• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শুক্রবার, ১৫ জুন ২০১৮, ১ আষাঢ় জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২৯ রমজান ১৪৩৯

মেয়াদোত্তীর্ণ মংলা পৌরসভার নির্বাচন দাবি

সংবাদ :
  • প্রতিনিধি, বাগেরহাট

| ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১৪ জুন ২০১৮

বাগেরহাটের মংলা পৌরসভার নির্বাচনের মেয়াদ পূর্তির পর তিন বছর অতিবাহিত হলেও নির্বাচন হচ্ছে না। মংলা পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো. জুলফিকার আলী ৫ বছরের জন্য নির্বাচিত হয়ে টানা ৮ বছর ধরে মেয়রের দায়িত্ব পালন করছেন। দীর্ঘদিন অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করায় তার বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। কিন্তু স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে অভিযোগ দিয়েও এর প্রতিকার পাচ্ছেন না স্থানীয়রা। এছাড়া মোংলা পৌরসভার উন্নয়ন কর্মকা-ও থমকে গেছে। এদিকে নির্ধারিত মেয়াদ শেষ হওয়ার প্রায় তিন বছর শেষ হলেও আইনি জটিলতার কারণে এ পৌরসভায় নির্বাচন না হওয়ায় সাধারণ পৌরবাসীর মধ্যে দেখা দিয়েছে নানা ধরনের হতাশা আর ক্ষোভ। সাধারণ পৌরবাসী অবিলম্বে আইনি জটিলতা নিরসন করে নির্বাচন ঘোষণার দাবি জানিয়েছে। অভিযোগ উঠেছে, মেয়র নিজের ক্ষমতা টিকিয়ে রাখতে নির্বাচন কমিশনে প্রভাব বিস্তার ও তদ্বিরের মাধ্যমে আইনি জটিলতা সৃষ্টি করে নির্বাচন ঘোষণায় বিলম্বিত করছে। আর এ ক্ষেত্রে বর্তমান ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালী কতিপয় নেতার নেপথ্য সহযোগিতায় তিনি বহাল তবিয়্যতে রয়েছেন। অবশ্য পৌর বিএনপি নেতা ও মেয়র জুলফিকার আলী এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ২০১১ সালের মংলা পৌরসভা নির্বাচনে পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জুলফিকার আলী মেয়র পদে নির্বাচিত হন। ২০১৫ সালে মেয়াদ শেষে পুনরায় পৌর নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়। কিন্তু সীমানা সংক্রান্ত জটিলতায় উচ্চ আদালতে দায়ের হওয়া মামলার প্রেক্ষিতে এ পৌরসভায় যথাসময়ে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়নি। এরপর তিন বছর অতিবাহিত হলেও নির্বাচন আর হয়নি। ফলে মেয়র ও কাউন্সিলররা টানা প্রায় ৮ বছর ধরে একই পদে রয়ে গেছেন।