• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৯ আশ্বিন ১৪২৫, ১৩ মহররম ১৪৪০

ঈশ্বরগঞ্জে স্ত্রী হত্যা : স্বামীর দায় স্বীকার

সংবাদ :
  • প্রতিনিধি, ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ)

| ঢাকা , মঙ্গলবার, ১৩ মার্চ ২০১৮

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে সালমা হত্যার দায় স্বীকার করে ঘাতক স্বামী অনিক মিয়া আদালতে স্বীকারোক্তি দিয়েছে। ২০১৭ সালে ১৪ অক্টোবর রাতে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার রাজিবপুর ইউনিয়নে ভাটিচরনওপাড়া গ্রামে অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ অনিক যৌতুকের জন্য তার স্ত্রী সালমা আক্তারকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। হত্যাকান্ডকে তার পরিবারের লোকজন ধামাচাপা দেয়ার জন্য সালমার গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ঘরের সিলিং ফ্যানের সংঙ্গে ঝুলিয়ে রেখে সালমা আত্মহত্যা করেছে বলে প্রচারণা চালায়। এ ঘটনায় নিহতের বাবা তার মেয়ে হত্যার বিচার চেয়ে ঈশ্বরগঞ্জ থানায় অভিযোগ করেন। কিন্তু থানায় হত্যা মামলা রুজু না করে অপমৃত্যুর মামলা রেকর্ড করে পুলিশ লাশ ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করে। পুলিশ, স্থানীয় এলাকাবাসী ও সালমার পারিবারিক সূত্রে জানায়, কিশোরগঞ্জ জেলার হোসেনপুর উপজেলার চরকাটিহারি গ্রামের খোকন মৃধার মেয়ে সালমা আক্তারের সঙ্গে মোবাইল ফোনে প্রেমে বিয়ে হয় অনিকের । সালমা গাজীপুরে একটি পোশাক কারখানায় কাজ করত। এ সময় অনিকের সাথে ফোনে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে । বিয়ের পর স্বামী যৌতুকের টাকার জন্য সালমাকে নির্যাতন করত। এমনকি অনাহারেরও রাখত। ঘটনার দিন স্বামী অনিক ১ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে। যৌতুকের টাকা বাবার বাড়ি থেকে এনে দিতে অস্বীকার করায় তাকে বেধড়ক মারধর করে। এতে ঘটনাস্থলেই সালমার মৃত্যু হয়। গত ৬ মার্চ ২০১৮ ময়না তদন্ত রির্পোটে সালমাকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয় বলে পুলিশ রির্পোট পায়। ৭ মার্চ নিহত সালমার বাবা খোকন মৃধা বাদী হয়ে অনিকসহ চার জনকে আসামি করে ঈশ্বরগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।