• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯, ২৯ আশ্বিন ১৪২৬, ১৪ সফর ১৪৪১

বালু ফেলে জমি দখলোৎসব প্রতিবাদীকে মারধর মামলা

বাদ যাচ্ছে না সরকারি জমি-নদী

সংবাদ :
  • প্রতিনিধি, সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ)

| ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১০ অক্টোবর ২০১৯

image

সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) : বালু ফেলে ভরাট করা কৃষকের জমিতে জন্ম নেয়া কাশফুল -সংবাদ

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে নিরীহ কৃষকদের জমি না কিনেই অন্যায়ভাবে জোরপূর্বক বালু ভরাট করার অভিযোগ উঠেছে আল মোস্তফা নামের একটি কোম্পানির বিরুদ্ধে। শুধু কৃষকদের জমিই না অন্যায়ভাবে সরকারি জমি এমনকি নদী পর্যন্ত দখলের উৎসবে মেতে উঠেছে কোম্পানিটি। জোরপূর্বক বালু ভরাটের প্রতিবাদ করতে গেলে কৃষকদের মারধর ও মিথ্যা মামলার ভয় দেখানো হয়। কৃষকরা নিজেদের ও জমি রক্ষায় প্রশাসনের দৃষ্টি কামনা করছেন।

গত রোববার সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, উপজেলার পিরোজপুর ইউপির আষাঢ়িয়ারচর এলাকায় মারীখালী নদী ঘেঁষা কৃষকদের ফসলি জমিতে গত কয়েকদিন যাবত অন্যায়ভাবে জোর করে বালু ভরাট করছে আল- রেমাস্তফা গ্রুপ নামের একটি কোম্পানির পক্ষে আষাঢ়িয়ারচর গ্রামের মোক্তার হোসেন, মনির হোসেন ও সারোয়ারসহ তাদের সহযোগীরা। শুধু কৃষকদের জমিই নয় নদীর তীরবর্তী সরকারি খাস জমি এমনকি নদীর বেশকিছু অংশও বালু ভরাট করে দখল করে নিয়েছে কোম্পানির লোকজন। স্থানীয় জমির মালিক ও কৃষকরা তাদের জমি অন্যায়ভাবে ভরাটে বাঁধা দিতে গেলে আল-মোস্তফা গ্রুপের লোকজন তাদের মারধর ও মিথ্যা মামলার হুমকি দিচ্ছে। আষাঢ়িয়ারচর গ্রামের জমির মালিক ও কৃষক মতিউর রহমান, নুর হোসেন, রুহুল আমিন ও আলাউদ্দিন মুন্সিসহ আরও অনেকে বলেন, আমাদের চাষাবাদকৃত ফসলি জমিতে কোম্পানির দালাল ও সন্ত্রাসীরা অন্যায়ভাবে দিনে ও রাতে জোর করে বালু ভরাট করে ফেলেছে। আমরা বাঁধা দিলে তারা মামলা হামলার হুমকি দেয়।

একই গ্রামের কৃষাণী কামিনা বেগম, নুরুননেছা ও কামরুনেছা বলেন, আমাদের জমির পাশাপাশি শেষ সম্বল নিজেদের ভিটেমাটি পর্যন্ত জোর করে আল মোস্তফা কোম্পানির লোকজন বালু ভরাট করে দখলের চেষ্টা করছে। এ বিষয়ে আল মোস্তফা গ্রুপের চেয়ারম্যান মোস্তফা কামাল জানান, বালু ভরাটের কাজটি স্থানীয় নেতাদের দিয়েছি। যদি কারো জমি না কিনে ভরাট করা হয়ে থাকে তাহলে আমার কাছে আসলে তাদের জমির ন্যায্যমূল্য দিয়ে কিনে নেয়া হবে। সরকারি জমি ও নদী দখলের বিষয়ে জানতে চাইলে বিষয়টি এড়িয়ে যান। কোম্পানির স্থানীয় প্রতিনিধি মোক্তার হোসেন জানান, কৃষকদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে বর্তমানে বালু ভরাট কাজ বন্ধ রেখেছি। জোর করে কারও জমি ভরাট করব না।

সোনারগাঁ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নাজমুল হুসাইন জানান, বালু ভরাটের বিষয়ে আমি অবগত নই। আল মোস্তফা গ্রুপ যদি জোরপূর্বক কৃষকদের জমি ভরাট, সরকারি খাস জমি ও নদী দখল করে, তাহলে তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।