• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

রবিবার, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ৯ কার্তিক ১৪২৭, ৭ রবিউল ‍আউয়াল ১৪৪২

ঢাকা স্কুল অব ইকোনমিকস সেমিনারে বক্তারা

টেকসই উন্নয়নে বাড়াতে হবে টেকনোলজির ব্যবহার

সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

| ঢাকা , রোববার, ২১ এপ্রিল ২০১৯

বাংলাদেশসহ বিশ্বের উন্নয়নশীল দেশগুলোতে বেকারত্ব বাড়ছে। বিশেষ করে শিক্ষিত বেকারত্ব বাড়ছে। ডিজিটাল অর্থনীতি বেকারত্ব কমাতে সাহায্য করে। প্রযুক্তিনির্ভর অর্থনীতির কিছু চ্যালেঞ্জ থাকলেও এর মাধ্যমে উন্নয়নের গতি আরও বাড়ানো সম্ভব। গতকাল ঢাকা স্কুল অব ইকোনোমিক্স (ডিএসসিই) আয়োজিত ‘ডিজিটাল ইকোনমি ফোর্থ ইন্ডাস্ট্রিয়াল রেভলুশন অ্যান্ড বিগ ডাটা : ইমপ্যাক্ট অন বাংলাদেশ ইকোনমি’ শীর্ষক সেমিনারে এসব কথা বলেন বক্তারা।

সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন ডিএসসিই গভর্নিং কাউন্সিলের চেয়ারম্যান ও বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ড. কাজী খলীকুজ্জমান। এছাড়া জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রোভিসি অধ্যাপক ড. হাফিজ মোহাম্মদ হাসান বাবু, বাংলাদেশ চেম্বার অব ইন্ডাস্ট্রিজের (বিসিআই) সভাপতি আনোয়ার-উল আলম চৌধুরী পারভেজ, বাংলাদেশ সেন্টার ফর ফোর্থ ইন্ডাস্ট্রিয়াল রেভলুশনের সহ-সভাপতি সৈয়দ তামজিদ উর রহমান, সাবেক অতিরিক্ত সচিব আশরাফুল ইসলাম, ডিএসসিই সহকারী অধ্যাপক রেহেনা পারভীন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ডিএসসিই’র উদ্যোক্তা অর্থনীতি কোর্সের সমন্বয়ক অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ মাহবুব আলী।

কাজী খলীকুজ্জমান বলেন, প্রযুক্তি এগিয়ে চলছে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার মাধ্যমে বিভিন্ন কাজ করা হচ্ছে। ডিজিটালাইজেশন প্রক্রিয়ায় অর্থনীতির উন্নয়ন সাধিত হচ্ছে। প্রযুক্তির উৎকর্ষতার মাধ্যমে দারিদ্র বিমোচন করতে হবে। প্রযুক্তির মাধ্যমে উন্নয়নের পাশাপাশি এর চ্যালেঞ্জগুলো মাথায় রাখতে হবে। সাইবার আক্রমনের মাধ্যমে অনেক ক্ষতির সম্ভাবনা থাকে। আবার প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়লে বেকারত্ব বাড়তে পারে। এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সঠিক নীতি সরকারকে গ্রহণ করতে হবে।

তিনি বলেন, ১ শতাংশ মানুষের হাতে বিশ্বের অর্ধেক সম্পদ রয়েছে। এই বৈষম্য, দারিদ্র্য কমাতে হবে। প্রযুক্তিনির্ভর অর্থনীতির কারণে যেন কেউ কাজ হারিয়ে বেকার না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। মানুষের উন্নয়নকে সামনে রেখে যেকোন উন্নয়ন নীতি গ্রহনের পরামর্শ দেন তিনি। অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ মাহবুব আলী বলেন, প্রযুক্তির ওপর ভর করে আরেকটি শিল্পবিপ্লব হতে চলেছে। এর থেকে দূরে থাকার সুযোগ নেই।