• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০ আশ্বিন ১৪২৫, ১৪ মহররম ১৪৪০

ঝাড়ুয়ারবিল-পদ্মপুকুর গণহত্যা দিবস আজ

সংবাদ :
  • রুহুল আমিন সরকার, বদরগঞ্জ(রংপুর)

| ঢাকা , মঙ্গলবার, ১৭ এপ্রিল ২০১৮

image

আজ ১৭ এপ্রিল ৪ বৈশাখ। রংপুরের বদরগঞ্জে ঝাড়ুয়ারবিল-পদ্মপুকুর গণহত্যা দিবস। এদিন পাক হানাদাররা দুটি ট্রেনে চড়ে রামনাথপুর ইউনিয়নের বালাপাড়া ও কিসমত ঘাটাবিল এলাকার ঝাকুয়াপাড়া সংলগ্ন স্থানে আসে। এরপর মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় অভিযুক্ত জামায়াত নেতা এটিএম আজহারুল ইসলামের নেতৃত্বে পাকহানাদার এবং রাজাকাররা একত্রে মিলে রামনাথপুর ও বিষ্ণুপুর ইউনিয়নের ব্যাপক এলাকা ঘিরে ফেলে। তারা বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ, লুটপাট এবং বাঙালি নারীদের ধর্ষণসহ ব্যাপক হত্যাযজ্ঞ চালায়। এ সময় নিরস্ত্র ও নীরিহ লোকজন প্রাণভয়ে আশ্রয় নেন ঝাড়ুয়ারবিল-পদ্মপুকুর পাড়ে। কিন্তু রাজাকাররা ঝাড়ুয়ারবিল-পদ্মপুকুর পাড়ে সাধারণ মানুষের আশ্রয় নেয়ার বিষয়টি টের পেয়ে যায়। বিষয়টি পাক হানাদারদের জানানো হলে পাক হানাদাররা ওই এলাকা ঘিরে ফেলে। এরপর পাক হানাদার, এদেশীয় রাজাকার এবং আলবদর বাহিনীর সদস্যরা সম্মিলিতভাবে প্রাণভয়ে লুকিয়ে থাকা মুক্তিকামী নিরীহ বাঙালিকে সারিবদ্ধভাবে দাঁড় করিয়ে পাখির মতো গুলি করে হত্যা করে।

মুক্তিযোদ্ধা ও ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সদস্যদের দেয়া তথ্য মতে, সেদিন ওই ঝাড়–য়ারবিল ও পদ্মপুকুর পাড়ে প্রায় দেড় হাজার মানুষকে হত্যা করা হয়। সেদিনের সেই গণহত্যার ঘটনায় এরই মধ্যে আলবদরনেতা ও জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল এটিএম আজহারুল ইসলামকে মৃত্যুদ- দিয়েছে মানবতাবিরোধী অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। কিন্তু আলবদর নেতা এটিএম আজহারের পক্ষে ওই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করায় তা’ উচ্চ আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। এলাকার শহীদ পরিবার, মুক্তিযোদ্ধা ও ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সদস্যরা দাবি করেছেন- আলবদর নেতার দ্রুত আপিল নিষ্পত্তিসহ সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা হোক।

এ ব্যাপারে স্থানীয় সংসদ সদস্য ডিউক চৌধুরী বলেন, ‘রাজাকারদের পৃষ্ঠপোষক দীর্ঘদিন ধরে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থাকার কারণে দুটি প্রজন্ম স্বাধীনতার প্রকৃত ইতিহাসই জানতে পারেনি। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর বিষয়টি অনুধাবন করে আলবদর নেতা এটিএম আজহারকে বিচারের আওতায় নিয়ে আসে এবং ঝাড়ুয়ারবিল-পদ্মপুকুর পাড়ে স্মৃতিসৌধ নির্মাণ করে। শুধু তাই নয়, এরই মধ্যে স্মৃতিসৌধে যাতায়াতকারী সড়কটিও পাকাকরণ করা হয়েছে। তিনি বলেন, ভবিষ্যতে সেখানে একটি কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে। এর পাশাপাশি সেখানে একটি বিদ্যালয় স্থাপনের পরিকল্পনাও হাতে নেয়া হয়েছে ।’