• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই ২০২০, ৩০ আষাঢ় ১৪২৭, ২২ জিলকদ ১৪৪১

ব্যবসায়ীদের দাবি মেনেই ভ্যাট আইনে সংশোধন : অর্থমন্ত্রী

সংবাদ :
  • অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

| ঢাকা , সোমবার, ১৩ মে ২০১৯

image

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল

অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনের দিক দিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান কানাডার সমান বলে দাবি করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। গত শনিবার রাজস্ব বোর্ডের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক শেষে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি নিয়ে বেসরকারি গবেষণা সংস্থাগুলোর সমালোচনার জবাবে মন্ত্রী এ কথা বলেন। এসময় তিনি আরও বলেন, ব্যবসায়ীরা যেভাবে চাচ্ছেন, সে অনুযায়ী নতুন ভ্যাট আইন সংশোধন করা হচ্ছে। আগামী জুলাই থেকে এ আইন বাস্তবায়ন করা হবে বলে জানান তিনি।

অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, আগামী অর্থবছর বিশ্ব অর্থনীতির প্রবৃদ্ধি হবে ৩ দশমিক ৬ শতাংশ। আর সেই প্রবৃদ্ধিতে দশমিক ৯ শতাংশ অবদান রাখবে বাংলাদেশের অর্থনীতি। কানাডা অবদান রাখবে ১ শতাংশ। থাইল্যান্ড-স্পেনও ১ শতাংশ করে অবদান রাখবে। আগামী ২০২৪ সাল পর্যন্ত বিশ্ব অর্থনীতির প্রবৃদ্ধিতে বাংলাদেশের এই অবদান অব্যাহত থাকবে বলে ব্লুমবার্গের গবেষণার বরাত দিয়ে তথ্য দেন মুস্তফা কামাল। তিনি বলেন, সে তথ্যের ভিত্তিতেই আমি বলছি, প্রবৃদ্ধিতে আমরা কানাডার সমান। স্পেন-থাইল্যান্ডের সমান। আর এটা আমার কথা নয়, আইএমফের কথা। বিশ্বব্যাংকের কথা। শুধু তাই নয়, কয়েক দিন আগে ফিজিতে এডিবির বার্ষিক সম্মেলনেও বলা হয়েছে, চমকপ্রদ জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জনকারী দেশ হচ্ছে বাংলাদেশ।

মন্ত্রী আরও বলেন, এখনও ভ্যাট আইন বাস্তবায়ন করা হয়নি। বিশ্বের কোন দেশ রাতারাতি ভ্যাট আইন পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন করতে পারেনি। আগে ভ্যাটের সিঙ্গেল বা একক রেট করা হয়। তা নিয়ে আপত্তি ছিল ব্যবসায়ীদের। এখন তাদের মতামত নিয়ে একাধিক রেট করা হচ্ছে। নতুন বাজেটকে সামনে রেখে এনবিআরের ভ্যাট, কাস্টম ও আয়কর নীতি বিভাগের সঙ্গে অর্থমন্ত্রী এই বৈঠক করেন। এ সময় এনবিআরের চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়াসহ বাজেট প্রণয়নের সঙ্গে সম্পৃক্ত সিনিয়র সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। আগামী বাজেটে ভ্যাট, আমদানি ও আয়কর খাতে কী ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হতে পারে সে বিষয়ে এনবিআরকে দিকনির্দেশনা দেন মন্ত্রী। গবেষণা সংস্থা “সানেম” সম্প্রতি বলেছে, বাংলাদেশের এখনকার যে উচ্চপ্রবৃদ্ধি হচ্ছে তার সঙ্গে অর্থনীতির কিছু সূচক সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। তারা জিডিপির প্রবৃদ্ধির হিসাব নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে। একজন সাংবাদিক এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে অর্থমন্ত্রী বলেন, ধারণার ভিত্তিতে কোন কিছু বলা ঠিক নয়। তথ্য-প্রমাণ দিয়ে বলা উচিত বলে মনে করেন তিনি। এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কোন গোলটেবিলের আয়োজন করলে সেখানে এর জবাব দেবেন বলে জানান মন্ত্রী। এসময় এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, অর্থবছরের শেষে বিশেষ করে মে ও জুনে বেশি রাজস্ব আহরণ হয়। ফলে এবার রাজস্ব আয়ের সংশোধিত যে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে, তা অর্জিত হবে বলে অর্থমন্ত্রীকে আশ্বস্ত করেন তিনি।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৮ দশমিক ১৩ শতাংশ হওয়ার যে আভাস সরকার দিচ্ছে, তা নিয়ে সন্দেহ পোষণ করে বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সানেম। সরকারের কথার সঙ্গে দেশের অর্থনীতির চালিকা শক্তিগুলোর তথ্য-উপাত্ত মেলে না দাবি করে সংস্থাটি বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) সরবরাহ করা তথ্য-উপাত্তগুলো পুনঃপর্যালোচনার আহ্বান জানিয়েছে। এর আগে বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সিপিডিও সরকারের প্রবৃদ্ধির হিসাব নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছিল। গত জানুয়ারিতে টানা তৃতীয় মেয়াদে দায়িত্ব নেয়া আওয়ামী লীগ সরকার চলতি অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৮ দশমিক ১৩ শতাংশ হবে বলে আট মাসের (জুলাই-ফেব্রুয়ারি) তথ্য হিসাব করে আভাস দিয়েছে। সরকারের এই প্রাক্কলনের কাছাকাছি জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জনের আভাস দিয়েছে এডিবি। তারা বলছে এই অঙ্ক ৮ শতাংশ হতে পারে। তবে বিশ্বব্যাংক বলছে, জিডিপি প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৭ দশমিক ৩ শতাংশ।

বেসরকারি গবেষণা সংস্থাগুলোর এ সব সমালোচনার জবাবে মুস্তফা কামাল আরও বলেন, “তাদের কাজ তারা করবে। আমার কাজ আমি করব। তবে তাদের হোমওয়ার্ক করে তথ্য দেয়া উচিৎ। আমি তথ্য নিয়ে কথা বলি। আমি মানে বাংলাদেশ। আমি সঠিক তথ্যের ভিত্তিতেই কথা বলি। আমি কারো নাম বলছি না, তবে অনেকেই অনুমানের ভিত্তিতে কথা বলেন। আমি তাদের চ্যালেঞ্জ করে বলছি। আসেন, গোলটেবিল আলোচনায় বসি। আমি বা বিবিএস যে তথ্য দিচ্ছে সেটা যে সঠিক তা প্রমাণ করে ছাড়ব। দুঃখ একটাই, বিশ্বব্যাংক-আইএমএফ-এডিবি আমাদের প্রশংসা করছে। আর আমাদের এখানকার কয়েকজন সেটা মেনে নিচ্ছে না বা মেনে নিতে পারছে না। এ সব সংগঠনের কাজই সরকারের সমালোচনা করা। তারা বছরে কিছু প্রোগ্রাম করে আর সরকারের সমালোচনা করে। এটা তাদের বাৎসরিক রুটিন হয়ে গেছে।

তবে বাংলাদেশের ট্যাক্স-জিডিপি অনুপাত কমেছে বলে যে তথ্য বেসরকারি সংস্থাগুলো দিচ্ছে তা ঠিক আছে বলে মনে করেন অর্থমন্ত্রী মুস্তফা কামাল। তিনি বলেন, “জিডিপির তুলনায় আমাদের ট্যাক্স অনেক কম। ১০ থেকে এখন ৯ এ নেমে এসেছে। এটা অবশ্যই বাড়ানো দরকার। তবে এটাও মনে রাখতে হবে যে, ট্যাক্স-জিডিপি অনুপাত কম হলেই যে প্রবৃদ্ধি কমবে এটা ঠিক নয়। আমাদের অর্থনীতির প্রায় ৮০ শতাংশই ইনফরমাল ইকনোমি। এই ইনফরমাল ইকনোমি জিডিপিতে সবচেয়ে বড় অবদান রাখছে। তবে ট্যাক্স বেশ ভালোই বেড়েছে। তথ্য দিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, ২০০৯-১০ অর্থবছরে কর আদায়ের পরিমাণ ছিল ৬৩ হাজার কোটি টাকা। চলতি অর্থবছরে সেটার লক্ষ্য ধরা আছে ২ লাখ ৯০ হাজার কোটি টাকা। হয়তো লক্ষ্যের পুরোটা আদায় হবে না। কিন্তু কাছাকাছি তো হবে। হিসাব করলে দেখা যাবে এই কয় বছরে কর আদায়ের পরিমাণ চার গুণ বেড়েছে।