• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

রবিবার, ১৬ জুন ২০১৯, ২ আষাঢ় ১৪২৫, ১২ শাওয়াল ১৪৪০

সীতাকুন্ডুে ৯ দিনে ৩ খুন : আতঙ্ক

সংবাদ :
  • প্রতিনিধি, সীতাকুন্ডু (চট্টগ্রাম)

| ঢাকা , শনিবার, ১২ জানুয়ারী ২০১৯

চট্টগ্রামের সীতাকুন্ডুে একের পর এক খুনের ঘটনা ঘটে চলেছে। গত ৯ দিনে এখানে তিনটি চাঞ্চল্যকর হত্যাকান্ড ঘটেছে। এর মধ্যে একটি ঘটনায় খুনিকে এলাকাবাসী হাতে নাতে ধরে পুলিশে দিয়েছে। এছাড়া অন্য দুটি ঘটনায় কোন আসামিকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। নতুন করে একটি খুন হলে চাপা পড়ে যাচ্ছে আগেরটি। এভাবে ধরা ছোয়ার বাইরে থেকে যাচ্ছে খুনিরা। এর পাশাপাশি আশঙ্কাজনক হারে বেড়েছে ডাকাতি। প্রতিদিন কোথাও না কোথাও ডাকাতি সংগঠিত হচ্ছে। খুন এবং ডাকাতির ঘটনা বৃদ্ধি পাওয়া জনমনে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত সংসদ নির্বাচনের পর থেকেই সীতাকুন্ডুে হঠাৎ-ই আইনশৃঙ্খলার চরম অবনতি হয়ে খুন-খারাপি বেড়ে গেছে। ৩১ ডিসেম্বর থেকে ৮ জানুয়ারি পর্যন্ত ৯দিনে এখানে সংঘটিত হয়েছে তিনটি মর্মান্তিক হত্যাকান্ড। প্রত্যেকটি ঘটনায় মামলা দায়ের হয়েছে। কিন্তু আসামিরা থেকে যাচ্ছে ধরা ছোঁয়ার বাইরে। খুনের সঙ্গে বেড়েছে ডাকাতির ঘটনাও।

সংশ্লিষ্টরা জানান, জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ঠিক পরদিন সীতাকুন্ডু পৌরসদরের ৪নং ওয়ার্ড ভোলাগিরি এলাকায় দিনদুপুরে প্রকাশ্যে খুন হন ওই ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি দাউদ সম্রাট (৩০)। সে ঘটনায় নিহতের মা জেবুন্নেছা বেগম বাদী হয়ে শহীদুল ইসলাম প্রকাশ ডাকাত শহীদসহ সুনির্দিষ্ট ১৫ ও অজ্ঞাত ১০-১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। প্রধান আসামি ডাকাত শহীদ স্থানীয় চন্দ্রনাথ পাহাড়সহ আশপাশে নিয়মিত ডাকাতির সঙ্গে জড়িত। কিন্তু তার বিরুদ্ধে খুন, ধর্ষণ, ডাকাতিসহ ১২টি মামলা রয়েছে। কিন্তু ঘটনার ১০ দিনেও পুলিশ তাকে গ্রেফতার করতে পারেনি। পারেনি তার বাহিনীর কাউকেও ধরতে। ডাকাত শহীদের পেছনে প্রভাবশালী মহলের শেল্টার থাকায় সে গ্রেফতার হচ্ছে না বলে সম্র্রাটের মায়ের অভিযোগ। এতে চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন তিনি।

সম্র্রাট খুনের কয়েকদিন পর ২ জানুয়ারি সন্ধ্যায় উপজেলার কুমিরা হিঙ্গুলীপাড়ায় শামীনা আক্তার নামক এক সৎ মায়ের হাতে নির্মমভাবে খুন হয় নিহাদ হোসেন রাজু (৬) নামক শিশু সন্তান। কিন্তু এলাকাবাসী ঘটনা টের পেয়ে সৎ মা শামীনাকে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে তুলে দেয়। পরে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্ধী প্রদান করে হত্যাকারী শামীমা। নিহত শিশু রাজু ওই এলাকার মহরম আলী দুলালের ছেলে। সর্বশেষ সোমবার মধ্যরাতে বাড়বকুন্ডু উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন রেলওয়ে কলোনিতে নিজ ঘরে নির্মমভাবে খুন হয় রেলওয়ের অবসরপ্রাপ্ত কর্মী সরোয়ার হোসেনের ছেলে মাদরাসা শিক্ষক রিয়াদ হোসেন ইমরান (২৮)। নিহতের বড় ভাই ফরহাদ ও বোন শামীমার অভিযোগ, ডাকাতি করতে এসে বাধা পেয়ে তারা রিয়াদকে কুপিয়ে ফেলে যায়। পরে সে মারা যায়। এ ঘটনায় নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মামলা দায়ের হয়েছে। এতে অজ্ঞাত ১০-১২ জনকে আসামি করা হয়েছে। এদিকে রোববার ও সোমবার পৌরসদর এবং মুরাদপুর এলাকার তিন বাড়িতে হানা দেয় ডাকাত দল। সোমবার গভীর রাতে মুরাদপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ রহমতনগর ঢালিপাড়া মৃত নুরুল আলমের বাড়িতে ডাকাত দল হানা দেয়।

সীতাকুন্ডুে একের পর এক খুন এবং ডাকাতির ঘটনায় এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভ ও আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক বাসিন্দা এসব বিষয়ে পুলিশের ভূমিকা সন্তোষজনক নয় মন্তব্য করে খুন-খারাবি বন্ধ করে এলাকায় শান্তি-শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সীতাকুন্ডু থানার ওসি মো. দেলওয়ার হোসেন বলেন, আমরা সব ঘটনাকেই গুরুত্বের সঙ্গে দেখছি। আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। এলাকায় খুন-ডাকাতি বেড়ে যাবার ঘটনায় সব পুলিশ সদস্যকে সতর্ক করাসহ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে।