুখার্জি। তার বড় ভাই দীলিপও এই সময় দেশের বাইরে থেকে ঢাকায় আসেন। তাই দুই ভাই বোন মিলে পরিকল্পনা করেই ময়মনসিংহে গেলেন। সর্বশেষ ১৯৯১ সালে মিতালী মুখার্জি ময়মনসিংহ গিয়েছিলেন। মিতালী মুখার্জির বাবা অমূল্য মুখার্জি ১৯৭৭ সালে ডিআইজি’ হিসেবে অবসর গ্রহণ করেন। ১৯৯৫ সালে তার বাবা ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। মারা যাবার আগে ক্যান্সারের শেষ পর্যায়ে যখন ছিলেন তখন মুম্বাইতে মিতালী মুখার্জির কাছে ছিলেন। সেই সময়ে মিতালীর বাবার শেষ ইচ্ছে ছিলো ময়মনসিংহে একবার হলেও ঘুরে যাবার। কিন্তু মিতালী দুঃখ প্রকাশ করে জানান, বাবার শেষ ইচ্ছেটা তিনি পূরণ করতে পারেননি। তার আগেই তার বাবা মারা যান। বাবার সেই শেষ ইচ্ছেটার কথা মিতালী মুখার্জিকে ভীষণ তাড়িয়ে বেড়ায়। বাবার শেষ ইচ্ছেটা কিছুটা পূরণ করতেই বাবার বাড়ি, নিজের জন্মস্থান ঘুরতে গেছেন মিতালী মুখার্জি। মুঠোফোনে মিতালী মুখার্জি বলেন,‘ আমার বড় ভাই দীলিপ দা’র সঙ্গে ময়মনসিংহে ঘুরতে আসতে পারবো, এটা আমি কল্পনাও করতে পারিনি। ঈশ্বরের অনেক কৃপা ছিল বলেই এটা সম্ভব হয়েছে। দীর্ঘদিন পর ময়মনসিংহে এসে কী যে ভালো লাগছে তা সত্যিই একবাক্যে বোঝানো সম্ভভ নয়। ফেলে আসা দিনগুলোর কথা খুব মনে পড়ছে। তাই বিদ্যাময়ী স্কুল, মুমিনুন্নেসা কলেজ’সহ আরও অনেক জায়গায় ঘুরে বেড়াচ্ছি। দাদার ছোটবেলার বন্ধু দুলাল শর্মাও আমাদের সঙ্গ দিচ্ছেন। আমি জানিনা কতটা দিন এখানে থাকব। আমি প্রতি মুহূর্তেই ভীষণ আবেগাপ্লুত হয়ে পড়ছি।’ মিতালী মুখার্জির মা কল্যাণী মুখার্জি খুব ভালো গান গাইতেন। সেইসঙ্গে তার বাবা অমূল্য মুখার্জি বেশ ভালো বাঁশি বাজাতেন। ময়মনসিংহের ও মিথুন দে’র কাছে দীর্ঘদিন উচ্চাঙ্গ সঙ্গীতে তালিম নেন। মিতালী’র কণ্ঠে প্রথম মৌলিক গান ছিল রফিক-উজ-জামানের লেখা ও অনুপ ভট্টাচার্য্যের সুরে ‘সুখ পাখিরে পিঞ্জিরা তোর’।