• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শুক্রবার, ২৪ মে ২০১৯, ১০ জৈষ্ঠ্য ১৪২৫, ১৮ রমজান ১৪৪০

শেরপুরে ভুট্টা চাষে কৃষকের মুখে হাসি

সংবাদ :
  • সাইফুল বারী ডাবলু, শেরপুর (বগুড়া)

| ঢাকা , শনিবার, ১৬ মার্চ ২০১৯

image

শেরপুর (বগুড়া) : আদিগন্ত ভুট্টা ক্ষেত -সংবাদ

বগুড়ার শেরপুর শহরের ধুনটমোড় থেকে ৪ কিলোমিটার পুর্ব দিকে শালফা গ্রাম। এই গ্রামের মধ্য দিয়ে ধুনট ও সিরাজগঞ্জ জেলার কাজিপুর উপজেলা যাওয়ার রাস্তা। রাস্তার দুপাশে তাকালে জমিতে দেখা যায় শুধু ভুট্টাগাছ আর ভুট্টাগাছ। এই দৃশ্য এখানকার সকলের নজর কাড়ে। ভুট্টার চাষে শালফা গ্রামের কৃষকের মুখে এনে দিয়েছে হাসি। অন্যান্য ফসলের তুলনায় ভুট্টা চাষে কম পরিশ্রম ও ফলন বেশী হওয়ায় তারা আশায় বুক বাঁধতে শুরু করেছে।

উপজেলা কৃষি অধিদফতর সুত্রে জানা যায়, এ বছর শেরপুর উপজেলায় ভুট্টা চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ২ হাজার ৫’শ ৮০ হেক্টর জমি। সেই লক্ষমাত্রাকে ছাড়িয়ে অর্জন হয়েছে ২ হাজার ৬’শ ২০ হেক্টর জমি। যার বেশীর ভাগ চাষ হয়েছে খানপুর ইউনিয়নের শালফা গ্রামে। শালফা গ্রামের কৃষক আকিম উদ্দিন, মোজাম্মেল হক, শাহ আলমসহ অনেকেই জানান, কম পরিশ্রম, কম ব্যয় ও ফলন ভাল হওয়ায় আমরা ভুট্টা চাষে বেশি আগ্রহী। তাছাড়া অন্যান্য ফসলের চেয়ে ভুট্টা চাষে লাভ অনেক বেশি।

জাতীয় বঙ্গবন্ধু পদক প্রাপ্ত ভুট্টা চাষি মকবুল হোসেন বলেন শেরপুর উপজেলার জমি ভুট্টা চাষের জন্য খুবই উপযোগী। প্রায় দুইযুগ যাবৎ এই এলাকার চাষিরা ভুট্টা চাষ করে লাভবান হচ্ছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ শারমিন আক্তার বলেন, উপজেলার শালফা গ্রাম অনেকটা নিচু হওয়ায় সেখানে অল্পতেই বন্যা দেখা দেয়। সে কারণে ওই এলাকার জমিতে পলি পরে। তাই শালফা গ্রামে ভুট্টার ফলন ভাল হয়। তাছাড়া বন্যার কারনে অন্য কোন ফসল চাষ করতে পারে না তারা। তাই এক মৌসুম ধান, শরিষা আবাদ করে আর বাকি সময়টাতে তারা ভুট্টা চাষ করে আলোর মুখ দেখছে।