• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শুক্রবার, ০২ অক্টোবর ২০২০, ১৪ সফর ১৪৪২, ১৭ আশ্বিন ১৪২৭

৫ জেলায় করোনা শনাক্ত ৪১

| ঢাকা , সোমবার, ১৮ মে ২০২০

ফেনীতে একদিনেই ৩১

প্রতিনিধি, ফেনী

ফেনীতে গত বুধবার করোনা আক্রান্ত ছিল ১৯ জন। তবে তিনদিনের ব্যবধানে ফেনীর ছয় উপজেলা মিলিয়ে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা হয়েছে ৬১। এর মধ্যে গত শনিবার সন্ধ্যা ও রাতে দুদফা ৩১ জন শনাক্ত হয়েছে। ৬১ জনের মধ্যে জেলার সদর উপজেলায় ২২ জন, পরশুরামে ৪ জন, ছাগলনাইয়ায় ১৩ জন, দাগনভূঞায় ৯ জন, সোনাগাজী উপজেলায় ৬ জন ও ফুলগাজী উপজেলায় ৪ আক্রান্ত হয়েছেন। এছাড়া পাশ্ববর্তী চট্টগ্রামের মিরসরাই উপজেলা, কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম ও নোয়াখালীর সেনবাগের ৩ বাসিন্দা ফেনী জেনারেল হাসপাতালে নমুনা পরীক্ষা করে আক্রান্ত হয়েছে। ইতোমধ্যে ৮ জন সুস্থ হয়েছেন। এদিকে উদ্ভুত পরিস্থিতিতে ফেনীতে পরীক্ষা ল্যাবের দাবি জানিয়েছেন সচেতন মহল।

বাগেরহাটে আরও ২

প্রতিনিধি, বাগেরহাট

এবার বাগেরহাট জেলা সদরে এক নারী (৩৫) ও শরণখোলা উপজেলায় এক ব্যবসায়ীর শরীরে করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। এরা দু’জনই ঢাকা থেকে নিজ এলাকায় এসেছে। বিষয়টি জানাজানি হলে উপজেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগ শরণখোলা উপজেলার রায়েন্দা বাজার ও বাগেরহাট সদর উপজেলার রনবিজয়পুর গ্রামের ওই নারীর বাড়িসহ ৭ বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে। এছাড়া ও দু’জনের সংস্পর্শে আসা মোট ১০ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। বাগেরহাট সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. প্রদীপ কুমার বকসী গত রোববার সকালে জানান, ঢাকা থেকে নিজ বাড়ি বাগেরহাট সদর উপজেলার রনবিজয়পুর গ্রামে আসা এক নারীর শরীরে করোনা পজিটিভ শনাক্ত হওয়ায় শনিবার বিকেলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও থানার ওসিসহ আমরা ওই বাড়িতে যাই। এবং স্থানীয় ষাট গম্ভুজ ইউপি চেয়ারম্যান শেখ আক্তারুজ্জামান বাচ্চুর সহযোগিতায় ওই বাড়ি ও পার্শ্ববত্বরী ৭টি বাড়ি লকডাউন করে দেয়া হয়।

গোপালগঞ্জে নতুন ৪

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক, গোপালগঞ্জ

গোপালগঞ্জে নতুন করে ৪ জনের দেহে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৮১ জনে। আক্রান্ত ৪১ জন সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছেন। বাকি ৩৯ জন গোপালগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল, কাশিয়ানী, মুকসুদপুর, কোটালীপাড়া ও টুঙ্গিপাড়া উপজেলা হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় ১, কোটালীপাড়ায় ১ জন ও মুকসুদপুর উপজেলায় ২ জন নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন । গতকাল রোববার সকালে গোপালগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. নিয়াজ মোহাম্মদ এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি আরও জানান, আক্রান্তদের মধ্যে মুকসুদপুর উপজেলায় ১ চিকিৎসক ১৮ পুলিশ সদস্যসহ ২২ জন, কাশিয়ানী উপজেলায় ১৯ জন, গোপালগঞ্জ সদর উপজেলায় ৩ চিকিৎসক ১৭ জন, টুঙ্গিপাড়া উপজেলায় ১৭ জন ও কোটালীপাড়া উপজেলায় ১ চিকিৎসক ও নার্সসহ ৬ জন রয়েছেন।

সদরপুরে ২

প্রতিনিধি, সদরপুর (ফরিদপুর)

ফরিদপুরে আরো দুইজনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। ফরিদপুর মেডিকেল কলেজে স্থাপিত করোনা শনাক্তকরণ ল্যাব সুত্রে এ তথ্য জানা গেছে। শনাক্ত দুইজনের বাড়ি সদরপুর উপজেলার সদর ইউনিয়নের শ্যামপুর গ্রামে। এদের একজনের বয়স ৪২ অপরজনের বয়স ৬০। এরা সম্পর্কে মা, ছেলে। আক্রান্ত ব্যাক্তিদের বাড়ির অন্য ১২ সদস্যের নমুনা সংগ্রহ করে ফরিদপুর ল্যাবে পাঠানো হয়েছে বলে জানান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা।

সীতাকুণ্ডে ২

প্রতিনিধি, সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম)

সীতাকুণ্ডে নতুন করে আরও দুইজন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এদের মধ্যে একজনের বাড়ি বাড়বকুণ্ডে। অপরজন সীতাকুণ্ড পৌরসদরের মৌলভী এলাকার বাসিন্দা। শনিবার রাতে প্রাপ্ত ফলাফলে এ তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে। এ নিয়ে সীতাকুণ্ডে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ২৫ জনে। এদিকে উপজেলার সলিমপুর এবং পৌরসদর নিয়ে উৎকণ্ঠায় রয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। দুইটিতে ৮ জন এবং ৯ জন করে নারী-পুরুষ আক্রান্ত হয়েছেন। সীতাকুণ্ড উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা ডা. নুর উদ্দীন রাশেদ বলেন, সীতাকুণ্ডে করোনাভাইরাসের উপদ্রব ক্রমশ ভয়াবহ হয়ে উঠেছে। প্রায় প্রতিদিনই নমুনা পরীক্ষায় এখানে দুই বা ততোধিক রোগী আক্রান্তের খবর মিলছে। আবার উপজেলার ৯টি ইউনিয়ন এবং পৌরসভার মধ্যে সবচেয়ে বেশি রোগী মিলেছে পৌরসদর ও সলিমপুরে। এ দুইটিতে প্রতিদিনই কেউনা কেউ আক্রান্ত হচ্ছেন।