• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ২৪ এপ্রিল ২০১৮, ১১ বৈশাখ ১৪২৪,৭ শাবান ১৪৩৯

ডিজিটাল বাংলাদেশের গ্রামীণ চিত্র

সরিষাবাড়ির ১২ গ্রামের ভরসা বাঁশের সাঁকো

সংবাদ :
  • প্রতিনিধি, সরিষাবাড়ী (জামালপুর)

| ঢাকা , মঙ্গলবার, ১৭ এপ্রিল ২০১৮

image

সরিষাবাড়ী (জামালপুর) : সেতু না থাকায় বাঁশের সাঁকো দিয়ে এভাবেই ঝুঁকি নিয়ে পারাপার গ্রামবাসীর -সংবাদ

জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ী উপজেলার সাতপোয়া ইউপির রৌহা বাজারের পশ্চিম পাশে যমুনা শাখা নদীর উপর সেতু না থাকায় বর্ষাকালে খেঁয়া নৌকা আর শুস্ক মৌশুমে বাঁশের সাঁকো দিয়ে ১২টি গ্রামের প্রায় চল্লিশ হাজার মানুষকে দীর্ঘদিন যাবত যাতায়াত করে থাকেন।

এলাকার চাকরিজীবী নজরুল ইসলাম জানান, এই রাস্তা দিয়ে ১২টি গ্রামের প্রায় চল্লিশ হাজার মানুষ যাতায়াত করে। গ্রামগুলো হলো: রৌহা, পশ্চিম রৌহা, খুলশাকুড়ি, মাজারিয়া, খামারমাগুরা, দঃখামারমাগুরা, জামিরা, কোনারপাড়া, কামারপাড়া, চনবাড়ী ও বাড়ইপাড়া। গ্রামগুলোতে বর্তমানে বিশাল এলাকা পলি মাটি মিশ্রিত হওয়ায় কৃষি ফসল উৎপাদনের জন্য ব্যাপক চাহিদা বেড়েছে। বর্তমানে ওই এলাকা ফসলের ভান্ডার হিসেবেও সুপরিচিত। উৎপাদিত ফসলের মধ্যে রয়েছে ধান, পাট, মরিচ, ভুট্টা, মাষেরডাল, মশারিডাল, পিয়াজ, গম ও শাকসবজি। আর ওই গ্রামগুলোতে যাতায়াতের জন্য একমাত্র রাস্তাটির ওপর বর্ষার সময় খেয়া নৌকা আর শুস্ক মৌশুমে বাঁশের সাঁকো দীর্ঘদিন যাবত প্রতিবন্ধকতা ও যাতায়াতের চরম বিঘ্ন সৃষ্টি করে আসছে। জনসাধারণ যেমন তাদের উৎপাদিত বিভিন্ন কৃষি ফসল এই রাস্তা দিয়ে পরিবহনের কোন যানবাহন ব্যবহার করতে পারে না তেমনি সেতু না থাকায় মহাজনÑ ফরিয়াগণ নদীর পশ্চিমপাড়ে যেতে চায় না। ফলে কৃষকগণ তাদের উৎপাদিত ফসলের ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। শুধু তানয় ওই যমুনা শাখা নদীর উপর ব্রিজ না থাকায় জরুরি রোগী, প্রসুতি মা-বোন সেবা প্রদানের জন্য উপজেলা সদরের সঙ্গে হাসপাতালে নেয়ার জন্য ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হয়।

এজন্য প্রসুতিদের কষ্ট অবর্নণীয়। এছাড়া ও আরএনসি উচ্চ বিদ্যালয়টি শাখা নদীর পূর্বপাড়ে হওয়ায় কোমলমতি শিশুদের প্রতিনিয়ত জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নদী পারাপার হতে হয়। এ বিষয়ে আরএনসি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এএসএম জুলফিকুর রহমান জানান, সারাবছর ছাত্র-ছাত্রীদের বিদ্যালয়ে যাতায়াতের বিষয়টি নিয়ে চিন্তিত থাকতে হয়। কাজেই জনগুরত্ব বিবেচনা করে জরুরি ভিত্তিতে নদীটির ওপর একটি সেতু নির্মাণ প্রয়োজন। এ ব্যাপারে ১নং সাতপোয়া ইউপি চেয়ারম্যান মো. আবু তাহের জানান, উপজেলার জনসাধারণ ছাড়াও এ রাস্তা দিয়ে সিরাজগঞ্জ জেলার কাজিপুর উপজেলার পূর্বপাড়ের ও মাদারগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ এলাকার জনসাধারণও যাতায়াত করে থাকে। সেহেতু অতি জনগুরুত্ব বিবেচনা করে এখানে একটি সেতু নির্মাণের জন্য সংশ্লিষ্ট বিভাগের সুদৃষ্টি একান্ত কাম্য।