• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শুক্রবার, ১০ জুলাই ২০২০, ২৬ আষাঢ় ১৪২৭, ১৮ জিলকদ ১৪৪১

চট্টগ্রাম ওয়াসার উন্নয়ন প্রকল্পে বিস্তর অনিয়ম

দৈনিক ৩৫-৪০ কোটি লিটার উৎপাদনের কোন বৈজ্ঞানিক সত্যতা নাই

সংবাদ :
  • চট্টগ্রাম ব্যুরো

| ঢাকা , সোমবার, ১৩ মে ২০১৯

প্রধানমন্ত্রীর আন্তরিকতায় চট্টগ্রাম ওয়াসায় ১৩ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প নেয়া হলেও চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ প্রাপ্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক ১০ বছর পার করলেও প্রশাসনে গতিশীলতা আনতে পারেননি। অধিকন্তু অনিয়ম, প্রকল্পে বারবার বাজেট সংশোধন, অদক্ষ প্রশাসন, স্বজনপ্রীতি, স্বেচ্ছাচারিতা, আত্মীয়করণ ও গ্রাহক স্বার্থকে উপেক্ষা করার কারণে চট্টগ্রাম ওয়াসা নগরবাসীর শুধু চাহিদা পূরণে ব্যর্থ নয়, যন্ত্রণারও কারণ দাঁড়িয়েছে। এ অবস্থায় ঢাকা ওয়াসার আদলে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়, বাস্তবায়ন ও পরীবিক্ষণ বিভাগ ও দুর্নীতি দমন কমিশনের বিষয়গুলো খতিয়ে দেখার আহ্বান জানিয়েছেন দেশের ক্রেতা-ভোক্তাদের স্বার্থ সংরক্ষণকারী জাতীয় প্রতিষ্ঠান কনজ্যুমারস এ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব)।

গত শনিবার দেয়া বিবৃতিতে ক্যাব নেতৃবৃন্দ বলেন, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের পরামর্শে উন্নয়ন প্রকল্পে বাজেট বার বার পুনর্সংশোধন করে দ্বিগুণ পর্যন্ত বাড়িয়ে রাষ্ট্রীয় সম্পদের লুণ্টন হলেও কেউ এ পর্যন্ত সুনির্দিষ্ট ব্যাখ্যা চায়নি। তদুপরি উন্নয়ন প্রকল্পের নজরদারিতে বোর্ড সদস্যদেরও সম্পৃক্ত করা হয়নি। ফলে ব্যবস্থাপনা পরিচালক তার ইচ্ছানুসারে উন্নয়ন প্রকল্পের বাজেট বৃদ্ধি ছাড়া আর কিছু করেননি। পানি সমস্যা যে তিমিরে ছিল সেখানেই আছে। অন্যদিকে উন্নয়ন প্রকল্পে নাগরিক পরীবিক্ষণ করা হলে এখাতে দুর্নীতি ও অনিয়ম অনেকাংশে কমানো সম্ভব হতো। বিবৃতিদাতারা হলেন, ক্যাব কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস প্রেসিডেন্ট এস এম নাজের হোসাইন, ক্যাব চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাধারণ সম্পাদক কাজী ইকবাল বাহার ছাবেরী, ক্যাব মহানগরের সভাপতি জেসসিন সুলতানা পারু, সাধারণ সম্পাদক অজয় মিত্র শংকু, যুগ্ম-সম্পাদক তৌহিদুল ইসলাম ও ক্যাব চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা সভাপতি আলহাজ্ব আবদুল মান্নান। বিবৃতিতে ক্যাব নেতৃবৃন্দ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, নগরে পানি সঙ্কট হলেই ওয়াসা কর্তৃপক্ষ বারংবার বিভিন্ন প্রকল্পের দোহাই দিয়ে থাকেন। কিন্তু প্রতিশ্রুত সময়ের পর তাদের সেই প্রতিশ্রুতির কোন ফল নগরবাসী পায় না। এর মূল কারণ হলো অপরিকল্পিত ও ঠিকাদার নির্ভর উন্নয়ন প্রকল্প, এক জায়গায় ১০-১২ বার পর্যন্ত খোড়াখুড়ি, নিম্নœমানের উপকরণ ব্যবহার ও মানহীন উন্নয়ন প্রকল্প, সরবরাহ লাইনে ত্রুটি, লিকেজ, পানি চুরি বন্ধ, বিলিং ব্যবস্থার ত্রুটি দূর না করে ওয়াসা কর্তৃপক্ষ বারংবার নতুন নতুন প্রকল্পের ওপর জোর দিয়ে আসছে। ফলে ওয়াসা তলাবিহীন জুড়ির ন্যায়, যা-ই ঢালা হচ্ছে সবই খালে গিয়ে পড়ছে। অধিকন্তু প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ আগ্রহে চট্টগ্রাম মহানগরীতে পানি ও পয়ঃপ্রনালী উন্নয়নে বর্তমান সরকারের আমলে বিভিন্ন প্রকল্পে ১৩ হাজার কোটি টাকার বরাদ্দ দিলেও চট্টগ্রাম ওয়াসার অদক্ষ ও অদূরদর্শী নেতৃত্ব, অনিয়ম, স্বেচ্ছাচারী ও আত্মীয়করণের কারণে নগরবাসী কোন সুফল পায়নি। অধিকন্তু পুরো নগরে পানির জন্য হাহাকার, নগরজুড়ে রাস্তা খোড়াখুড়ি, পানির লিকেজ ও বিপুল পরিমাণ পানি প্রতিদিন নালা, নর্দমায় পড়ে গিয়ে অপচয় হচ্ছে।

নেতারা বলেন, চট্টগ্রাম ওয়াসার দাবি, পানির উৎপাদন দৈনিক ৩৫-৪০ কোটি লিটার। যার কোন বৈজ্ঞানিক সত্যতা নাই। কারণ রাঙ্গুনিয়ায় শেখ হাসিনা পানি শোধানাগার, মদুনাঘাট পানি শোধনাগার ও পাম্প হাউসে কোন ডিজিটাল মিটার নাই। ফলে কত লিটার পানি উৎপাদন হচ্ছে তার সত্যতা যাচাই করার জন্য ওয়াসার ডাটাবেস নাই। আর নগরীর পানির চাহিদা ২০ কোটি লিটার তাহলে আরও ১৫-২০ কোটি লিটার হয় অপচয় হচ্ছে, না হলে পানি চুরি হচ্ছে। তাই পানি উৎপাদন ও বিতরণে ডিজিটাল মিটার না থাকায় পানির প্রকৃত উৎপাদন খরচ নিয়ে শুভঙ্করের ফাঁকি ও বিশাল অনিয়ম হচ্ছে। উৎপাদন খরচের গড়মিল দেখিয়ে অনিয়মের বিশাল সম্ভাবনা। নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, সেবার মান উন্নয়নে গ্রাহকদের সঙ্গে মতবিনিময়ের কথা বলে নগরীর বিলাসবহুল পাঁচ তারাকা হোটেলে ব্যবস্থাপনা পরিচালকের আত্মীয়স্বজন, ঠিকাদার ও দু’একজন অনুগত গ্রাহকদের নিয়ে গ্রাহক সভা আয়োজন করে প্রকৃতপক্ষে গ্রাহকদের সঙ্গে প্রতারণা করেছেন। যা গ্রাহক সভার নামে গ্রাহকদের সঙ্গে তামাসার সামিল ও রাষ্ট্রীয় অর্থের অপচয় ছাড়া কিছুই নয়। নেতৃবৃন্দ বলেন, চট্টগ্রাম নগরজুড়ে পানির জন্য হাহাকার, যা বিভিন্ন পত্রপত্রিকা ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়াতে প্রচারিত হচ্ছে। কিন্তু ওয়াসা কর্তৃপক্ষ তা স্বীকার করতে নারাজ।