• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শনিবার, ০৮ আগস্ট ২০২০, ১৭ জিলহজ ১৪৪১, ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭

লেনদেনের শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে ওষুধ খাত

সংবাদ :
  • অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

| ঢাকা , রোববার, ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৯

আগের তিন সপ্তাহের মতো গত সপ্তাহেও (২৫-২৯ আগস্ট) ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) টাকার পরিমাণে লেনদেনের শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে ওষুধ ও রসায়ন খাতের কোম্পানিগুলো। এই নিয়ে টানা ৪ সপ্তাহ লেনদেনে শীর্ষস্থানে রয়েছে ওষুধ ও রসায়ন খাত। লংকাবাংলা সিকিউরিটিজ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, বিদায়ী সপ্তাহে ওষুধ ও রসায়ন খাতের কোম্পানিগুলোর ৪৫২ কোটি ৫৯ লাখ ৫০ হাজার টাকার বা মোট লেনদেনের ২১ শতাংশ হয়েছে। আগের সপ্তাহে এই খাতের কোম্পানিগুলোর ৩৯৮ কোটি ৫ হাজার টাকার বা মোট লেনদেনের ১৮ শতাংশ হয়েছিল। বিদায়ী সপ্তাহে মোট লেনদেনের ২১ শতাংশ হওয়াতে ডিএসইতে লেনদেনের শীর্ষ স্থানটি আবারও ধরে রেখেছে ওষুধ ও রসায়ন খাত। সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে লেনদেনের দ্বিতীয় স্থানে ওঠে আসে প্রকৌশল খাত। বিদায়ী সপ্তাহে প্রকৌশল খাতের কোম্পানিগুলোর ডিএসইতে মোট লেনদেনের ১৭ শতাংশ বা ৩৮১ কোটি ৯৭ লাখ ৫০ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে। আগের সপ্তাহে এই খাতের কোম্পানিগুলোর ১৩ শতাংশ বা ২৮৮ কোটি ৮৭ লাখ ৫০ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছিল।

আগের সপ্তাহে দ্বিতীয় স্থানে থাকা বিদ্যুৎ ও জ্বালানী খাত বিদায়ী সপ্তাহে তৃতীয় স্থানে নেমেছে। সপ্তাহজুড়ে এই খাতের কোম্পানিগুলোর মোট লেনদেনের ১০ শতাংশ বা ২১৮ কোটি ৬৩ লাখ ৫০ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। আগের সপ্তাহে এই খাতের কোম্পানিগুলোর মোট লেনদেনের ১৫ শতাংশ বা ৩৪৪ কোটি ৫৯ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছিল। অন্য খাতের মধ্যে বস্ত্র খাতের কোম্পানিগুলোর ২১৭ কোটি ৩২ লাখ ৫০ হাজার টাকার বা ১০ শতাংশ, বীমা খাতে ১৭১ কোটি ৬১ লাখ ৫০ হাজার টাকার বা ৮ শতাংশ, বিবিধ খাতে ১২৭ কোটি ৩৭ লাখ ৫০ হাজার টাকার বা ৬ শতাংশ, ব্যাংক খাতে ১০৫ কোটি ৬১ লাখ ৫০ হাজার টাকার বা ৫ শতাংশ, খাদ্য খাতে ৭৮ লাখ ৮৮৩ হাজার টাকার বা ৪ শতাংশ, সিরামিক খাতে ৮৩ কোটি ৫৯ লাখ ৫০ হাজার টাকা বা ৪ শতাংশ, মিউচ্যুয়াল ফান্ড খাতে ৬০ কোটি ৮২ লাখ ৫০ হাজার টাকার বা ৩ শতাংশ, তথ্যপ্রযুক্তি খাতে ৭২ কোটি ২৭ লাখ বা ৩ শতাংশ, ট্যানারি খাতে ৫৫ কোটি ৩৬ লাখ বা ৩ শতাংশ, টেলিযোগাযোগ খাতে ৪০ কোটি ৩৩ লাখ ৫০ হাজার টাকার বা ২ শতাংশ, নন-ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠান খাতে ৪০ কোটি ৪১ লাখ বা ২ শতাংশ, সেবা খাতে ২৭ কোটি ৯৯ লাখ বা ১ শতাংশ, পেপার খাতে ১০ কোটি ৯৬ লাখ বা ১ শতাংশ, সিমেন্ট খাতে ১৫ কোটি ৫৭ লাখ বা ১ শতাংশ এবং ভ্রমণ খাতের কোম্পানিগুলোর সপ্তাহজুড়ে ১৪ কোটি ৪ লাখ টাকার বা মোট লেনদেনের ১ শতাংশ হয়েছে।