• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই ২০২০, ৩০ আষাঢ় ১৪২৭, ২২ জিলকদ ১৪৪১

ভারত থেকে আসছে ৮ হাজার টন পিয়াজ

    সংবাদ :
  • অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক
  • | ঢাকা , রোববার, ১৫ মার্চ ২০২০

গত মাসে ভারত সরকার পিয়াজ রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞ তুলে নিয়েছেন। আমদানিকারকরা দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে পিয়াজ আমদানি শুরু করতে উদ্যোগ নেন। কৃষি মন্ত্রণালয়ের উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্র আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আট হাজার টন পিয়াজ আমদানির আইপি ইস্যু করা হয়। আগামীকাল থেকে আমদানি করা এসব পিয়াজ দেশে আসতে শুরু করবে বলে আশা করা হচ্ছে।

পিয়াজ আমদানিকারক আনোয়ার হোসেন জানান, পাঁচ মাস ধরে পিয়াজ রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে রেখেছিল ভারত। ফলে দেশটি থেকে পণ্যটির আমদানি পুরোপুরি বন্ধ ছিল। হিলি স্থলবন্দরের ৫ আমদানিকারক ভারত থেকে পিয়াজ আমদানি শুরু করতে প্রয়োজনীয় আইপি পেয়েছেন। তারা সব মিলিয়ে ৮ হাজার টন পিয়াজ আমদানি করতে পারবেন। সবাই ফেব্রুয়ারিতেই আইপি চেয়ে উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্র আবেদন করেছিলেন। তবে মার্চে যেসব আমদানিকারক আবেদন করেছেন, তাদের আইপি ইস্যু করা হয়নি। এদিকে ভারত থেকে আমদানি শুরু হচ্ছে এমন খবরে হিলির পাইকারি বাজারে কমতে শুরু করেছে পেঁয়াজের দাম। এক সপ্তাহের ব্যবধানে স্থানীয় বাজারে পণ্যটির দাম কেজি প্রতি ২০-২৫ টাকা কমে গেছে। মেহেরপুরের বাজার ঘুরে দেখা যায়, সুখসাগর জাতের পিয়াজ কেজিপ্রতি ৩০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা যায়। এক সপ্তাহ আগেও পণ্যটি কেজিপ্রতি ৫০ টাকায় বিক্রি হয়েছিল। সেই হিসেবে, এক সপ্তাহের ব্যবধানে সুখসাগর জাতের পিয়াজের দাম কেজিতে ২০ টাকা কমেছে। অন্যদিকে এদিন পাবনার মুড়িকাটা পিয়াজ কেজিপ্রতি ৩৫-৪০ টাকায় বিক্রি হয়। সপ্তাহখানেক আগেও কেজিপ্রতি ৬০-৬৫ টাকায় বিক্রি হয়েছিল। অর্থাৎ এক সপ্তাহের ব্যবধানে এ জাতের পিয়াজের দাম কমেছে কেজিতে ২৫ টাকা। স্থানীয় পিয়াজ বিক্রেতা শাকিল খান বলেন, পিয়াজ রপ্তানিতে ভারত সরকারের নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার পর থেকেই বাজারে পণ্যটির দাম কমতে শুরু করে। এখন আজ থেকে আমদানি শুরু খবরে পেঁয়াজের দাম অনেকটাই কমে এসেছে। এরই মধ্যে আমদানি শুরু এ খবর দেশের সব অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে।