• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ৯ রবিউস সানি ১৪৪২

দুর্নীতির দায়ে পদচ্যুত কুলকান্দি চেয়ারম্যান

সংবাদ :
  • প্রতিনিধি, ইসলামপুর (জামালপুর)

| ঢাকা , শনিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২০

জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলার কুলকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জিয়াউর রহমান সনেটের অনিয়ম ও দুর্নীতির দায়ে চেয়ারম্যানের পদটি শুন্য হয়ে পড়েছে। এদিকে চেয়ারম্যান পদটি শুন্য হলেও এখনও তিনি নিজেকে বিভিন্ন অফিস আদালতে চেয়ারম্যান পরিচয়ে সুবিধা নেয়ার অভিযোগও উঠেছে। স্থানীয় সরকার,পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের ইপ-১ অধিশাখার প্রজ্ঞাপনে জানা গেছে, ইসলামপুর উপজেলার কুলকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জিয়াউর রহমান সনেট এর বিরুদ্ধে ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্যগণের সঙ্গে কাজের ক্ষেত্রে সমন্বয়ের অভাব, স্থানীয় সরকার(ইউনিয়ন পরিষদ) আইন ২০০৯ অনুসরণ না করে স্বেচ্ছাচারীভাবে ক্ষমতা অপব্যবহার, পরিষদের আদায়কৃত ট্যাক্সের ৭৬ হাজার আত্মসাত, হতদরিদ্র ভিজিডি উপকারভোগীদের চাল আত্মসাত, ডিসেম্বর-২০১৭ থেকে আগস্ট ২০১৮ তারিখ পর্যন্ত একাধারে ৯ মাস উপজেলা পরিষদের মাসিক সভায় অনুপস্থিত, রাতে অফিসিয়াল কার্যক্রম পরিচালনাসহ নানান অভিযোগ উত্থাপন করে পরিষদের ১১ জন সদস্য কর্তৃক অনাস্থা প্রস্তাব করেন এবং তদন্তে উত্থাপিত অভিযোগ গুলি প্রমাণিত হয়। যার ফলে অনাস্থা প্রস্তাবের বিষয়ে স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন, ২০১৯ এর ধারা ৩৯ অনুযায়ী উপজেলা ডেভেলপমেন্ট ফ্যাসিলিটিটের, ইসলামপুর, জামালপুর কর্তৃক বিশেষ সভায় অনাস্থা প্রস্তাবের পক্ষে ১১টি ভোট পড়ে যা দুই তৃতীয়াংশের বেশি। ফলে জনস্বার্থে স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন, ২০০৯এর ৩৯(১৩) ধারা বিধান অনুযায়ী সরকার কর্তৃক অনাস্থা প্রস্তাবটি অনুমোদিত হওয়ায় জিয়াউর রহমান সনেট চেয়ারম্যান কুলকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের পদটি গত ২৪ জুলাই ২০১৯ হতে একই আইনের ৩৫(১)(চ) ধারা অনুযায়ী শুন্য ঘোষণা করা হয়েছে। এ বিষয়ে স্থানীয় সরকার(ইউনিয়ন পরিষদ) আইন,২০০৯এর ৩৫(২) ধারা মোতাবেক শুন্য ঘোষণা সংক্রান্ত গেজেট বিজ্ঞপ্তি জারির প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন ইসলামপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মিজানুর রহমান। ফলে বিধান অনুযায়ী কুলকান্দি ইউনিয়ন পরিষেদের এক ইউপি সদস্য বর্তমানে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন। এদিকে জিয়াউর রহমান সনেটের চেয়ারম্যান পদটি শুন্য হলেও এখনো তিনি নিজেকে বিভিন্ন অফিস আদালতে চেয়ারম্যান পরিচয়ে সুবিধা নিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যাপারে পরিষদের পক্ষ থেকে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ওবায়দুর রহমান বাবু পরিষদ সংক্রান্ত কোন কার্যক্রম ও লেনদেন না করার জন্য সকলের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন।