• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

রবিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৯, ১২ ফাল্গুন ১৪২৫, ১৮ জমাউস সানি ১৪৪০

জুলাইয়ে ঘোড়াশাল-পলাশ সার কারখানার নির্মাণ শুরু : শিল্পমন্ত্রী

সংবাদ :
  • অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

| ঢাকা , সোমবার, ১১ ফেব্রুয়ারী ২০১৯

image

চলতি বছরের জুলাই মাসে দেশের সর্ববৃহৎ ঘোড়াশাল-পলাশ ইউরিয়া সার কারখানা নির্মাণের মূল কাজ শুরু হবে। এ লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতিমূলক কাজ দ্রুত এগিয়ে চলেছে। অত্যাধুনিক প্রযুক্তির এ সার কারখানায় উৎপাদিত কার্বন-ডাই-অক্সাইড পুনরায় সার উৎপাদনের কাজে ব্যবহার করা যাবে। এর ফলে সারের উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে এবং অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে সারের যোগান বাড়নো সম্ভব হবে।

শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন গতকাল নরসিংদী জেলার পলাশে অবস্থিত ‘ঘোড়াশাল-পলাশ ইউরিয়া ফার্টিলাইজার প্রকল্প’ এলাকা পরিদর্শনের পর সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে এ তথ্য জানান। শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে শিল্পমন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকারের নির্বাচনী অঙ্গীকারগুলো নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই পূরণ করা হবে। নতুন এ সার কারখানা নির্মাণও সরকারের নির্বাচনী অঙ্গীকার পূরণের অংশ। জ্বালানি সাশ্রয়ী ও পরিবেশবান্ধব এ কারখানার মাধ্যমে দেশের খাদ্য নিরাপত্তা জোরদার হবে। এটি নির্মাণের কারণে বর্তমানে কর্মরত কোন শ্রমিক বা কর্মচারী কর্মহীন কিংবা বাস্তুহীন বলে না বলে তিনি উল্লেখ করেন।

পরে শিল্পমন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রী ঘোড়াশাল সার কারখানার অফিসার্স ক্লাবে এক মতবিনিময় সভায় মিলিত হন। এ সময় শিল্পমন্ত্রী গুণগতমান বজায় রেখে নির্ধারিত সময়ে এ প্রকল্পের কাজ সমাপ্ত করতে কারখানার কর্মকর্তা, কর্মচারী, শ্রমিকসহ সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি আহবান জানান। তিনি বলেন, নতুন এ কারখানা নির্মাণের সঙ্গে শ্রমিক, কর্মচারীসহ সকলের স্বার্থ জড়িত। এ প্রকল্প বাস্তবায়নে সবাইকে সর্বোচ্চ আন্তরিকতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে হবে। বিশেষ করে, ট্রেড ইউনিয়ন নেতাদের নিয়মিত কারখানায় কাজ করতে হবে। শ্রমিক নেতারা ‘বেতন নেবেন কিন্তু কাজ করবেন না’- এ ধরনের সংস্কৃতি মেনে নেয়া হবে না। তিনি বাংলাদেশের বিশাল জনগোষ্ঠীকে স্বর্ণের খনির সঙ্গে তুলনা করে ষোলো কোটি মানুষের বত্রিশ কোটি হাতকে উন্নয়ন ও উৎপাদনের কাজে লাগানোর পরামর্শ দেন। এর মাধ্যমে বাংলাদেশ উন্নয়নের কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে দ্রুত পৌঁছে যাবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

শিল্প প্রতিমন্ত্রী বলেন, জনকল্যাণে কাজ করাই আওয়ামী লীগ সরকারের রাজনীতি। স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু উন্নয়ন ও উৎপাদনের সর্বোচ্চ ভূমিকা পালনের জন্য শ্রমিক সমাজের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন। এ মন্ত্রে উজ্জীবিত হয়ে শ্রমিক-কর্মচারীদের নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করে যেতে হবে। বর্তমান সরকার শ্রমিকবান্ধব সরকার। শ্রমিক সমাজের জীবন মান উন্নয়নে সরকার নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। সরকারের উন্নয়ন কর্মকা- যাতে কেউ বাধাগ্রস্ত করতে না পারে, সে বিষয়ে সর্তক থাকতে তিনি শ্রমিক কর্মচারীদের পরামর্শ দেন।

ঘোড়াশাল-পলাশ ইউরিয়া ফার্টিলাইজার প্রকল্পের পরিচালক রাজিউর রহমান মল্লিকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে স্থানীয় সংসদ সদস্য ডা. আনোয়ারুল আশরাফ খান দিলীপ ও জহিরুল হক ভূঞা মোহন, বিসিআইসি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আমিনুল আহসান, নরসিংদী জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল মতিন ভূঁইয়া ও শিল্প মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব জিয়াউর রহমান বক্তব্য রাখেন।