• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

বৃহস্পতিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২০, ৯ মাঘ ১৪২৬, ২৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

রেমিট্যান্সে ২ শতাংশ প্রণোদনা

ছয় মাসে গ্রাহকরা পেল ১৪২৭ কোটি টাকা

    সংবাদ :
  • অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক
  • | ঢাকা , মঙ্গলবার, ১৪ জানুয়ারী ২০২০

image

নতুন অর্থবছরের শুরু থেকেই গতি বেড়েছে প্রবাসী আয়ে। গত ১ জুলাই থেকে ২ শতাংশ হারে অর্থাৎ ১০০ টাকা দেশে পাঠালে ২ টাকা সরকারি প্রণোদনা পাচ্ছেন প্রবাসীরা। এর সুফল দেখা যাচ্ছে গত ছয় মাসের প্রতিবেদনে। ব্যাংকিং চ্যানেলে বৈধ উপায়ে রেমিট্যান্স প্রেরণের উৎসাহে রেকর্ড তৈরি করেছেন রেমিট্যান্স যোদ্ধারা। ইতোমধ্যে তফসিলি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে রেমিট্যান্স পাঠিয়ে গত ছয় মাসে (১ জুলাই থেকে ১১ ডিসেম্বর পর্যন্ত) মোট ১ হাজার ৪২৭ কোটি ৫১ লাখ ১৯ হাজার ৬৪৮ টাকা প্রণোদনা হিসেবে অতিরিক্ত পেয়েছেন প্রবাসীরা। প্রণোদনায় ছাড়কৃত অর্থের মধ্যে অবশিষ্ট রয়েছে মাত্র ১০২ কোটি ৪৮ লাখ ৮০ হাজার ৩৫২ টাকা। তাই রেমিট্যান্সে প্রণোদনা অব্যাহত রাখতে বরাদ্দকৃত অর্থের তৃতীয় ও চতুর্থ কিস্তির অবশিষ্ট ১ হাজার ৫৩০ কোটি টাকার পুরোটাই একসঙ্গে অর্থবিভাগের কাছে চেয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তবে দুই কিস্তি না দিয়ে আপাতত তৃতীয় কিস্তি অর্থাৎ ৭৬৫ কোটি টাকা ছাড় করতে সম্মতি দিয়েছে অর্থ বিভাগ। অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র বলছে, চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্সে ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা দেয়ার ঘোষণার পর তা বাস্তবায়ন করছে সরকার। বাজেটে এজন্য ৩ হাজার ৬০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়। এ বরাদ্দ থেকে ইতোমধ্যে দুই কিস্তির অর্থ ছাড় করা হয়েছে। অর্থ বিভাগের সম্মতিক্রমে তৃতীয় কিস্তির অর্থ ছাড় করার বিষয়টিও প্রক্রিয়াধীন। চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরের জুলাই-নভেম্বর পর্যন্ত সময়ে মোট রেমিট্যান্স এসেছে ৭৭১ কোটি ৪১ লাখ ৯০ হাজার মার্কিন ডলার। গত ২০১৮-১৯ অর্থবছরের একই সময়ে যা এসেছিল ৬২৮ কোটি ৮৪ লাখ ৪০ হাজার ডলার। অর্থাৎ গত অর্থবছরের তুলনায় চলতি বছরের একই সময়ে রেমিট্যান্স বেড়েছে ২৩ শতাংশ। এই হারে রেমিট্যান্স আহরণ অব্যাহত থাকলে ছাড়কৃত অর্থের অবশিষ্ট অংশ খুব শীঘ্রই শেষ হয়ে যাবে।

সেজন্য ২০১৯-২০ অর্থবছরের জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত সময়ে প্রণোদনা অব্যাহত রাখতে তৃতীয় ও চতুর্থ কিস্তির অবশিষ্ট ১ হাজার ৫৩০ কোটি টাকার পুরো অর্থেরই প্রয়োজন হবে মর্মে প্রতীয়মান হয়। তাই ২০১৯-২০ অর্থবছরের তৃতীয় ও চতুর্থ কিস্তির মোট ১ হাজার ৫৩০ কোটি টাকা একত্রে ছাড়করণের জন্য জরুরিভাবে অনুরোধ করা হয় বাংলাদেশ ব্যাংকের আবেদনে।

এ তালিকায় দেখা গেছে, গত ছয় মাসে সোনালী ব্যাংকের মাধ্যমে প্রবাসীরা প্রণোদনা পেয়েছেন ৯৯ কোটি ৯২ লাখ ৫৭ হাজার ৯৪৭ টাকা। তারা জনতা ব্যাংকের মাধ্যমে প্রণোদনা পেয়েছেন ৭৪ কোটি ৫৮ লাখ ৪৮ হাজার ২১ টাকা, অগ্রণী ব্যাংকের মাধ্যমে ১৪১ কোটি ৮৫ লাখ ৯২ হাজার ৩৯০ টাকা এবং রূপালী ব্যাংকের মাধ্যমে পেয়েছেন ১৮ কোটি ৮৭ লাখ ১৫ হাজার ৭৮০ টাকা। এছাড়া বেসরকারি খাতের ইসলামী ব্যাংকের মাধ্যমে প্রণোদনা পেয়েছেন ২৭১ কোটি ২ লাখ ৫৭ হাজার ৭৮৯ টাকা, আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংক থেকে পেয়েছেন ৩০ কোটি ৬৬ লাখ ৩২ হাজার ১৯৬ টাকা, সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকের মাধ্যমে পেয়েছেন ১৪ কোটি ১০ লাখ ৫৯ হাজার ৪৯৭ টাকা। এভাবে দেশের ৫৫টি তফসিলি ব্যাংকের মাধ্যমে গত জুলাই থেকে ১১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময়ে ১ হাজার ৪২৭ কোটি ৫১ লাখ ১৯ হাজার ৬৪৮ টাকা প্রণোদনা হিসেবে পেয়েছেন প্রবাসীরা। এদিকে পাঠানো রেমিট্যান্সের ওপর প্রণোদনা পেতে সম্প্রতি প্রবাসীদের জন্য বিভিন্ন দিক-নির্দেশনা দিয়ে নীতিমালা জারি করে বাংলাদেশ ব্যাংক। এতে বলা হয়, প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্সে প্রণোদনা পেতে ১ হাজার ৫০০ ডলার পর্যন্ত কোন ধরনের কাগজপত্র লাগবে না।