• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই ২০২০, ৩০ আষাঢ় ১৪২৭, ২২ জিলকদ ১৪৪১

শ্রমিকরা সময়মতো বেতন পাবেন, প্রধানমন্ত্রী পাশে আছেন : রুবানা হক

    সংবাদ :
  • অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক
  • | ঢাকা , বুধবার, ২৫ মার্চ ২০২০

image

করোনাভাইরাসে শ্রমিকদের আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। সময়মতো শ্রমিকরা বেতন পাবেন বলে আশ্বস্ত করেছেন বাংলাদেশ তৈরি পোশাক প্রস্তুত ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) সভাপতি ড. রুবানা হক। তিনি সবাইকে প্রধানমন্ত্রীর ওপর ভরসা রাখার আহ্বান জানিয়ে বলেন, তিনি আমাদের পাশে আছেন। শুধু গার্মেন্ট শ্রমিক নয়, সব শ্রমিকের কথাই ভাবছেন প্রধানমন্ত্রী। গত সোমবার এক ভিডিওবার্তায় তিনি এ কথা বলেন।

অর্ডার পরিস্থিতি অত্যন্ত শোচনীয়। গত ৪ দিনে প্রায় দেড় বিলিয়ন ডলারের অর্ডার বাতিল হয়েছে। কেউ কেউ পুরো অর্ডার বাতিল করেছেন, আবার কেউ আংশিক। অনেক ক্রেতা আলোচনার কথা বলছেন। আলোচনা করার কথা বললেও একটা আশা থাকে। কিন্তু বাতিল করে দিলে কোন জায়গা থাকে না। ক্রেতারা এই মৌসুমের পণ্য আগামী মৌসুমে নেবে কি না, সেটাও বলছে না। এ অবস্থায় চরম অনিশ্চয়তার মধ্য দিয়ে যাচ্ছি। এই দেড় বিলিয়ন ডলার বাতিল বা স্থগিত করায় প্রায় ১২ লাখ শ্রমিক ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। এটা শুধু বিজিএমইএর ওয়েবসাইটে গার্মেন্ট মালিকদের দেয়া তথ্য। এর বাইরেও প্রচুর অর্ডার বাতিল হয়েছে।

শ্রমিকদের উদ্দেশে রুবানা হক বলেন, এ অবস্থায় ধৈর্য হারালে হবে না। ২৫ মার্চ প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন। সবাই তার ভাষণের জন্য আপেক্ষা করি। আতঙ্কিত হওয়ার জায়গা নেই। শ্রমিকদের যখন বেতনের সময় আসবে তখন তারা বেতন পাবেন। কেউ ভয় পাবেন না। ভরসা রাখুন। সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায় আমাদের আশ্বস্ত করেছে, তারা আমাদের পাশে আছে। অন্তত প্রধানমন্ত্রীর ওপর এটুকু ভরসা রাখুন, শুধু গার্মেন্টের ৪১ লাখ শ্রমিকের দিকে নয়, তিনি সব শ্রমিকের দিকে তাকিয়ে আছেন। যতদিন তিনি পাশে আছেন, আমরা কেউ পানিতে পড়ব না। বিদেশি ব্র্যান্ডকে আবেদন জানাই, তারা যেন বানানো মালগুলো নেয়। অন্তত চলার জায়গা তৈরি করুন। না হলে আগামী ৬ মাসে বড়, মাঝারি ও ছোট সব কারখানা বসে যাবে।

সংবাদকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনাদের তাৎক্ষণিক একটি হেডলাইন, স্ক্রল এ মুহূর্তে পোশাক শিল্পের জীবন বদলে দিতে পারে। যদি কোন ধরনের আতঙ্ক সৃষ্টি হয়, না শ্রমিক ভাই-বোনরা উপকৃত হবে, না বিজিএমইএ উপকৃত হবে, না শিল্প উপকৃত হবে, না সরকার উপকৃত হবে। শ্রমিক বেতনের সময় তার বেতন পাবে। এটি মনে রেখে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ান। শ্রমিকদের মাস্ক দেয়া চলছে, ডাক্তারদের পোশাক তৈরির কাজ চলছে। যেখানে পারছি করছি, আর যেখানে পারছি না সেখানে অন্তত রেইনকোর্ট কিনে সামনে মাস্ক দেয়া হচ্ছে। যাতে ডাক্তারদের নিরাপত্তা নিশ্চিত থাকে। বিজিএমইএ সব সময় শ্রমিকদের পাশে আছে।

এর আগে পোশাক খাতের বর্তমান অবস্থা জানিয়ে তিনি বলেন, ভয়াবহ অবস্থা চলছে আমাদের। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে তাদের ক্রেতারা সব ধরনের ক্রয় আদেশ স্থগিত করছে। বলছে স্থগিত। তবে আমাদের জন্য এটি স্থগিত নয় বাতিল। সবশেষ তথ্য অনুযায়ী, ২২ মার্চ পর্যন্ত দেশের তৈরি পোশাক খাতের এক হাজার ৮৯টি কারখানার ক্রয় আদেশ স্থগিত করেছে। ৮৭ কোটি ৩২ লাখ ৩৬ হাজার ৬২২টি পোশাক কার্যাদেশ বাতিল করা হয়েছে। যার আর্থিক পরিমাণ ১ দশমিক ৪৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় দাঁড়ায় ১২ হাজার ৫৮০ কোটি টাকা, বিনিময় হার ৮৫ টাকা ধরে)। যেখানে প্রায় ১২ লাখ শ্রমিক কাজ করেন। বর্তমানে তৈরি পোশাক খাত গভীর সংকটের সময় পার করছে। একের পর এক পোশাক কারখানার ক্রয়াদেশ বাতিল হচ্ছে। এভাবে চলতে থাকলে সামনে এ খাত ভয়াবহ পরিস্থিতির মধ্যে পড়বে। তাই কঠিন এ সংকটময় মুহূর্তে বায়ারদের ক্রয় আদেশ স্থগিত না করার আহ্বান জানিয়েছেন পোশাক মালিকরা। পাশাপাশি সংকট উত্তোরণে সরকারের কাছে দ্রুত অর্থায়নে জন্য বিশেষ তহবিল গঠনসহ নগদ প্রণোদনা চায় পোশাক উদ্যোক্তারা।