• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

রবিবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮, ২ পৌষ ১৪২৫, ৭ রবিউল সানি ১৪৪০

ইটভাটায় বিবর্ণ বাংলাদেশ

জামালপুরে অবৈধ ইটভাটার ছড়াছড়ি : হুমকিতে ফসল

সংবাদ :
  • প্রতিনিধি, জামালপুর

| ঢাকা , শুক্রবার, ০৯ নভেম্বর ২০১৮

image

জামালপুর : ফসলি জমিতে এভাবেই গড়ে উঠেছে ইটভাটা-সংবাদ

জামালপুরে কৃষি জমি অকৃষি দেখিয়ে অবাধে গড়ে উঠছে অবৈধ ইটভাটা। পরিবেশ অধিদফতরের অনুমতি ছাড়াই জনবসতিতে গড়ে উঠা শতাধিক ইটভাটার কারণে এলাকার পরিবেশ ও জনস্বাস্থ্য, কৃষি ও কৃষকরা ক্ষতির শিকার হলেও নির্বিকার রয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। তবে পরিবেশ সম্মত না হলে ওই সব ইটভাটা মালিকদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার কথা বললেন জেলা প্রশাসক আহম্মেদ কবির।

স্থানীয় প্রভাবশালীরা কৃষি বিভাগ ও প্রশাসনের কর্মকর্তাদের যোগসাজশে কৃষি জমি অকৃষি বা বন্যা কবলিত এলাকা ও এক ফসলী জমি দেখিয়ে পরিবেশ অধিদফতরের ছাড়পত্র ছাড়াই দিনের পর দিন অবৈধভাবে গড়ে তুলছে অবৈধ ইটভাটা। এসব ইটভাটার কারণে কৃষি ও কৃষকরা মারাতœক ভাবে ক্ষতির শিকার হচ্ছেন। এলাকাবাসীরা বলেন, ইটভাটার আশপাশে ধান, সবজী, আম, কাঠাল ও নারিকেলসহ বিভিন্ন ফলের উৎপাদন ব্যহত হচ্ছে। এতে কৃষির ক্ষতি পাশাপাশি এলাকার স্বাভাবিক পরিবেশ নষ্ট হয়ে নানা রোগবালাই দেখা দিচ্ছে।

জেলার মেলান্দহ উপজেলার নয়ানগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহাবুদ্দিন নিজের অসহাত্বের কথা তুলে ধরে বলেন, ৩০ হাজার জনসংখ্যা অধ্যুষিত ছোট্ট এই ইউনিয়নটিতে রয়েছে ১১টি ইটভাটা। এসব ইটভাটার কারণে এই ইউনিয়নে প্রায় ৬০ থেকে ৭০ ভাগ জমি কৃষি জমি কমে গেছে। ক্ষতির শিকার হচ্ছে এই এলাকার কৃষকরা। এজন্য স্থানীয় প্রশাসন ও পরিবেশ অধিদফতরকে দায়ী করলেন এই জনপ্রতিনিধি।

মেলান্দহের জালালপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন নবনির্মিত ইটভাটার মালিক আরিফুল রহমান উজ্জল বলেন, কৃষি বিভাগের ছাড়পত্র, প্রশাসনের অনুমতি এবং পরিবেশ অধিদফতরে আবেদন করে ইটভাটার কাজ করছি। তার ইটভাটায় এলাকার পরিবেশ ও ফসলের কোন ক্ষতি হবে না।

জামালপুর জেলা প্রশাসনের দফতরের হিসেবে জেলায় ৭৮টি ইটভাটা দেখানো হলেও বাস্তবে রয়েছে এর চেয়ে বেশি। চলতি মৌসুমে নতুন আরও ১১টি ইটভাটার কাজ শেষ পর্যায়ে। এসব ইটভাটার মধ্যে ৩টি ভাটার লাইসেন্স এবং ৫টি পরিবেশ অধিদফতরের ছাড়পত্র থাকলেও বাকি সব অবৈধভাবে চললেও তাদের বিরুদ্ধে কোন আইনী ব্যবস্থা নিচ্ছে না স্থানীয় প্রশাসন।

তবে জেলা প্রশাসক আহম্মেদ কবির বলেন, পরিবেশের ছাড়পত্র ছাড়া এবং পরিবেশ সম্মত না হলে ইটভাটা নির্মাণ করা যায় না। আর যদি জনবসতির এবং কৃষির ক্ষতি না হয় সেভাবেই ইটভাটা করতে হবে। তা না হলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।