• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ০৭ এপ্রিল ২০২০, ২৪ চৈত্র ১৪২৬, ১২ শাবান ১৪৪১

উপজেলা চেয়ারম্যানের হাতে মহিলা আইনজীবী লাঞ্ছিত

সংবাদ :
  • প্রতিনিধি, পটুয়াখালী

| ঢাকা , রোববার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯

পটুয়াখালীর গলাচিপায় উপজেলা চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা মু. শাহীন শাহর হাতে উন্মে আসমা আখি নামে একজন মহিলা আইনজীবী লাঞ্চিত হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। উন্মে আসমার শ্বশুর আওয়ামী লীগ নেতা ও কলাগাছিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মো. দুলাল চৌধুরীর সঙ্গে মোবাইল ফোনে বাদানুবাদের কারণ জানতে চাইলে উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন শাহ তাকে লাঞ্চিত করে। বৃহস্পতিবার দুপুরে গলাচিপা উপজেলা পরিষদের সামনে এই লাঞ্চিত হওয়ার ঘটনার পর শুক্রবার বিকেলে পটুয়াখালী প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে অভিযোগ করেছেন আইনজীবী উন্মে আসমা।

গত শুক্রবার বিকেলে পটুয়াখালী প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে উন্মে আসমা অভিযোগ করে বলেন, তার শ্বশুর গলাচিপার কলাগাছিয়া ইউপি চেয়ারম্যান ও গলাচিপা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মো. দুলাল চৌধুরীকে বৃহস্পতিবার সকালে মোবাইল ফোনে কলাগাছিয়ায় ঘেরে মাছ মরে যাওয়ার বিষয় নিয়ে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে। দুপুর সোয়া ২ টার দিকে উপজেলা পরিষদের সামনে তার শ্বশুরকে গালমন্দ করার কারন জানতে চাইলে শাহীন শাহ ক্ষিপ্ত হয়ে উন্মে আসমাকে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ এবং এক পর্যায়ে ক্ষিপ্ত হয়ে আমাকে এলোপাতাড়ি কিলঘুসি লাথি মারে। তার ডাক-চিৎকালে লোকজন এসে পড়লে হুমকি দিয়ে চওে যায়। তিনি এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য শুক্রবার সকালে গলাচিপা থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন।

এদিকে আইনজীবী উন্মে আসমার শ্বশুর দুলাল গলাচিপা উপজেলা চেয়ারম্যান মু. শাহীন শাহর সন্ত্রাসী কর্মকা- থেকে তিনিসহ তার পরিবারকে রক্ষার জন্য গলাচিপা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন।

এদিকে শুক্রবার বেলা ১২টার দিকে গলাচিপা উপজেলা চেয়ারম্যান মু. শাহীন শাহ পরিষদে তার কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ মিথ্যা দাবি করেছেন। এছাড়াও তিনি ঘটনার বর্ণনা লিখিতভাবে অবহিত করেছেন। এতে তিনি কলাগাছিয়া এলাকার এক মৎস্য চাষির মাছের ঘেরে পূর্বশত্রুতার জের ধরে বিষ প্রয়োগ করে লাখ লাখ টাকার মাছ মেরে ফেলার ঘটনায় বিষয়টি জানার জন্য মোবাইল ফোনে ইউপি চেয়ারম্যানকে আসতে বলেছিল বলে দাবি করেছেন। কিন্তু চেয়ারম্যানের বড় ছেলের স্ত্রী আইনজীবী উন্মে আসমা ঘটনাস্থলে এসে মৎস্য চাষিকে ভয়ভীতি ও হুমকি দেয় এবং এ ঘটনার সঙ্গে তার শ্বশুরকে জড়িত করার চেষ্টা করলে দেখে নেয়ার হুমকি দেয়। এ সময় আইজীবীকে থামানোর চেষ্টা করলে তিনি আমার সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন এবং এ নিয়ে তার সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়। আইনজীবী আমার বিরুদ্ধে যে ধরনের অভিযোগ করেছেন তা সত্য নয়। এ ব্যাপারে গলাচিপা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আক্তার মোর্শেদ বলেন, বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।