• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৯ আশ্বিন ১৪২৫, ১৩ মহররম ১৪৪০

বিত্তশালীরা কর দিচ্ছেন কিনা তদন্ত করছে এনবিআর

সংবাদ :
  • অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

| ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮

image

দেশের বিত্তশালীরা ঠিকভাবে কর পরিশোধ করছেন কিনা- তা তদন্ত করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া। তিনি বলেন, কমিশনারেট অফিসগুলোকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে, এ বিষয়টা রিভিউ করার জন্য। মনিটরিং করে দেখা হবে, বিত্তশালীরা ঠিকমতো কর দিচ্ছে কিনা।

গতকাল বিসিএস একাডেমিতে ৬ মাসব্যাপী বিভাগীয় বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ কোর্সের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। নতুন নিয়োগপ্রাপ্ত ৩৬তম বিসিএস (কর) ক্যাডারের ৩৯ জন সহকারী কর কমিশনারসহ মোট ৪২ জন সহকারী কর কমিশনার এ প্রশিক্ষণে অংশ নিচ্ছেন। বিসিএস (কর) একাডেমির মহাপরিচালক বজলুল কবির ভূঁঞার সভাপতিত্বে এ সময় এনবিআরের সদস্য (কর প্রশাসন ও মানবসম্পদ ব্যবস্থাপনা) জিয়া উদ্দিন মাহমুদ, বাংলাদেশ সিভিল সাভিস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও কর-৮ এর কমিশনার সেলিম আফজাল বক্তব্য রাখেন।

এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, আমাদের দেশের যতো বড় বড় ব্যবসায়ী রয়েছে, তাদের করের আওতায় আনতে অফিসারদের নির্দেশনা দিয়েছি। তাদের কমিশনাররা চিহ্নিত করছেন। বর্তমানে আমাদের যে ট্যাক্সেশন জোনগুলো রয়েছে, সেগুলোতে গুরুত্বপূর্ণ করদাতাদের ফাইলগুলো চিহ্নিত করা হয়েছে।

খুব বেশি কর বৃদ্ধি করা গৌরবের কাজ নয় উল্লেখ্য করে মোশাররফ হোসেন বলেন, করদাতাদের সংখ্যা বৃদ্ধি করা হচ্ছে গৌরবের কাজ। এখানে আপনারা যারা যোগদান করেছেন, প্রথমে আগামী এক বছরের মধ্যে সবাই ইটিআইএন করে আয়কর ও রিটার্ন দিয়ে দেবেন। প্রতিজনে অন্তত ১০ জন করে ৪০০ জনকে অন্তর্ভুক্ত করবেন। আত্মীয়-স্বজনসহ পরিচিত-অপরিচিত সবাইকে কর দিতে উদ্বুদ্ধ করবেন।

তিনি বলেন, শহরে নতুন নতুন বাড়িওয়ালার পাশাপাশি গ্রামাঞ্চলেও করের পরিধি বাড়াতে হবে। এজন্য আপনাদের মধ্য থেকে অনেককে গ্রামে পোস্টিং দেয়া হয়েছে। আপানার প্রথমে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও চেয়ারম্যান প্রার্থীদের এবং মেম্বারসহ এলাকায় বিত্তশালীদের চিহ্নিত করে আয়কর রিটার্নের আওতায় আনবেন। কারণ ২০১৮-১৯ সালের বাজেটে যে বরাদ্দ ধরা হয়েছে, নতুন সরকারের কাজ বাস্তবায়নের রাজস্ব আহরণ খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে জানান তিনি।

এদিকে বিশ্বে ‘অতি ধনী’ মানুষের সংখ্যা সবচেয়ে দ্রুতগতিতে বাড়ছে বাংলাদেশে। সম্প্রতি প্রকাশিত এক রিপোর্টে এ তথ্য দেয়া হচ্ছে। লন্ডনভিত্তিক একটি প্রতিষ্ঠান ‘ওয়েলথ এক্স’ গত সপ্তাহে এ অতি ধনীদের ওপর সর্বশেষ রিপোর্টটি প্রকাশ করে। এতে বলা হচ্ছে, অতি ধনী মানুষের সংখ্যা সবচেয়ে দ্রুতহারে বাড়ছে যেসব দেশে, সেই তালিকায় আছে বাংলাদেশ সবার উপরে। ওয়েলথ এক্সের তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশে ১৭ দশমিক তিন শতাংশ হারে ধনীদের সংখ্যা বাড়ছে।

কর ফাঁকির দায়ে ধনীরা আরও ধনী হচ্ছে কিনা-এমন প্রশ্নের জবাবে এনবিআর চেয়ারম্যান আরও বলেন, দেশে ধনীরা যে সব সময় কর ফাঁকি দেয় তা নয়। তারা করও দেয়। আবার দেশের উন্নয়নে অংশ নেয়। তবে সবাই ঠিকমতো কর দিচ্ছে কিনা দেখা হচ্ছে। মনিটরিং হচ্ছে। কমিশনারেট অফিসগুলোকে কর ফাঁকিবাজ চিহ্নিত করতেও বলা হয়েছে।

বিসিএস (কর) একাডেমির মহাপরিচালক মো. বজলুল কবির ভূঞার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান বলেন, আমাদের জিডিপির তুলনায় টেক্স রেশিও কম। এজন্য করদাতার সংখ্যা বাড়াতে হবে। তবে জোর জবরদস্তি নয়। সবার সঙ্গে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে কাজ করতে হবে।

বুনিয়াদি প্রশিক্ষণের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিসিএস ক্যাডারদের উদ্দেশে চেয়ারম্যান বলেন, এটা হলো সেবার জায়গা। এখানে অহমিকা করা যাবে না, করদাতা কাউকে হয়রানি করা যাবে না। কারও প্রতি বৈষম্য করা যাবে না। সাধারণ মানুষের ভালোর জন্য কাজ করে যেতে হবে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য (কর প্রশাসন ও মানব সম্পদ ব্যবস্থাপনা) জিয়া উদ্দিন মাহমুদ এবং বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (ট্যাক্সেশন) অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও কর কমিশনার (কর অঞ্চল-০৮) মো. সেলিম আফজাল। এছাড়াও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্যসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।