• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

বুধবার, ১৫ আগস্ট ২০১৮, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৫, ৩ জিলহজ ১৪৩৯

ন্যূনতম মজুরি ১৬ হাজার টাকা ঘোষণার দাবি গার্মেন্ট শ্রমিকদের

বৃহত্তর আন্দোলনের হুমকি

সংবাদ :
  • অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

| ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১৭ মে ২০১৮

image

বছরে ১০ শতাংশ হারে মজুরি বৃদ্ধিসহ পাঁচটি গ্রেড নির্ধারণ এবং অবিলম্বে ন্যূনতম মজুরি ১৬ হাজার টাকা ঘোষণা করা না হলে বৃহত্তর আন্দোলনে যাওয়ার হুমকি দিয়েছে ছয়টি গার্মেন্টস সংগঠন।

গতকাল বুধবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে ছয়টি শ্রমিক সংগঠন। সংগঠনগুলো হলো- ইন্ডাস্ট্রিয়াল বাংলাদেশ কাউন্সিল (আইবিসি), বাংলাদেশ গার্মেন্টস শ্রমিক ঐক্যপরিষদ, গার্মেন্টস শ্রমিক ও শিল্পরক্ষা জাতীয় মঞ্চ, গার্মেন্টস শ্রমিক অধিকার আন্দোলন, গার্মেন্টস শ্রমিক মজুরি আন্দোলন ও গার্মেন্টস শ্রমিক সমন্বয় পরিষদ।

সংবাদ সম্মেলনে আইবিসির মহাসচিব মো. তৌহিদুর রহমান বলেন, পোশাক শ্রমিকদের মজুরি নির্ধারণে সরকার এ বছরের জানুয়ারি মাসে গেজেট নোটিফিকেশনের মাধ্যমে নিম্নতম মজুরি বোর্ড ঘোষণা করে। জুন মাসের মধ্যে মজুরি বোর্ডের মজুরি রোয়েদাদ চূড়ান্ত করার কথা। কিন্তু মজুরি বোর্ডের কার্যক্রম ধীরগতিতে চলছে। এতে শ্রমিকদের মধ্যে আশঙ্কা বিরাজ করছে যে, মজুরি বোর্ড আগামী জুন মাসের মধ্যে মজুরি রোয়েদাদ চূড়ান্ত করতে পারবে না। তিনি বলেন আমরা জানতে পেরেছি, মালিক পক্ষের (বিজিএমইএ) আন্তরিকতার অভাবে মজুরি বোর্ড কার্যক্রমে গতি সঞ্চার করতে পারছে না। আমরা আশঙ্কা করছি মালিক পক্ষ কালক্ষেপণের মাধ্যমে মজুরি রোয়েদাদ ঘোষণার সময় বিলম্বের পাঁয়তারা করছে। যদি আমাদের আশঙ্কা সত্যি হয় তাহলে তৈরি পোশাক শিল্পে নৈরাজ্য সৃষ্টি হতে পারে যা কারওই কাম্য নয়। আমরা এ ব্যাপারে সরকার ও মালিক পক্ষকে সতর্ক হওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। আমরা মনে করি, কোন রকম কালক্ষেপণ হবে আত্মঘাতী পদক্ষেপ।

তিনি আরও বলেন, আমরা আশা করি শিল্প উৎপাদন ও উন্নয়নের সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিতকরণে গার্মেন্টস শ্রমিকদের পঞ্চম গ্রেডের সহকারী অপারেটর শ্রমিকের মজুরি ১৬ হাজার টাকা ঘোষণা করবেন। একই সঙ্গে কর্মহীন সময়ে তাদের বেসিক মজুরির সমপরিমাণ প্রদান করতে হবে। এসব দাবি আদালয়ে ঈদের পরে ঐক্যবদ্ধভাবে বৃহত্তর আন্দোলন কর্মসূচি পালন করা হবে।

গার্মেন্টস শ্রমিক সমন্বয় পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক আমিরুল হক আমিনের সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে অন্য সংগঠনের নেতারা বক্তব্য রাখেন।

এদিকে দৈনন্দিন ব্যয় হিসেবে একজন গার্মেন্ট শ্রমিক যে মজুরি পায় তা দিয়ে সংসার চালানো খুবই কষ্টকর উল্লেখ করে গার্মেন্টস শ্রমিকদের বেতন ১৮ হাজার করার দাবি জানিয়েছে গার্মেন্ট শ্রমিক-কর্মচারী ঐক্য পরিষদ (জি-স্কপ)। আগামী জুলাই মাসের মধ্যে গার্মেন্ট শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি ১৮ হাজার টাকা ঘোষণা করতে মজুরি বোর্ডের প্রতি আহ্বান জানান তারা। গত মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক শ্রমিক সমাবেশ এ দাবি জানানো হয়।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, যাদের শ্রমে দেশের জিডিপি বাড়ে সে শ্রমিকরা মানসম্পন্ন জীবনধারণ উপযোগী মজুরি পাবে না কেন? শ্রম আইন অনুযায়ী মজুরি বোর্ড গঠনের ৬ মাসের মধ্যে মজুরি ঘোষণা করতে হবে। লাখ লাখ গার্মেন্টস শ্রমিকের পক্ষে গার্মেন্ট শ্রমিক কর্মচারী পরিষদ দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করে আসছে। সরকারি কর্মচারীদের বেতন বৃদ্ধি পেয়েছে, তাহলে উৎপাদন কাজে নিয়োজিত শ্রমিকদের বেতন এত কম কেন?

এ সময় আয়োজক সংগঠনের পক্ষ থেকে বেশ কিছু দাবি তুলে ধরা হয়। দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে, গার্মেন্ট শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি ১৮ হাজার টাকা নির্ধারণ, মজুরি বোর্ডের কালক্ষেপণ বন্ধ করে জুলাই মাসের মধ্যে মজুরি ঘোষণা, রমজানের অজুহাতে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি বন্ধ, শ্রমিকদের জন্য রেশনের ব্যবস্থা, কর্মক্ষেত্রে শ্রমিকের মৃত্যুতে আজীবন ক্ষতিপূরণ ও আহত শ্রমিকদের চিকিৎসা ক্ষতিপূরণ-পুনর্বাসন ব্যবস্থা করার দাবি জানান তারা।