• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

রবিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১০ রবিউস সানি ১৪৪১

শরণখোলায় জলাতঙ্ক মুক্তে টিকাদান শুরু

সংবাদ :
  • প্রতিনিধি, শরণখোলা (বাগেরহাট)

| ঢাকা , সোমবার, ০৮ এপ্রিল ২০১৯

বাগেরহাটের শরণখোলায় জাতীয় জলাতঙ্ক নির্মূল কর্মসূচি শুরু হয়েছে। সম্প্রতি শরণখোলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ সংক্রান্ত এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সুফিয়ান রুস্তমের সভাপতিত্ত্বে বক্তব্য রাখেন, ইউপি চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান মিলন, উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. নজরুল ইসলাম, শিক্ষা কর্মকর্তা আশরাফুল ইসলাম, আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. দিবাকর বসাক, ভ্যাটোরিনারী সার্জন ডা. আলাউদ্দিন মাসুদ, প্রকল্পের কর্মকর্তা কে.এম তাহমিদ উল ইসলাম, আব্দুল্লাহ আল রোমান ও ফিরোজ হোসেন।

এ সময় তারা বলেন, জলাতঙ্ক একটি ভয়ংকর মরণব্যাধি। এ রোগে মৃত্যুর হার শতভাগ। যা শতকরা ৯৫ থেকে ৯৯ ভাগ কুকুরের মাধ্যমে ছড়ায়। বছরে বাংলাদেশে ২ থেকে ৩ লাখ মানুষ কুকুরের কামড়ের শিকার হয়। যার বেশির ভাগই শিশু। এ কারণে সরকার ২০২২ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে জলাতঙ্ক মুক্ত করার জন্য কাজ করে যাচ্ছে। জলাতঙ্ক মুক্ত বাংলাদেশ গড়ার জন্য ২০১০ সাল থেকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তর, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগ ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখা যৌথভাবে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে।

প্রকল্পের জরিপ অনুযায়ী বাংলাদেশে ১২ থেকে ১৫ লাখ কুকুর রয়েছে। এ কর্মসূচির আওতায় ইতোমধ্যে সারাদেশে প্রায় ৮ লক্ষ ১৫ হাজার কুকুরকে জলাতঙ্ক প্রতিষেধক টিকা দেয়া হয়েছে। ২০১০ সালের পূর্বে বাংলাদেশে গড়ে প্রায় ২০০০ লোক এ রোগে প্রাণ হারাত। যার সংখ্যা ক্রমেই কমে আসছে। আগামী ৭ থেকে ১১ই এপ্রিল পর্যন্ত ৬ দিনব্যাপী সুন্দরবন সংলগ্ন শরণখোলা উপজেলা ৪ ইউনিয়নে একযোগে কুকুরকে প্রতিষেধক টিকা দেয়া হবে। প্রতি দলে ৫ জন করে মোট ১২টি দল শরণখোলা উপজেলায় এক কর্মসূচি বাস্তবায়ন করবে।