• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই ২০২০, ৩০ আষাঢ় ১৪২৭, ২২ জিলকদ ১৪৪১

বিশ্ব ভোক্তা-অধিকার দিবস আজ

নিত্যপণ্যের মূল্য নিয়ন্ত্রণে প্রতি রোববার বৈঠক

    সংবাদ :
  • অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক
  • | ঢাকা , রোববার, ১৫ মার্চ ২০২০

image

আমদানি থেকে শুরু করে পাইকারি ও খুচরা পর্যায় পর্যন্ত নিত্যপণ্যের দামের পার্থক্য যেন খুব বেশি না থাকে বিষয়টি জোরালোভাবে মনিটর করবে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। এজন্য আমদানি পর্যায়ের মূল্য, দেশীয় বাজার এবং খুচরা পর্যায়ে পণ্যের দাম যাচাই করতে প্রতি রোববার বৈঠকে বসবে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব নিজ কক্ষে সংশ্লিষ্টদের নিয়ে পণ্যের মূল্য তদারকির কার্যক্রম পরিচালনা করবেন বলে জানিয়েছেন মন্ত্রণালয়টির সচিব ড. মো. জাফর উদ্দিন। গতকাল রাজধানীর টিসিবি ভবনে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরে ‘বিশ্ব ভোক্তা-অধিকার দিবস ২০২০’ উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি।

বাণিজ্য সচিব বলেন, আগামীকাল থেকে আমরা ট্রেডিশনের বাইরে প্রতি রোববার সকাল সাড়ে ১০টায় আমার নেতৃত্বে একটি কমিটি বৈঠক করবে। বৈঠকে ভোক্তা অধিকার, টিসিবিসহ মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি থাকবে। আমদানি থেকে আমরা মূল্য দেখবো, পাইকারি পর্যায়ে কি হচ্ছে দৈনিক, একই দিনে খুচরা পর্যায়ে কি হচ্ছে সেটাও আমরা দেখবো। এটা আশা করি আমরা ভালো একটা রেজাল্ট দিতে পারবো। সামনে পবিত্র রমজান মাস।

আমরা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়সহ সংশ্লিষ্ট সব মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে সমন্বয় করে কাজ করার চেষ্টা করছি। আমাদের লক্ষ্য একটাই- রমজান মাসে মানুষ যেন ভালো থাকে। এটা একটা প্রতিশ্রুতি এবং চ্যালেঞ্জ।

তিনি আরও বলেন, আমি চেষ্টা করছি একটা অ্যাপস তৈরি করার জন্য। এই অ্যাপসের মাধ্যমে আমরা এক জায়গায় বসে টের পাবো যে শ্যামবাজারে, মৌলভীবাজারে কি ঘটছে। অ্যাপস তৈরি করার জন্য দায়িত্ব দিয়েছি একটি প্রতিষ্ঠানকে। আমরা আশা করি পবিত্র রমজান মাসে মানুষ কষ্ট পাবে এটা হতে পারে না। যেখানে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। আসন্ন রমজান মাস উপলক্ষে টিসিবিকে অন্যান্য বারের চেয়ে ১০-১৫ গুণ সক্ষমতা বাড়ানো হয়েছে।

এ সময় জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের মহাপরিচালক বাবলু কুমার সাহা, উপপরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ারসহ অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

অধিদফতরের তথ্য অনুযায়ী, ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯-এর ১৭টি ধারার আলোকপাতে ২০০৯ সাল থেকে ২০২০ সালের ৮ মার্চ পর্যন্ত জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদফর ২৬ হাজার ৩৯৪টি বাজারে অভিযান চালিয়েছে, যেখানে দ-িত করা হয়েছে ৭৪ হাজার ২১০টি প্রতিষ্ঠানকে এবং জরিমানা আদায় করা হয়েছে ৫৫ কোটি ৬০ লাখ ৩ হাজার ৬৪২ টাকা। এই সময়কালে ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরে অভিযোগ এসেছে ৩০ হাজার ২৯৫টি, তার মধ্যে অভিযোগ নিষ্পত্তি করা হয়েছে ২৮ হাজার ৫৮৯টি। এসব অভিযোগের ভিত্তিতে ৬ হাজার ৪৬টি প্রতিষ্ঠানকে দণ্ডিত করা হয়েছে এবং ৪ কোটি ২০ লাখ ৭১ হাজার ৮ টাকা জরিমানা আদায় করেছে ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর। অনিসম্পন্ন অভিযোগ রয়েছে ১ হাজার ৭শ ছয়টি। মোট জরিমানার পরিমাণ ৫৯ কোটি ৮০ লাখ ৭৪ হাজার ৬’শ পঞ্চাশ টাকা। এদিকে অভিযোগ প্রদানকারী ব্যক্তিদের এখন পর্যন্ত ১ কোটি ৩ লাখ ৯০ হাজার ৭৫২ টাকা ফেরত দেয়া হয়েছে। সে হিসেব অনুযায়ী ৫ হাজার ৯৬৫ জন ব্যক্তি টাকা ফেরত পেয়েছে, যা গড়ে ২৫ শতাংশ লোক এ হিসাব পেয়েছেন। এছাড়াও ভোক্তা-অধিকার সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করার জন্য বিভিন্ন সময় পোস্টার, প্যাম্পলেট, লিফলেট, স্টিকার ও ক্যালেন্ডার বিতরণ করে আসছে এই অধিদফতর।