• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ০৭ এপ্রিল ২০২০, ২৪ চৈত্র ১৪২৬, ১২ শাবান ১৪৪১

শেয়ারবাজার পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠকে বসবেন অর্থমন্ত্রী

সংবাদ :
  • অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

| ঢাকা , রোববার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯

image

শেয়ারবাজারের চলমান পরিস্থিতি নিয়ে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে বৈঠকে বসছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। আগামীকাল বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনে (বিএসইসি) বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হবে। বৈঠকে শেয়ারবাজারের বর্তমান মন্দা পরিস্থিতির কারণ অনুসন্ধানে আলোচনা হবে। একই সঙ্গে মন্দা পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসার উপায় নির্ধারণ নিয়েও আলোচনা হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

সূত্র জানায়, শেয়ারবাজার ভালো করার জন্য সরকার খুবই আন্তরিক। এ জন্য সম্প্রতি বেশকিছু প্রণোদনাও দেয়া হয়েছে। এরপরও শেয়ারবাজার মন্দা অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসতে পারছে না। ফলে শেয়ারবাজারের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে নীতিনির্ধারকরা বেশ বিব্রত। বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, দীর্ঘদিন ধরেই শেয়ারবাজারে মন্দা চলছে। এর মধ্যে শেষ তিন সপ্তাহ টানা দরপতন হয়ছে। তিন সপ্তাহের টানা দরপতনে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ প্রায় ১৯ হাজার কোটি টাকা বাজার মূলধন হারিয়েছে। সেই সঙ্গে পতন হয়েছে সব মূল্য সূচকের। তিন সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক কমেছে ৩০০ পয়েন্টের ওপরে। এ পরিস্থিতিতে শেয়ারবাজার সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে বসার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। বৈঠকে পুঁজিবাজারের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি, ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই), চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই), ডিএসই ব্রোকার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ডিবিএ) এবং বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমবিএ) নেতাদের সহ বিভিন্ন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের এমডিদের ডাকা হবে।

বৈঠকের বিষয়ে ডিবিএর সভাপতি শাকিল রিজভী সংবাদকে বলেন, অর্থমন্ত্রী শেয়ারবাজার সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে বসবেন এটা আমরা শুনেছি। তবে এ বিষয়ে এখনো কোনো চিঠি পাইনি। বৈঠক হবে এটা নিশ্চিত। বৈঠকে শেয়ারবাজারের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হবে। চলমান মন্দা কাটিয়ে উঠতে কী ধরনের পদক্ষেপ নেয়া দরকার, সে বিষয়ে আমরা প্রস্তাব তুলে ধরবো।

উল্লেখ্য, গত কয়েক সপ্তাহ থেকে শেয়ারবাজারে পতন অব্যাহত রয়েছে। আগের সপ্তাহের ধারাবাহিকাতায় গত সপ্তাহের চার কার্যদিবসে লেনদেনে অংশ নেয়া বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম কমেছে। এর ফলে প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সার্বিক মূল্য আয় অনুপাত (পিই রেশিও) কমেছে। এ নিয়ে টানা তিন সপ্তাহ ডিএসইর মূল্য আয় অনুপাত কমল। বাজার পর্যালোচনায় দেখা গেছে, গত সপ্তাহের চার কার্যদিবসের মধ্যে দুই কার্যদিবস শেয়ারবাজারে বড় পতন হয়েছে। এতে ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্সসহ বাকি দুটি সূচকেরও বড় পতন হয়েছে। সূচকের এই পতনের মধ্যে বাজারটিতে লেনদেনে অংশ নেয়া ৭৮ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম কমেছে। এতে ডিএসইর সার্বিক মূল্য আয় অনুপাত দুই শতাংশের ওপরে কমেছে।

গত সপ্তাহের শুরুতে ডিএসইর পিই ছিল ১৩ দশমিক ৩৩ পয়েন্টে, যা সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসের লেনদেন শেষেও দাঁড়িয়েছে ১৩ দশমিক শূন্য ৪ পয়েন্টে। অর্থাৎ এক সপ্তাহে ডিএসইর সার্বিক মূল্য আয় অনুপাত কমেছে দশমিক ২৯ পয়েন্ট বা ২ দশমিক ১৮ শতাংশ।

খাতভিত্তিক তথ্য পর্যালোচনায় দেখা যায়, সব থেকে কম পিই রেশিও রয়েছে ব্যাংক খাতের। সপ্তাহ শেষে ব্যাংক খাতের পিই রেশিও অবস্থান করছে ৭ দশমিক ৩৪ পয়েন্টে, যা আগের সপ্তাহে ছিল ৭ দশমিক ২৭ পয়েন্টে। পতনের মধ্যেও ব্যাংক খাতের পিই কিছুটা বেড়েছে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা টেলিযোগাযোগ খাতের পিই রেশিও ১১ দশমিক ৪৭ পয়েন্টে অবস্থান করছে। আগের সপ্তাহে এ খাতের পিই ছিল ১১ দশমিক ১৪ পয়েন্টে। এর পরের স্থানে থাকা বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের পিই ১৩ দশমিক ৪২ পয়েন্ট থেকে কমে ১২ দশমিক ১৪ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে শেয়ারবাজার নিয়ে বসতে যাচ্ছেন অর্থমন্ত্রী।