• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ২ অগ্রাহায়ণ ১৪২৬, ১৯ রবিউল আওয়াল ১৪৪১

রূপালী ও বেসিক ব্যাংকের অডিট আপত্তি দ্রুত নিষ্পত্তির পরামর্শ

সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

| ঢাকা , বুধবার, ২২ মে ২০১৯

image

সরকারি হিসাব সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভায় রূপালী ব্যাংক লি. ও বেসিক ব্যাংক লি. এর ২০১২-১৩ অর্থবছরের হিসাবের ওপর অডিট আপত্তি দ্রুত নিষ্পত্তির পরামর্শ দেয়া হয়েছে। সংসদ ভবনে গতকাল কমিটির সভাপতি মো. রুস্তম আলী ফরাজীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় এ পরামর্শ দেয়া হয়। কমিটির সদস্য ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর, মো. শহীদুজ্জামান সরকার, জহিরুল হক ভূঁঞা মোহন, মনজুর হোসেন, আহসানুল ইসলাম (টিটু), মুস্তফা লুৎফুল্লাহ, ওয়াসিকা আয়েশা খান এবং মো. জাহিদুর রহমান সভায় অংশগ্রহণ করেন।

সভায় অর্থ মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের অধীন রূপালী ব্যাংক লি. ও বেসিক ব্যাংক লি.-এর ২০১২-১৩ অর্থ বছরের হিসাব সম্পর্কিত মহাহিসাব-নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রকের বার্ষিক অডিট রিপোর্ট ২০১৩-১৪-এর অডিট আপত্তির ওপর আলোচনা করা হয়। অডিট আপত্তিগুলো কমিটি প্রদত্ত নির্দেশনার আলোকে নিষ্পত্তির সুপারিশ করা হয়। সভায় জানানো হয় সরকারি নির্দেশ লঙ্ঘন করে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আয়কর ব্যাংকের তহবিল হতে পরিশোধ করায় ব্যাংকে আর্থিক ক্ষতি ২ কোটি ৩২ লাখ ৬৮ হাজার ৫১ টাকা ক্ষতি হয়েছে। এর ওপর উত্থাপিত অডিট আপত্তির প্রেক্ষিতে কমিটি এটাকে ব্যক্তিগত দায় হিসেবে চিহ্নিত করে এবং দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের পাশাপাশি অনধিক ৯০ দিনের মধ্যে অনাদায়ী টাকা আদায়ের ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করে।

সভায় জানানো হয় রপ্তানিতে ব্যর্থ প্রতিষ্ঠান মেসার্স ডিভাইন নিট ওয়্যার লি.-এর অনুকূলে সৃষ্ট ফোর্স্ড লোনের মেয়াদোত্তীর্ণ ২২ কোটি ৭৯ লাখ ৪৭৯ টাকা অনাদায়ী রয়েছে। এর ওপর উত্থাপিত অডিট আপত্তির প্রেক্ষিতে কমিটি ঋণ পরিশোধে ব্যর্থ প্রতিষ্ঠানকে ঋণ না দিয়ে প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তির নামে ঋণ প্রদানকে চরম অন্যায় হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। যারা এ ঋণ প্রদানের সঙ্গে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণসহ দায়েরকৃত মামলা তদারকি করার সুপারিশ করা হয়।

সভায় জানানো হয় চূড়ান্ত অনুমোদন ছাড়া আর্থিক ক্ষমতা বহির্ভূতভাবে প্রকল্প মেয়াদি ঋণ বিতরণ ও কিস্তি অনাদায়ী, সিসি (হাইপো) ও এলটিআর ঋণ মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ায় কূ-ঋণে পরিণত এবং মেয়াদোত্তীর্ণ পিসি, এলসি, বিটুবি বিল ও ফোরসড লোনসহ ৫৮ কোটি ৪ লাখ টাকা আদায় অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। এর ওপর উত্থাপিত অডিট আপত্তির প্রেক্ষিতে কমিটি পর্যাপ্ত সহায়ক জামানত গ্রহণ না করাকে অনিয়ম হিসেবে চিহ্নিত করে। এ ক্ষেত্রে ব্যাংকের যারা ঋণ প্রদানের সঙ্গে জড়িত তাদের সকলকে দায়ী রাখার বিধান চালু করার পাশাপাশি বকেয়া ঋণের ওপর শতকর ৯ ভাগ হারে সুদ আরোপ করে ঋণ পুনঃতফসিলকরণের সুপারিশ করে।

সভায় জানানো হয় ক্রয়কৃত রপ্তানি বিল ও জামানতবিহীন ব্যাংক ওডি ঋণ মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ার দীর্ঘদিন পরও আদায় না হওয়ায় ব্যাংকের ২৬ কোটি ৫৮ লাখ ৬১ হাজার ৪৫৯ টাকা ক্ষতি হয়েছে। এর ওপর উত্থাপিত অডিট আপত্তির প্রেক্ষিতে কমিটি আদায়কৃত টাকার প্রমাণক জমাদান ও অডিট অফিসের সন্তুষ্টি সাপেক্ষে আপত্তিটি নিষ্পত্তির সুপারিশ করা হয়।

সভায় জানানো হয় সীমাতিরিক্ত চলতি মূলধন সিসি হাইপো ঋণ বিতরণ, ডাউন পেমেন্ট ব্যতীত পুনঃতফসিলিকরণ এবং মঞ্জুরিপত্রের শর্তানুয়ায়ী মেয়াদি ঋণ ও ফোর্সড লোন আদায়ে ব্যর্থ হওয়ায় ব্যাংকের ১১৭ কোটি ৩৭ লাখ টাকা ক্ষতি হয়েছে। এর ওপর উত্থাপিত অডিট আপত্তির প্রেক্ষিতে কমিটি পর্যাপ্ত সহায়ক জামানত গ্রহণ না করাকে অনিয়ম হিসেবে চিহ্নিত করে। এ ক্ষেত্রে ব্যাংকের যারা ঋণ প্রদানের সঙ্গে জড়িদের দায়ী রাখার বিধান চালু করার পাশাপাশি বকেয়া ঋণের ওপর শতকরা ৯ ভাগ হারে সুদ আরোপ এবং দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহার করে ঋণ পুনঃতফসিলকরণের সুপারিশ করা হয়।

সভায় জানানো হয় সঠিক ঋণ গ্রহীতা নির্বাচন না করে টিওডি ঋণ বিতরণ করায় অনাদায়ী অর্থ কূ-ঋণে পরিণত হওয়ায় ব্যাংকের ক্ষতি ১ কোটি ৯৮ লাখ ৪৯ হাজার ১৬৩ টাকা ক্ষতি হয়েছে। এর ওপর উত্থাপিত অডিট আপত্তির প্রেক্ষিতে কমিটি দায়েরকৃত মামলার তদারকি জোরদার এবং অনাদায়ী টাকা অনধিক দুই মাসের মধ্যে আদায়ের ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করে। সভায় জানানো হয় মেসার্স সিলেট প্লাস্টিক ইন্ডাস্ট্রিজকে সহজামানতের দ্বিগুণ পরিমাণ ঋণ বিতরণ করায় মঞ্জুরিকৃত ঋণের অর্থ পরিশোধ না করায় ব্যাংকের ১০ কোটি ১৭ লাখ ২১ হাজার ৯৫ টাকা ক্ষতি হয়েছে। এর ওপর উত্থাপিত অডিট আপত্তির প্রেক্ষিতে কমিটি দায়েরকৃত মামলার তদারকি জোরদার, ব্যাংকের যারা ঋণ প্রদানের সঙ্গে জড়িত তাদের সবাইকে দায়ী রাখার বিধান চালু করার পাশাপাশি অনাদায়ী টাকা অনধিক দুই মাসের মধ্যে আদায়ের ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করে। সভায় সিএন্ড এজি মোহাম্মদ মুসলিম চৌধুরী, অর্থ মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ ব্যাংক, সংশ্লিষ্ট ব্যাংক, অডিট অফিস এবং সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।