• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

সোমবার, ৩০ মার্চ ২০২০, ১৬ চৈত্র ১৪২৬, ৩০ রজব সানি ১৪৪১

রাজশাহীতে সাড়ে ৭ হাজার অবৈধ পাম্প : ওয়াসার অভিযান

সংবাদ :
  • জেলা বার্তা পরিবেশক, রাজশাহী

| ঢাকা , শনিবার, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯

রাজশাহী নগরীতে অনুমোদনবিহীন প্রায় সাড়ে ৭ হাজার গভীর নলকূপ রয়েছে। পানি উত্তোলন ও সরবরাহে শৃঙ্খলা ফেরাতে সেই সব পাম্পের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে অভিযানে নেমেছে রাজশাহী ওয়াসা। সরকারি-বেসরকারি অফিস ও বহুতল ভবনে পানি উত্তোলন চলছে এসব নলকূপ থেকে। এগুলো চিহ্নিত করা হচ্ছে। যেগুলো চিহ্নিত হয়েছে, তাদের নোটিশ পাঠানো শুরু হয়েছে। গত বুধবার রাজশাহীর ওয়াসার পক্ষ থেকে রাজশাহী মহানগরীর ২৬নং ওয়ার্ডে পদ্মা আবাসিক ও জামালপুর এলাকায় অভিযান চালিয়েছে রাজশাহী ওয়াসা। রাজশাহী ওয়াসার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মির্জা ইমাম উদ্দিনের নের্তৃত্বে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানের সময় বিলখেলাপী গ্রাহক ও পানির অবৈধ সংযোগ গ্রহণকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

বুধবারের অভিযানে ৬টি অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয় এবং ‘পানি সরবরাহ ও পয়:নিষ্কাশন কর্তৃপক্ষ আইন ১৯৯৬ এর অধীনে অনিয়মের অভিযোগে ২টি মামলা দায়ের করা হয়। অভিযানে ১৯ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

রাজশাহী ওয়াসা সূত্রে জানা গেছে, নগরীর যে কোনো স্থানে ব্যক্তি উদ্যোগে গভীর নলকূপ (সাব-মার্সিবল পাম্প) বসাতে হলে অনুমোদন নেয়া বাধ্যতামূলক। এজন্য নির্ধারিত ফি দিতে হয়। কিন্তু রাজশাহী নগরীতে অনুমোদন নেয়া গভীর নলকূপ আছে মাত্র ১৪১টি। বাকিগুলো অনুমোদন ছাড়াই বসানো হয়েছে। এতে ওয়াসা বিপুল পরিমাণ রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

অনুমোদনহীন গভীর নলকূপের বিরুদ্ধে অভিযানের মাধ্যমে তাদেরকে অনুমোদন প্রদান ও প্রদেয় ফি আদায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করা হবে। এতে ভূগর্ভস্থ পানি উত্তোলনে শৃঙ্খলা ফিরে আসবে। সম্ভব হবে নগরীতে মাটির নিচ থেকে কী পরিমাণ পানি উত্তোলন হচ্ছে, তার হিসাব নিরূপণ।

রাজশাহী ওয়াসার তথ্য মতে, আইন অনুযায়ী তাদের সরবরাহ করা পানি ব্যবহার করলে উপভোক্তাকে নির্দিষ্ট পরিমাণ বিল দিতে হয়। আবার কেউ এই পানি ব্যবহার না করে নিজ উদ্যোগে গভীর নলকূপ বসিয়ে পানি তুললেও টাকা দিতে হবে। দেড় থেকে চার ইঞ্চি ব্যাসের পাইপের জন্য আবাসিক ও সামাজিক প্রতিষ্ঠানে এককালীন ১০ হাজার, বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে ১৫ হাজার এবং শিল্প খাতে ২০ হাজার টাকা ফি দিতে হবে। প্রতিবছর নবায়নের ক্ষেত্রেও একই পরিমাণ ফি দিতে হবে।

অন্যদিকে, ৫ থেকে ৬ ইঞ্চি ব্যাসের পাইপের ক্ষেত্রে আবাসিক ও সামাজিক প্রতিষ্ঠানের ৪০ হাজার, বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের জন্য ৬০ হাজার ও শিল্প খাতের জন্য ৮০ হাজার টাকা এককালীন অনুমোদন ফি লাগবে। একই পরিমাণ টাকা দিতে হবে বার্ষিক নবায়ন ফি হিসেবেও। ৮ ইঞ্চি ব্যাসের পাইপের জন্য আবাসিক ও সামাজিক প্রতিষ্ঠানের জন্য ৬০ হাজার, বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে ৯০ হাজার ও শিল্প খাতে ১ লাখ ২০ হাজার টাকা দিতে হবে অনুমোদন ফি হিসেবে। ব্যবহারকারীকে বার্ষিক নবায়ন ফি সমপরিমাণ টাকা পরিশোধ করতে হবে। ২০১৭ সালের ১ জানুয়ারি থেকে রাজশাহী ওয়াসার এই আইন চালু আছে।

১৯৯৬ সালের পানি সরবরাহ আইনের ২৪ ধারা অনুযায়ী, অনুমোদন ছাড়া কেউ ওয়াসার অধিক্ষেত্রের ভেতরে সুপেয় পানি সংগ্রহ, পাম্পিং, সঞ্চয় বা সরবরাহ করার অথবা পয়ঃসংগ্রহ, পাম্পিং ও পরিশোধনের জন্য কোনো অবকাঠামো নির্মাণ বা সংরক্ষণ করতে পারবে না। আগেই বলা হয়েছে, প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, নগরীতে অবৈধ গভীর নলকূপ প্রায় সাড়ে ৭ হাজার, আর অনুমোদন আছে মাত্র ১৪১টির।